• বুধবার   ২৫ নভেম্বর ২০২০ ||

  • অগ্রাহায়ণ ১১ ১৪২৭

  • || ০৯ রবিউস সানি ১৪৪২

বরগুনার আলো
ব্রেকিং:
করোনায় ২৪ ঘণ্টায় মৃত্যু ২৮, শনাক্ত ২৪১৯ শিক্ষার্থী সাওদা হত্যাকাণ্ডে আসামির যাবজ্জীবন করোনায় ২৪ ঘণ্টায় মৃত্যু ৩৮, শনাক্ত ২০৬০ স্বাধীনতার ইতিহাস বিকৃত করাই বিএনপির গণতন্ত্র: কাদের প্রখ্যাত আলেম পীরজাদা গোলাম সারোয়ার সাঈদী আর নেই মানুষের কঙ্কালসহ গ্রেফতার বাপ্পী তিন দিনের রিমান্ডে শ্রাবন্তীকে কুপ্রস্তাবের অভিযোগে খুলনায় যুবক গ্রেফতার ডিসেম্বরের মাঝামাঝিতে বসবে পদ্মাসেতুর অবশিষ্ট ৪ স্প্যান: কাদের করোনায় আরও ৩০ জনের মৃত্যু, শনাক্ত ২৩৬৪ ঢাবি ছাত্রী ধর্ষণ মামলায় মজনুর যাবজ্জীবন ২০২১ সালের মধ্যে ১২৯ নতুন ফায়ার স্টেশন: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী এএসপি আনিসুল হত্যা মামলা: রিমান্ড শেষে কারাগারে আরও ৪ টিউশন ফি ছাড়া অন্য খাতে অর্থ নিতে পারবে না স্কুল-কলেজ বিএনপির রাজনীতিতে হতাশা আর ব্যর্থতা ভর করেছে: কাদের শাহজালালে যাত্রীর কাছ থেকে ৫ কোটি টাকার স্বর্ণের বার উদ্ধার নেপালের বিপক্ষে সিরিজ জয় বাংলাদেশের বিএনপি বাসে আগুন দিয়ে অবলীলায় মিথ্যা বলছে: তথ্যমন্ত্রী ফাতেহা-ই-ইয়াজদাহম ২৭ নভেম্বর সাবেক ডেপুটি স্পিকার শওকত আলী আর নেই মিথ্যা বলায় পুরস্কার থাকলে প্রথমটি পেতেন ফখরুল: তথ্যমন্ত্রী

কূটনৈতিকদের সঙ্গে বিএনপি ও ঐক্যফ্রন্টের বৈঠকে প্রধান বাধা তারেক!

বরগুনার আলো

প্রকাশিত: ৮ সেপ্টেম্বর ২০১৯  

দীর্ঘদিন পর কূটনৈতিকদের সঙ্গে বসলো বিএনপি এবং ঐক্যফ্রন্ট। দেশের চলমান রাজনৈতিক পরিস্থিতি নিয়ে কূটনৈতিকদের ব্রিফ করার জন্যই ড. মঈন খানের বাসভবনে বৈঠকের আয়োজন করা হয়। কিন্তু বহুদিন পরে সে বৈঠকে নতুন করে আবারও তারেক রহমানের প্রসঙ্গ আসায় বৈঠক ফলপ্রসূ হয়নি বলেই জানা গেছে।

বৈঠকে বাংলাদেশে নিযুক্ত মার্কিন রাষ্ট্রদূত রবার্ট মিলার উপস্থিত ছিলেন। তিনিই মূলত কূটনৈতিকদের মধ্যে থেকে বিভিন্ন প্রশ্ন করেন। যেখানে বিএনপিতে তারেকের ভূমিকা, জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের সঙ্গে তার সম্পর্কসহ বিভিন্ন প্রশ্ন করেন। বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন বিএনপির তরফ থেকে মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর এবং জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের তরফ থেকে ড. কামাল।

সূত্র বলছে, অনুষ্ঠানের শেষ পর্যায়ে রবার্ট মিলার বিএনপিতে তারেকের ভূমিকার কথা জানতে চান। তিনি তারেকের ব্যাপারে তিনটি প্রশ্ন করেন। প্রথম প্রশ্ন ছিলো- বিএনপি গঠনতন্ত্র অনুযায়ী একজন দণ্ডিত অপরাধী একটি দলের নেতৃত্বে থাকতে পারে কি না? দ্বিতীয় প্রশ্ন ছিলো, বিএনপিতে ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যানের কোনো পদ আছে কি না? এবং সিদ্ধান্ত গ্রহণের ক্ষেত্রে তারেক রহমান অন্য সিনিয়র নেতাদের মতামত নেন কি না? তৃতীয়ত, জামায়াতসহ বিভিন্ন জঙ্গি এবং সাম্প্রদায়িক শক্তির সঙ্গে তারেক রহমানের সংশ্লিষ্টতার যে অভিযোগ এবং তথ্য প্রমাণাদি রয়েছে সে ব্যাপারে বিএনপি নেতাদের বক্তব্য কী?

জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট নিয়ে প্রশ্নে রবার্ট মিলার ড. কামালের কাছে জানতে চান তারেকের নেতৃত্বে বিএনপির সঙ্গে তিনি ঐক্য করছেন কেন? ড. কামাল হোসেন উত্তরে বলেন, তিনি তারেকের সঙ্গে ঐক্য করেননি। তিনি বিএনপির সঙ্গে ঐক্য করছেন এবং এই ঐক্যে তারেক রহমানের কোনো ভূমিকা নেই। কিন্তু মির্জা ফখরুলের উত্তরের সঙ্গে ড. কামালের উত্তরের সামঞ্জস্যতা না পেয়ে কূটনীতিকরা কিছুটা বিব্রত হয়েছেন বলে জানা যায়।

এদিকে বৈঠকের পর বিভিন্ন কূটনৈতিকদের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তারা এ ব্যাপারে তাদের অসন্তোষ এবং আপত্তির কথা জানিয়েছেন। নাম প্রকাশ না করার শর্তে বৈঠকে উপস্থিত একজন কূটনৈতিক বলেন, আমরা এ পর্যন্ত চার দফা বৈঠকে তারেকের ব্যাপারে সুস্পষ্ট আপত্তি উত্থাপন করেছি। আমরা বলেছি যে, একটা শক্তিশালী বিরোধী দলের স্বার্থেই তারেক রহমানের মতো বিতর্কিত ব্যক্তিদের সরে যাওয়া উচিত। সর্বোপরি তিনি যেহেতু দেশে নেই, ফলে দেশের রাজনীতিতে তার না থাকাই উত্তম। কিন্তু বিএনপিকে বারবার বলার পরও বিএনপি এ ব্যাপারে কোনো পদক্ষেপ নিচ্ছে না বা নিতে পারছে না। একাধিক কূটনৈতিকরা বলেছেন যে, যতক্ষণ তারেক রহমান বিএনপির ভারপ্রাপ্ত নেতা হিসেবে থাকবেন ততক্ষণ বিএনপিকে সমর্থন দেওয়া বা বিএনপির দাবি দাওয়ার প্রতি সহানুভূতি জানানোর কোনো সুযোগ নেই। কারণ আন্তর্জাতিক রীতি অনুযায়ী, একজন দণ্ডিত ব্যক্তিকে সহযোগিতা করার কোনো রেওয়াজ কূটনৈতিকদের নেই।

বরগুনার আলো