• সোমবার   ০৬ এপ্রিল ২০২০ ||

  • চৈত্র ২২ ১৪২৬

  • || ১২ শা'বান ১৪৪১

বরগুনার আলো
ব্রেকিং:
প্রণোদনা প্যাকেজ বাস্তবায়ন হলে অর্থনীতি ঘুরে দাঁড়াবে: অর্থমন্ত্রী করোনা: ৭৩ হাজার কোটি টাকার আর্থিক সহায়তা প্যাকেজ ঘোষণা বেসরকারি হাসপাতাল চিকিৎসা না দিলেই ব্যবস্থা: স্বাস্থ্যমন্ত্রী প্রতি উপজেলা থেকে নমুনা সংগ্রহ করার নির্দেশ প্রধানমন্ত্রীর মানুষের পাশে না দাঁড়িয়ে সমালোচনা করছে বিএনপি : কাদের দেশে আক্রান্তদের মধ্যে এ পর্যন্ত ২৬ জন সুস্থ : স্বাস্থ্যমন্ত্রী সেনাবাহিনী কতদিন মাঠে থাকবে সরকার বিবেচনা করবে: সেনাপ্রধান করোনায় খাদ্য ঘাটতি হবে না : কৃষিমন্ত্রী ভিডিও কনফারেন্সে বক্তব্য রাখ‌ছেন প্রধানমন্ত্রী আজ সকালে ৬৪ জেলার কর্মকর্তাদের সঙ্গে প্রধানমন্ত্রীর কনফারেন্স পিপিই যেন নষ্ট না হয়, সেদিকে খেয়াল রাখতে হবে: স্বাস্থ্যমন্ত্রী করোনা মোকাবিলায় সরকার জনগণের পাশে আছে -প্রধানমন্ত্রী ছুটিতে কর্মস্থল ছাড়া যাবে না : সুপ্রিম কোর্ট প্রশাসন করোনা সংকটকালে জনগণের পাশে থাকবে আ.লীগ: কাদের আমি করোনায় আক্রান্ত হইনি : স্বাস্থ্যমন্ত্রী বাংলাদেশে ২৪ ঘণ্টায় করোনা আক্রান্ত নেই : আইইডিসিআর পদ্মা সেতু‌তে বসলো ২৭তম স্প্যান, দৃশ্যমান হলো ৪ হাজার ৫০ মিটার সব পোশাক কারখানা বন্ধের নির্দেশ পবিত্র শবে বরাত ৯ এপ্রিল অতি প্রয়োজন ছাড়া ঘরের বাইরে যাবেন না : প্রধানমন্ত্রী
৬৭

কুষ্টিয়ার যে গ্রামের শিশু থেকে বৃদ্ধ সবাই ইউটিউবার, মাসে আয় ৬ লাখ

বরগুনার আলো

প্রকাশিত: ১৪ মার্চ ২০২০  

কুষ্টিয়ার খোকসার শিমুলিয়ার দেলোয়ার মাস্টার নেতৃত্বে প্রায় ২৫-৩০জন মিলে একটি ইউটিউব চ্যানেল পরিচালনা করেন। চ্যানেলটির নাম ‘অ্যারাউন্ড মি বিডি’। ভিডিওর মাধ্যমে গ্রামীণ জীবন বিশেষত রান্নাবান্নাকে তুলে ধরা হচ্ছে বিশ্ব দরবারে। তাদের প্রচেষ্টায়ই শিমুলিয়া গ্রামটি ‘ইউটিউব ভিলেজ’ নামে পরিচিতি পেয়েছে। 

 

 

তাদের করা রান্নার ভিডিওগুলোতে নেই কোনো উপস্থাপনা, নেই কোনো ব্যাকগ্রাউন্ড মিউজিক। প্রত্যন্ত গ্রাম থেকে ভিডিওগুলোর প্রত্যেকটির শুরু থেকে শেষ অব্দি উপভোগ করেন উৎসুক দর্শক।  আয়োজন করে গ্রাম্য ধারায় শত শত মানুষের জন্য রান্না করা হয়। এ রান্নার শুরু থেকে শেষ পর্যন্ত পুরো প্রক্রিয়াই শৈল্পিকভাবে ভিডিওতে তুলে ধরা হয়।

 

 

২০১৬ সালে এর যাত্রা শুরু হয়। অ্যারাউন্ড মি বিডি’তে বর্তমানে ২৪ লাখেরও বেশি সাবস্ক্রাইবার আছে। প্রতিমাসে চ্যানেল থেকে আয় প্রায় ৬ লাখ টাকা। যদিও অর্থ আয়ই উদ্দেশ্য নয়, এলাকার সংস্কৃতি বিশ্ববাসীর কাছে তুলে ধরতে পেরেই খুশি দেলোয়ার হোসেন।

তিনি বলেন, এমন নিরক্ষর একটা অঞ্চলে যে ইউটিউব ভিলেজ তৈরি করতে পেরেছি এটাই আমাদের বিশাল পাওয়া। আমাদের দেখাদেখি অনেক মানুষই ইউটিউব চ্যানেল গড়ে তুলেছে।

 

 

চ্যানেলটির ক্যামেরার দায়িত্বে থাকা ব্যক্তিরা বলেন, আমরা শখের বশেই ভিডিও করি। আগে মোবাইলে ভিডিও করতাম এখন ক্যামেরা কিনে নিয়েছি। আমাদের গ্রামীণ সংস্কৃতির সঙ্গে যেন নতুন প্রজন্ম পরিচিত হতে পারে তাই আমাদের এই উদ্যোগ।

বরগুনার আলো
ইত্যাদি বিভাগের পাঠকপ্রিয় খবর