• শনিবার   ৩০ মে ২০২০ ||

  • জ্যৈষ্ঠ ১৫ ১৪২৭

  • || ০৭ শাওয়াল ১৪৪১

বরগুনার আলো
ব্রেকিং:
পদ্মা সেতুর ৩০তম স্প্যান বসছে আজ একদিনে সর্বোচ্চ আড়াই হাজার শনাক্ত, মৃত্যু ২৩ জনের বিকেল ৪টার মধ্যে বন্ধ করতে হবে দোকান-শপিংমল দেশে ২৪ ঘণ্টায় আক্রান্ত ২ হাজার ছাড়ালো, মৃত্যু ১৫ স্বাস্থ্যবিধি মেনে ৩১ মে থেকে গণপরিবহন চালুর সিদ্ধান্ত দেশে একদিনে নতুন শনাক্ত ১৫৪১, মৃত্যু ২২ জীবন বাঁচাতে জীবিকাও সচল রাখতে হবে: কাদের ২৪ ঘণ্টায় সর্বোচ্চ ১৮৭৩ জন শনাক্ত, মৃত্যু আরও ২০ জনের র‌্যাব-৮ এর অভিযানে মাদারীপুর থেকে জেএমবি’র সক্রিয় সদস্য গ্রেফতার ২৪ ঘণ্টায় ২৪ জনের মৃত্যু, আক্রান্ত ছাড়াল ৩০ হাজার মমতাকে সহমর্মিতা জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ফোন মোংলা ও পায়রা বন্দরে ১০ নম্বর মহাবিপদ সংকেত মহাবিপদ সংকেত জারি সকালে, রাতের মধ্যে আসতে হবে আশ্রয় কেন্দ্রে ২ লাখ ৫ হাজার কোটি টাকার উন্নয়ন বাজেট অনুমোদন আম্পানের আঘাতে ১০ ফুটের অধিক উচ্চতার জলোচ্ছ্বাসের আশঙ্কা আরও ১২৫১ করোনা রোগী শনাক্ত, মৃত্যু ২১ জনের আরও ৭ হাজার কওমি মাদ্রাসাকে প্রধানমন্ত্রীর অর্থ সহায়তা পায়রা-মংলায় ৭, চট্টগ্রাম-কক্সবাজারে ৬ নম্বর বিপদ সংকেত দেশে একদিনে আক্রান্ত ও মৃত্যুর নতুন রেকর্ড সমুদ্রসীমায় অবৈধ মৎস্য আহরণ বন্ধ করতে হবে: প্রাণিসম্পদ মন্ত্রী
২৫০

খেয়ে পড়ে ভাল আছে পথরঘাটার জেলে পল্লীর জেলেরা

বরগুনার আলো

প্রকাশিত: ২৭ নভেম্বর ২০১৮  

 

পাথরঘাটা প্রতিনিধি:
বরগুনার পাথরঘাটা সদর ইউনিয়ন। শতকরা ৮০ ভাগ মানুষ সাগরের ওপর নির্ভরশীল। ওই এলাকার জেলেরা প্রতিদিন সাগরে মাছ শিকারে গিয়ে জলদস্যুদের হাতে অপহরন হয়। এ সব জেলেদের লক্ষ লক্ষ টাকা দিয়ে জলদস্যুদের জিম্মিদশা থেকে ছাড়িয়ে আনা হত। টাকা সংগ্রহ করতে মহজনদের কাছে দাদোনের জালে বাঁধা পরত জেলে পরিবার। দাদোন টাকা পরিশোধ করতে না পাড়ায় অনেক জেলে মহাজনদের ভয়ে এলাকা ছেড়ে চলে গেছে। ২০১১ সাল থেকে সুন্দরবনে জলদস্যুদের আস্তানায় র‌্যাবের সারাশি অভিযানে সাগরে এখন আর জলদস্যু নেই। ফলে গ্রামের জেলেরা খেয়ে পড়ে ভাল আছে। এখন আর কোন জেলে দাদোন টাকার জন্য এলাকা ছেড়ে পালাতে হয়না।

