• শুক্রবার   ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২০ ||

  • আশ্বিন ৯ ১৪২৭

  • || ০৭ সফর ১৪৪২

বরগুনার আলো
ব্রেকিং:
মেহেরপুরে ‘আল্লাহর দল’র সক্রিয় সদস্য আটক করোনায় ২৪ ঘণ্টায় ৩৭ জনের মৃত্যু, শনাক্ত ১৬৬৬ করোনায় ২৪ ঘণ্টায় মৃত্যু ২৮, শনাক্ত ১৫৫৭ মসজিদে বিস্ফোরণে মৃতের সংখ্যা বেড়ে ৩৪ ধর্ষণ মামলায় ভিপি নুর গ্রেফতার আইসিটি মামলায় আলাউদ্দিন জিহাদী এক দিনের রিমান্ডে করোনায় ২৪ ঘণ্টায় মৃত্যু ৪০, শনাক্ত ১৭০৫ গাড়িচালক মালেক ১৪ দিনের রিমান্ডে করোনায় ২৪ ঘণ্টায় মৃত্যু ২৬, শনাক্ত ১৫৪৪ গভীর সমুদ্র থেকে ৫ লাখ পিস ইয়াবা উদ্ধার, আটক ৭ ব্যাংকটা যেন ভালোভাবে চলে সেদিকে দৃষ্টি দিবেন: প্রধানমন্ত্রী নারায়ণগঞ্জের মসজিদে বিস্ফোরণে মৃত্যু বেড়ে ৩৩ আহমদ শফী কওমি শিক্ষার আধুনিকায়নে ভূমিকা রেখেছেন: প্রধানমন্ত্রী না.গঞ্জে মসজিদে বিস্ফোরণে মৃতের সংখ্যা বেড়ে ৩২ করোনায় ২৪ ঘণ্টায় মৃত্যু ৩৬, শনাক্ত ১৫৯৩ সরকার ওজোনস্তর রক্ষায় কার্যকর পদক্ষেপ গ্রহণ করেছে: পরিবেশ মন্ত্রী শামুকের পাশাপাশি ঝিনুকও সংরক্ষণ করতে হবে: প্রধানমন্ত্রী করোনায় ২৪ ঘণ্টায় মৃত্যু ৪৩, শনাক্ত ১৭২৪ পাটকল শ্রমিকদের পাওনা পরিশোধের কার্যক্রম শুরু তুরস্কে বাংলাদেশ চ্যান্সারি ভবন উদ্বোধন করলেন প্রধানমন্ত্রী
১০১

গাড়ি চুরি করে মালিককেই ফেরত দিয়ে টাকা নিতেন তারা

বরগুনার আলো

প্রকাশিত: ২৮ জুলাই ২০২০  

ঢাকায় সংঘবদ্ধ গাড়ি চুরি চক্রের মূল হােতাসহ ১০ সদস্যকে গ্রেফতার করেছে পুলিশের অপরাধ তদন্ত বিভাগ (সিআইডি)। গ্রেফতাররা হলেন- গাড়ি চুরি চক্রের মূলহােতা মাে. মাসুম মােল্লা (৪৫), মাে. সুমন মিয়া (৩৫), রুবেল মিয়া (৩৮), শহিদুল ইসলাম চোকদার, সাকিব হােসেন, কামরুল ইসলাম, মাে. রতন, মােসা. ঝর্না বেগম, মাে. শাহিন এবং নাজমুল হােসেন।

সুনির্দিষ্ট অভিযোগের ভিত্তিতে গত রোববার বিভিন্ন স্থান থেকে তাদের গ্রেফতার করে সিআইডির ঢাকা মেট্রো-পূর্ব বিভাগ। তাদের কাছ থেকে দুটি চোরাই গাড়ি উদ্ধার করা হয়েছে।

সিআইডির ঢাকা মেট্রো-পূর্ব বিভাগের বিশেষ পুলিশ সুপার কানিজ ফাতেমা বলেন, দীর্ঘদিন ধরে চক্রটি ঢাকা মহানগর এলাকাসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে পিকআপ গাড়ি চুরি করে আসছিল।

চক্রটির গাড়ি চুরির কৌশল সম্পর্কে তিনি বলেন, চক্রের সদস্যরা প্রথমে বিভিন্ন এলাকায় ঘুরে ঘুরে কোন গাড়িটি তারা চুরি করবে সেটিকে টার্গেট করে। এরপর সুবিধাজনক সময়ে গাড়িটি চুরি করে এবং তাদের হেফাজতে রাখে। কখনও কখনও তারা আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্য পরিচয় দিয়ে টার্গেট করা গাড়ি সম্পর্কে খোঁজ খবর নিত।

গাড়ি চুরি করার পর তারা গাড়িতে রক্ষিত মালিকের মােবাইল নম্বর অথবা চুরি করা এলাকায় কোনো মােবাইলের দোকানে ফোন করে গাড়ির মালিকের মােবাইল নম্বর সংগ্রহ করে জানতে চাইতো তাদের কোনো গাড়ি হারিয়েছে কি না এবং এ সংক্রান্তে থানায় কোনো রিপাের্ট করা হয়েছে কি না?

চক্রটি বিষয়টি নিশ্চিত হয়ে গাড়ির মালিকের কাছে টাকা দাবি করে এবং দাবি করা টাকা সুনির্দিষ্ট বিকাশ নম্বরে দিয়ে দিলে তারা সুবিধাজনক স্থানে গাড়িটি ফেরত দিয়ে দিত।

চক্রটির সদস্যরা কেউ গাড়ির তথ্য সংগ্রহ করত, কেউ গাড়ি চুরি করত, কেউ নির্দিষ্ট স্থানে চোরাই গাড়ি রেখে পাহারা দিত এবং কেউ চক্রটির বিকাশের টাকা নিয়মবহির্ভূতভাবে লেনদেন করত। চক্রের সদস্যরা নিজেদের ও তাদের আপনজন এবং পরিচিতজনদের জাতীয় পরিচয়পত্র ব্যবহার করে, সেই পরিচয়পত্রের বিপরীতে একাধিক সিম উত্তোলন করে এই চুরির প্রক্রিয়ার ব্যবহার করত। প্রতিটি চুরির জন্য ব্যবহার করত নতুন মােবাইল ও সিম কার্ড।

কানিজ ফাতেমা জানান, বিভিন্ন তথ্যের ভিত্তিতে জানা যায়, গ্রেফতারদের বিরুদ্ধে একাধিক মামলা রয়েছে। বর্তমানে সিআইডির কাছে এ সংক্রান্তে দুটি মামলা তদন্তাধীন।

 

বরগুনার আলো
অপরাধ বিভাগের পাঠকপ্রিয় খবর