বৃহস্পতিবার   ২১ নভেম্বর ২০১৯   অগ্রাহায়ণ ৭ ১৪২৬   ২৩ রবিউল আউয়াল ১৪৪১

বরগুনার আলো
ব্রেকিং:
একুশ শতকের চ্যালেঞ্জ মোকাবিলায় সশস্ত্র বাহিনীকে গড়ে তোলা হবে দেশপ্রেমে উদ্বুদ্ধ হয়ে সশস্ত্র বাহিনীকে কাজ করার আহ্বান সড়ক পরিবহন আইনের অসঙ্গতি দূর করা হবে: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী ‘বিএনপি সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে গুজব সৃষ্টি করছে’- কাদের অনার্স ২য় বর্ষের ২৫ নভেম্বরের পরীক্ষা স্থগিত কোন অপপ্রচারে কান না দিতে জনগণের প্রতি প্রধানমন্ত্রীর আহ্বান ‘গোলাপি’ যাত্রা রাঙ্গাতে কাল মাঠে নামছে বাংলাদেশ সারাবিশ্বে বাংলাদেশ এখন সম্মানের দেশ: প্রধানমন্ত্রী সশস্ত্র বাহিনী দিবসের সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রী আজ সন্ধ্যায় আ. লীগের অভ্যর্থনা উপকমিটির সভা ইউনেস্কোর সাধারণ অধিবেশনে অংশ নিলেন সংস্কৃতি প্রতিমন্ত্রী শিখা অনির্বাণে রাষ্ট্রপতি-প্রধানমন্ত্রীর শ্রদ্ধা দুদকের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী আজ সশস্ত্র বাহিনী নিষ্ঠার সঙ্গে দায়িত্ব পালন করবেন- প্রধানমন্ত্রী রাষ্ট্রপতির সঙ্গে আইভোরি কোস্টের রাষ্ট্রদূতের বিদায়ী সাক্ষাৎ সশস্ত্র বাহিনী জাতির গর্বের প্রতীক : রাষ্ট্রপতি আজ বিশ্ব টেলিভিশন দিবস সারাদেশের পরিবহন ধর্মঘট প্রত্যাহার ময়নাতদন্ত প্রতিবেদন লিখতে হবে স্পষ্ট অক্ষরে: হাইকোর্ট আজ সশস্ত্র বাহিনী দিবস
৫০

আগামীকাল শ্রমিক লীগের সম্মেলন কারা আসছেন শীর্ষ পদ

প্রকাশিত: ৮ নভেম্বর ২০১৯  


আওয়ামী লীগের ভ্রাতৃপ্রতিম সংগঠন শ্রমিক লীগের জাতীয় সম্মেলন শনিবার (৯ নভেম্বর)। এদিন সকাল ১১টায় ঐতিহাসিক সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে সম্মেলনের উদ্বোধন ও প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থাকবেন আওয়ামী লীগ সভাপতি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। উদ্বোধনী অধিবেশন শেষে বিকেল ৩টায় ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটিউশন মিলনায়তনে কাউন্সিল অধিবেশন অনুষ্ঠিত হবে। এই অধিবেশনে নির্বাচন করা হবে শ্রমিক লীগের নতুন নেতৃত্ব।

শ্রমিক লীগের পরবর্তী নেতৃত্বে কারা আসছেন তা নিয়ে চলছে নানা আলোচনা। সভাপতি-সাধারণ সম্পাদকসহ সংগঠনটিতে রয়েছে ৩৫ সদস্যের কেন্দ্রীয় কমিটি। সংগঠনের বর্তমান সভাপতি শুকুর মাহমুদ এই পদে আবারও প্রার্থী। বর্তমান সাধারণ সম্পাদক সিরাজুল ইসলামের নামও সভাপতি পদে আলোচনায় রয়েছে। এছাড়া, বর্তমান কমিটির কার্যকরী সভাপতি মুক্তিযোদ্ধা ফজলুল হক মন্টু, সহ-সভাপতি হাবিবুর রহমান আকন্দ, আমিনুল হক ফারুক, মোল্লা আবুল কালাম আজাদ, জহিরুল ইসলাম চৌধুরীর নামও শোনা যাচ্ছে আলোচনায়।

সাধারণ সম্পাদক পদে আলোচনায় রয়েছেন বর্তমান কমিটির সিনিয়র যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট হুমায়ুন কবির, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক খান সিরাজুল ইসলাম, সফর আলী, সাংগঠনিক সম্পাদক শামসুল আলম মিল্কি, তোফায়েল আহমেদ, প্রচার সম্পাদক কে এম আজম খসরু প্রমুখ।

শ্রমিক লীগের গঠনতন্ত্র অনুযায়ী দুই বছর পর পর সম্মেলন হওয়ার কথা থাকলেও বর্তমান কমিটি সাত বছরেরও বেশি সময় পর জাতীয় সম্মেলন করতে যাচ্ছে। বর্তমান শ্রম আইন অনুযায়ী পরেরবার থেকে কমিটির মেয়াদ তিন বছর হবে।

জাতীয় শ্রমিক লীগের এই সম্মেলন উপলক্ষে একটি প্রস্তুতি কমিটি ও নয়টি উপ-কমিটি গঠন করা হয়েছিল। ইতোমধ্যে সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে বিশাল সম্মেলন মঞ্চ ও প্যান্ডেল নির্মাণ করা হয়েছে। এই মঞ্চেই আগামী ২০ ও ২১ ডিসেম্বর আওয়ামী লীগের জাতীয় সম্মেলন অনুষ্ঠিত হবে। এখানেই কৃষক লীগের সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়েছে। এছাড়া, স্বেচ্ছাসেবক লীগ ও যুবলীগের সম্মেলনও এই মঞ্চেই অনুষ্ঠিত হবে। শ্রমিক লীগের সম্মেলনকে কেন্দ্র করে সোহরাওয়ার্দী উদ্যান ও এর আশপাশের সড়কগুলো বর্ণাঢ্য সাজে সাজানো হয়েছে।

সারাদেশে শ্রমিক লীগের ৭৮টি সাংগঠনিক জেলা রয়েছে। এসব জেলা থেকে আট হাজার কাউন্সিলর ও সমান সংখ্যক ডেলিগেটস সম্মেলনে যোগ দেবেন বলে জানিয়েছেন সংশ্লিষ্টরা। বিভিন্ন শ্রেণী-পেশার সংগঠনের নেতারাও সম্মেলনে অংশ নেবেন। এছাড়া, আন্তর্জাতিক সংগঠন আইএলও’র কান্ট্রি ডিরেক্টর, আইটিইউসি’র এশিয়া প্যাসিফিকের সেক্রেটারি জেনারেল ও সার্কের জেনারেল সেক্রেটারি আমন্ত্রিত অতিথি হিসেবে শ্রমিক লীগের সম্মেলনে উপস্থিত থাকবেন।

সম্মেলনের প্রস্তুতির বিষয়ে জানতে চাওয়া হলে শ্রমিক লীগের সভাপতি শুক্কুর মাহমুদ  বলেন, আমরা সব প্রস্তুতি সম্পন্ন করেছি। উৎসবমুখর পরিবেশে সম্মেলন অনুষ্ঠিত হবে। নেত্রী (শেখ হাসিনা) যাকে যোগ্য মনে করবেন, তিনিই পরবর্তী নেতৃত্বে আসবেন।

এই বিভাগের আরো খবর