পাথরঘাটা সদর ইউনিয়নের সাগরপাড়ের রুহিতা গ্রাম। ষাটউর্দ বয়সের মান্নান মাঝি, তার সাগরে মৎস্য শিকারের ৩৫ বছরের অভিজ্ঞতার কথা ব্যাক্ত করেন তিনি, ২০০৪ সালে সাগরে মাছ ধরার ট্রলারে শুরু হয় জলদস্যুদের গনডাকাতি। প্রতিদিন ডাকাতের গুলির শব্দে ঘুম ভাংত নদীর পাড়ের মানুষের। সকাল বেলা খোজ খবর নিয়ে দেখতাম মাছ ধরার ট্রলারে জেলে অপহরন হয়েছে। পাশের বাড়ির জেলের স্বজনরা অহজারি করত। এখন সাগরে ডাকাতি নেই।

পদ্মা গ্রামের সিদ্দিক মেম্বর জানান, সাগরে ডাকাতি বেশীর ভাগ জলদস্যু পাথরঘাটা সদর ইউনিয়নের পদ্মা গ্রামে জন্ম নেয়। এরা সংঘবদ্ধ হয়ে ছদ্দ নামে গড়ে তোলে সুন্দরবনের জলদস্যু বাহিনী। এসব যুবক শ্রেনীর জলদস্যুরা বিভিন্ন ভাবে আগ্নেঅস্ত্র সংগ্রহ করে সাগরে ট্রলারে ডাকাতি করে দাফিয়ে বেড়ায়। রাতারাতি বেকার শ্রেনীর যুবকরা হঠাত করে অনেক টাকার মালিক হয়ে যায়। এলাকায় তাদের চলাফেরা গতি দেখে সাধারন মানুষের সন্দেহ হয়। বিষয়টি প্রসাশনের কাছে জানালে। জলদস্যুরা টাকা দিয়ে স্থানীয় প্রশাসনকেও ম্যানেজ করে ফেলে। পরে বরগুনা জেলা ট্রলার মালিক সমিতির  আন্দলনের ফলে আওয়ামী লীগ সরকার পদক্ষেপ নেয় সাগরের জলদস্যু নির্মুলের। ২০১১ সাল থেকে এ পর্যন্তস পাথরঘাটার পদ্মাগ্রামের ৯ জলদস্যুকে ক্রসফায়ারের মেরে ফেলা হয়েছে। এর পর থেকে সাগরের জেরেরা অনেক আত্মগোপনে গিয়ে। পূর্নবাসনের জন্য অস্ত্রসহ আত্মসমার্পন করছে র‌্যাবের কাছে।

বরগুনা জেলা ট্রলার মালিক সমিতির সভাপতি গোলাম মোস্তফা চৌধুরী জানান, গত ৪ বছর ধরে বরগুনা জেলার জেলে, ট্রলার মালিক ও মৎস্যজীবিরা অনেক ভাল আছে। প্রতি বছর ইলিশ শিকারের প্রধান মৌসুমে দক্ষিন উপকুলের জেলেদেরকে মুক্তিপন দিয়ে সুন্দরবনের জলদস্যুদের কাজ থেকে ছাড়িয়ে আনতে ১৫ থেকে ২০ কোটি টাকা দিতে হত। গত ৪ বছর ধরে আর জলদস্যুদের টাকা দিতে হয় না। এ কারনে যেমন এলাাকায় প্রতি বছর ট্রলারের সংখ্যা বাড়ছে, তেমনি সাগর থেকেও মাছ আমদানী হচ্ছে অনেক বেশী। তিনি বলে, এ বছর গত ৩ মাসে প্রত্যেক সাধারন জেলে ২ থেকে আড়াই লাখ টাকা করে পুজি হয়েছে। মোটের ওপর সকল মৎস্য জীবিরাই খেয়ে পড়ে ভাল আছে।


 

বরগুনার আলো
উন্নয়ন বিভাগের পাঠকপ্রিয় খবর