শনিবার   ১৮ জানুয়ারি ২০২০   মাঘ ৪ ১৪২৬   ২২ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪১

বরগুনার আলো
ব্রেকিং:
বিপিএলে প্রথম শিরোপার স্বাদ পেলো রাজশাহী আদালতে মজনুর স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে সাউন্ড সিস্টেমে জাতীয় সংগীত পরিবেশন করা যাবে ১ ফেব্রুয়ারি থেকে এসএসসি শুরু প্রথম আলোর সম্পাদকসহ ১০ জনের বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা আমরা ক্রসফায়ারকে সাপোর্ট করতে পারি না : ওবায়দুল কাদের পোশাক রপ্তানিকে ছাড়িয়ে যাবে আইসিটি : জয় বিশ্ব ইজতেমার দ্বিতীয় পর্ব শুরু কাল বিশ্ব ইজতেমার ২য় পর্বে ময়দানে আসতে শুরু করেছেন মুসল্লিরা অন্ধকার ভেদ করে আলোর পথে বাংলাদেশ: সংসদে প্রধানমন্ত্রী রিফাত হত্যা : দুই আসামি জামিনে মুক্ত দুর্নীতি মামলা : বিএনপি প্রার্থী ইশরাকের বিচার শুরু কাদেরের বাইপাস পরবর্তী স্বাস্থ্যের উন্নতি, দেশে ফিরছেন রাতেই  এসডিজি অর্জনে বাংলাদেশ সঠিক পথে রয়েছে : প্রধানমন্ত্রী আবুধাবি থেকে দেশে ফিরেছেন প্রধানমন্ত্রী সরকারের জনপ্রিয়তা অনেক বেড়েছে: আইআরআই ওমানের সুলতানের মৃত্যুতে প্রধানমন্ত্রীর শোকবার্তা আবুধাবি থেকে দেশের পথে প্রধানমন্ত্রী পদ্মাসেতুতে বসলো ২১তম স্প্যান,দৃশ্যমান হলো ৩ হাজার ১৫০ মিটার রিট খারিজ, নির্ধারিত তারিখেই হচ্ছে ঢাকার দুই সিটি নির্বাচন
৭০

আজ টুইন টাওয়ার ধ্বংসযজ্ঞের সেই দিন

প্রকাশিত: ১১ সেপ্টেম্বর ২০১৯  

আজ থেকে উনিশ বছর আগে ২০০১ সালের ১১ সেপ্টেম্বর এই দিনে গোটা বিশ্ব আঁতকে উঠেছিলো ভিডিও দেখে। ১৯ জন আত্নঘাতী হামলাকারী বহনকারী ৪টি বিমান সোজা আছড়ে পড়লো আমেরিকার ওয়ার্ল্ড ট্রেড সেন্টার বা টুইন টাওয়ারে। ৪টি বিমানের ২টির লক্ষ্য ছিলো নিউইয়র্কে অবস্থিত ওয়ার্ল্ড ট্রেড সেন্টারের উত্তর ও দক্ষিণ টাওয়ার। অন্য একটি আঘাত করে পেন্টাগনে, যেটির অবস্থান ওয়াশিংটনের ঠিক বাইরে। আর চতুর্থটি আছড়ে পড়ে পেনসিলভানিয়ার একটি মাঠে।

টুইন টাওয়ারে হামলায় মারা যান ২৯৯৬ জন, ৬ হাজারেরও বেশি গুরুতর জখম হন। যাদের মধ্যে ৪শর বেশি ছিলেন পুলিশ ও অগ্নিনির্বাপণ কর্মী।

২০০১ সালের ১১ সেপ্টেম্বরের সকাল বেলার আবহাওয়া ছিলো চমৎকার। মানুষ কর্মস্থলের দিকে যাচ্ছিলেন। সকাল ৮:৪৫ মিনিটে আমেরিকান এয়ারলাইন্সের বোয়িং ৭৬৭ বিমানটি প্রায় ২০ হাজার গ্যালন জেট ফুয়েল নিয়ে বিশ্ব বাণিজ্য কেন্দ্র বা ওয়ার্ল্ড ট্রেড সেন্টারের নর্থটাওয়ারের ১১০ তলা ভবনের ৮০ তলায় আঘাত করে। সুদৃশ্য ভবনটি মুহূর্তে ধ্বংসস্থুপে পরিনত হয়। মারা যায় কয়েকশ মানুষ।

এরপরের ঘটনাওগুলোও সবার জানা। ওই ঘটনায় অভিযুক্ত করে আল কায়দা-লাদেনকে নির্মুল করতে আফগানিস্তানে হামলা করলো আমেরিকা। তাতে জঙ্গির চেয়ে বেশি মরলো সাধারণ মানুষ। এর অনেক পরে মরলেন একজন লাদেনও। এবপর আরও লাদেনের জন্ম হলো। টিকে রইলো আল কায়দা, জন্ম নিলো আইএসসহ বিভিন্ন নানের নামের জঙ্গি সংগঠন। তারা মেতে রইলো পুরনো ধ্বংসলীলায়।  হায় ১১ সেপ্টেম্বর ২০০১। ওই একটা দিন যেনো বদলে দিলো গোটা বিশ্বকে।

এই বিভাগের আরো খবর