সোমবার   ৩০ মার্চ ২০২০   চৈত্র ১৫ ১৪২৬   ০৫ শা'বান ১৪৪১

বরগুনার আলো
ব্রেকিং:
করোনা মোকাবিলায় সরকার জনগণের পাশে আছে -প্রধানমন্ত্রী ছুটিতে কর্মস্থল ছাড়া যাবে না : সুপ্রিম কোর্ট প্রশাসন করোনা সংকটকালে জনগণের পাশে থাকবে আ.লীগ: কাদের আমি করোনায় আক্রান্ত হইনি : স্বাস্থ্যমন্ত্রী বাংলাদেশে ২৪ ঘণ্টায় করোনা আক্রান্ত নেই : আইইডিসিআর পদ্মা সেতু‌তে বসলো ২৭তম স্প্যান, দৃশ্যমান হলো ৪ হাজার ৫০ মিটার সব পোশাক কারখানা বন্ধের নির্দেশ পবিত্র শবে বরাত ৯ এপ্রিল অতি প্রয়োজন ছাড়া ঘরের বাইরে যাবেন না : প্রধানমন্ত্রী জাতির উদ্দেশে ভাষণ দিচ্ছেন প্রধানমন্ত্রী মুক্তি পেলেন খালেদা জিয়া সন্ধ্যায় জাতির উদ্দেশে ভাষণ দেবেন প্রধানমন্ত্রী জাতির উদ্দেশে আজ ভাষণ দেবেন প্রধানমন্ত্রী নিষেধাজ্ঞা অক্ষরে অক্ষরে পালন করুন : স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বরগুনায় সকল প্রকার যানবাহন চলাচল বন্ধ রাখার নির্দেশ প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশেই খালেদা জিয়াকে মুক্তির সিদ্ধান্ত করোনা ছোঁয়াচে, এক মিটার দূরত্বে থাকার পরামর্শ ২৬ মার্চ থেকে সারাদেশে ১০ দিন গণপরিবহন বন্ধ মাঠে নেমেছে সেনাবাহিনী সকল বেসরকারি প্রতিষ্ঠানও বন্ধের নির্দেশ
২৫

এপ্রিল থেকে ৯ শতাংশ সুদহার কার্যকর

বরগুনার আলো

প্রকাশিত: ২৫ ফেব্রুয়ারি ২০২০  

দেশের শিল্প ও ব্যবসাবান্ধব পরিবেশ সৃষ্টি, কর্মসংস্থান বৃদ্ধি, ঋণ-বিনিয়োগ পরিশোধে সক্ষমতা এবং কাঙ্ক্ষিত জিডিপি প্রবৃদ্ধি অর্জনের লক্ষ্যে আগামী এপ্রিল থেকে ৯ শতাংশ সুদহার কার্যকর করার নির্দেশ দিয়েছে কেন্দ্রীয় ব্যাংক।

সোমবার বাংলাদেশ ব্যাংকের ব্যাংকিং প্রবিধি ও নীতি বিভাগ থেকে এ বিষয়ে একটি সার্কুলার জারি করা হয়েছে। দেশের সব ব্যাংকের প্রধান নির্বাহীর কাছে এ প্রজ্ঞাপন পাঠানো হয়েছে। সার্কুলারে ক্রেডিট কার্ড ছাড়া অন্য সব খাতের অশ্রেণিকৃত ঋণ বা বিনিয়োগের ওপর সুদ বা মুনাফার হার সর্বোচ্চ ৯ শতাংশ নির্ধারণের নির্দেশ দেয়া হয়েছে। আগামী ১ এপ্রিল থেকে সুদের নতুন এ হার কার্যকর হবে।

কেন্দ্রীয় ব্যাংকের এ প্রজ্ঞাপনে এক অঙ্কের সুদহার সত্ত্বেও ঋণ গ্রহীতা খেলাপি হলে তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়ার বিধান উল্লেখ করা হয়েছে। এতে বলা হয়েছে, কোনো ঋণ বা বিনিয়োগের ওপর ৯ শতাংশ সুদ বা মুনাফা নির্ধারণের পরও যদি ঋণ বা বিনিয়োগ গ্রহীতা খেলাপি হিসেবে চিহ্নিত হন, তাহলে মেয়াদি ঋণ বা বিনিয়োগের ক্ষেত্রে খেলাপি কিস্তি এবং চলতি মূলধন ঋণ বা বিনিয়োগের ওপর মোট খেলাপি ঋণ বা বিনিয়োগের ওপর সর্বোচ্চ ২ শতাংশ হারে দণ্ড বা অতিরিক্ত সুদ আরোপ করা যাবে।

অন্যদিকে, প্রি-শিপমেন্ট রফতানি ঋণের ক্ষেত্রে এখনকার সর্বোচ্চ ৭ শতাংশ সুদহার অপরিবর্তিত রাখার কথা উল্লেখ আছে সার্কুলারে। এ বছর থেকে ব্যাংকের মোট ঋণ স্থিতির মধ্যে এসএমই’র ম্যানুফ্যাকচারিং খাতসহ শিল্প খাতে দেয়া সব ঋণের স্থিতি আগের তিন বছরের গড় হারের চেয়ে কম হতে পারবে না।

কেন্দ্রীয় ব্যাংক জানায়, ঋণে সুদের হার বেশি হলে উৎপাদন খরচ বেড়ে যায়। ফলে প্রতিষ্ঠান তাদের উৎপাদিত পণ্য বাজারজাত করতে গিয়েও বাধার মুখে পড়ে। এতে ব্যাংকিং খাতের শৃঙ্খলা যেমন বিঘ্নিত হয়, তেমনি দেশের অর্থনৈতিক উন্নয়নও বাধাগ্রস্ত হয়।

বরগুনার আলো
এই বিভাগের আরো খবর