শুক্রবার   ১৫ নভেম্বর ২০১৯   অগ্রাহায়ণ ১ ১৪২৬   ১৭ রবিউল আউয়াল ১৪৪১

বরগুনার আলো
ব্রেকিং:
আয়কর দিলেন অর্থমন্ত্রী, রিটার্ন দাখিল প্রধানমন্ত্রীর শেখ হাসিনার নির্দেশনায় পুলিশ এখন দক্ষ: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী কলকাতা টেস্ট দেখতে আমন্ত্রণ জানিয়ে শেখ হাসিনাকে মোদীর চিঠি কৃষি জমি রক্ষায় কাজ করছে সরকার: প্রধানমন্ত্রী চার বছরের মধ্যে দারিদ্র্র্যের হার কমবে : প্রধানমন্ত্রী আজ ঝালকাঠির দুই বিচারক হত্যা দিবস পিকেএসএফ উন্নয়ন মেলার উদ্বোধন করেছেন প্রধানমন্ত্রী আয়কর মেলা: ১১৩ কোটি থেকে লক্ষ্যমাত্রা তিন হাজার কোটি টাকা রোহিঙ্গা নিপীড়নে এবার সুচি’র বিরুদ্ধে আর্জেন্টিনায় মামলা টেস্ট বিশ্বকাপ অভিষেকে টস জিতে ব্যাটিংয়ে বাংলাদেশ রোহিঙ্গা সমস্যার পেছনে জিয়াউর রহমানের হাত ছিল: প্রধানমন্ত্রী খেলাপি ঋণ অবশ্যই আদায় করা হবে: অর্থমন্ত্রী ধেয়ে আসছে ‘বুলবুলে’র চেয়েও ভয়ানক ঘূর্ণিঝড় ‘নাকরি’ দেশের কল্যাণে প্রয়োজনে বাবার মতো জীবন দেবো: শেখ হাসিনা বিমানে উড়ে বাংলাদেশ এল ২২৫টি গরু! দেশে রফতানি বাড়াতে দরকার পরিবহন খাতে উন্নয়ন: বিশ্বব্যাংক মা হারানো সেই শিশুর দায়িত্ব নিলেন উপমন্ত্রী শামীম মালয়েশিয়ায় বীমার আওতায় দুই লাখ বাংলাদেশি কর্মী আওয়ামী লীগে দূষিত রক্তের প্রয়োজন নেই: সেতুমন্ত্রী ঘুরে দাঁড়িয়ে দুর্দান্ত জয় বাংলাদেশের মেয়েদের
৯৭

কবর থেকে উদ্ধার হওয়া সেই নবজাতকের জীবন যুদ্ধ!

প্রকাশিত: ১৬ অক্টোবর ২০১৯  

ভারতের উত্তরপ্রদেশের একটি গ্রাম থেকে মাটির পাত্রে রাখা এক নবজাতককে জীবিত উদ্ধার করা হয়। শিশুটি শঙ্কামুক্ত নয় বলে জানিয়েছেন চিকিৎসকরা।  

শিশু বিশেষজ্ঞ রবি খান্না জানিয়েছেন, শিশুটির শরীরে প্লাটিলেটের সংখ্যা মারাত্মক কমে যাওয়ায় তার অবস্থা এখনও গুরুতর। আগামী পাঁচ থেকে সাতদিন পর তার অবস্থা সম্পর্কে নিশ্চিতভাবে জানাতে পারবেন।

শিশু বিশেষজ্ঞ ডা. সৌরভ অঞ্জন জানান, শিশুটি সম্ভবত ৩০ সপ্তাহে জন্মগ্রহণ করেছিল। তার ওজন ছিল মাত্র ১ দশমিক কেজি, যা কিনা জন্মের সময়ে শিশুর আদর্শ ওজনের হিসেবে খুব কম।

ডাঃ খান্না জানান, শিশুটিকে নিবিড় পরিচর্যা ইউনিটে রাখা হচ্ছে এবং একটি টিউবের মাধ্যমে তরল খাওয়ানো হচ্ছে। তার অবস্থা এখনও আশঙ্কাজনক। তার প্লাটিলেটের সংখ্যা ১০ হাজারে এ নেমে গেছে। অথচ স্বাভাবিক মাত্রায় এর পরিমাণ হয় দেড় লাখ থেকে সাড়ে চার লাখ। এ কারণে আমরা তাকে নিয়ে উদ্বিগ্ন আছি। 

ডাঃ খান্না বলেন, শিশুটিকে তিন থেকে চার দিন আগে কবর দেয়া হয়ে থাকতে পারে। বাচ্চারা তাদের পেটে, উরু এবং গালে ফ্যাট নিয়ে জন্মায় এবং কিছুটা জরুরি অবস্থায় তারা এটার উপর নির্ভর করে বেঁচে থাকতে পারে। ওই শিশুটি এতদিন তার শরীরে থাকা ব্রাউন ফ্যাটের কারণে বেঁচে আছে।  

ডাঃ অঞ্জন বিশ্বাস করেন, শিশুটিকে উদ্ধারের কেবল দুই থেকে তিন ঘণ্টা আগে সমাধিস্থ করা হয়েছিল। তার ভাষায়, যদি তাকে উদ্ধার করা না হতো তবে সম্ভবত আরো এক বা দুই ঘণ্টার জন্য সে বেঁচে থাকতে পারতো।

তিনি বলেন, যে পাত্রটির ভেতরে শিশুটিকে রাখা হয়েছিল সেখানে একটি বাতাসের পকেট ছিল যা তাকে অক্সিজেন সরবরাহ করেছে। কিছু অক্সিজেন হয়তো আলগা হয়ে যাওয়া মাটির ভেতর দিয়ে ফিল্টার হয়ে ভেতরে প্রবেশ করেছে। যেহেতু পাত্রটি ঘন মাটির তৈরি ছিল না, তাই এটিও বাতাস চলাচলে সহায়তা করতে পারে।

বৃহস্পতিবার বেরেলি জেলায় মৃত শিশুর জন্য কবর খুঁড়তে গিয়ে মাটির পাত্রে ওই নবজাতকের সন্ধান পান গ্রামবাসী। এ ঘটনায় হৈ চৈ পড়ে যায়। 

ভারতে এখনও অনেক স্থানে তীব্র লিঙ্গ বৈষম্য বিদ্যমান। দারিদ্রতার কারণে অনেক পরিবার এখনও মেয়ে সন্তানকে পরিবারের বোঝা মনে করে। এ কারণে নিষিদ্ধ থাকলেও অনেক স্থানে এখনও অবৈধভাবে কন্যা ভ্রুণ মেরে ফেলা হয়। এমনকী জন্মের পরও বিভিন্ন স্থানে কন্যা শিশু হত্যার ঘটনা ঘটে।

এই বিভাগের আরো খবর