• শনিবার   ১৬ জানুয়ারি ২০২১ ||

  • মাঘ ৩ ১৪২৭

  • || ০২ জমাদিউস সানি ১৪৪২

বরগুনার আলো
ব্রেকিং:
২২ সালের মধ্যে ঢাকা-কক্সবাজার রেল চালু হবে: রেলমন্ত্রী করোনায় ২৪ ঘণ্টায় দেশে আরও ১৬ জনের মৃত্যু ৬২ সহযোগীর মাধ্যমে অর্থপাচার, পিকে হালদারের হাজার কোটি টাকা ফ্রিজ কোনো প্রকল্পের মেয়াদ বাড়ানো হবে না : উশৈসিং বাংলাদেশে বিশ্বের সেরা মানের পাট উৎপাদিত হয়: পাটমন্ত্রী করোনায় ২৪ ঘণ্টায় ১৪ জনের মৃত্যু, শনাক্ত ৮৯০ পিকে হালদারের বান্ধবী গ্রেফতার করোনায় ২৪ ঘণ্টায় মৃত্যু ১৬, শনাক্ত ৭১৮ আওয়ামী লীগ সরকারে আছে বলেই দেশ স্বনির্ভর হয়ে উঠছে: প্রধানমন্ত্রী করোনায় ২৪ ঘণ্টায় মৃত্যু ২২, শনাক্ত ৮৪৯ ভাসানচর নিয়ে আন্তর্জাতিক এজেন্সির সাপোর্ট পাচ্ছি: মোমেন এইচএসসির ফল ২৮ জানুয়ারির মধ্যে প্রধানমন্ত্রীর জা রওশন আরা ওয়াহেদ আর নেই সংগঠন গড়ার জন্য বঙ্গবন্ধু মন্ত্রিত্ব ছেড়ে দিয়েছিলেন: শেখ হাসিনা প্রতারণার মামলায় রিজেন্ট সাহেদের জামিন নামঞ্জুর আমাদের দলে মুক্তভাবে কথা বলার অধিকার সবার আছে- তথ্যমন্ত্রী দুদকের মামলায় সাবেক ওসি প্রদীপের জামিন নামঞ্জুর বাংলাদেশ ও বাঙালির অনুপ্রেরণার উৎস বঙ্গবন্ধু: রাষ্ট্রপতি করোনায় ২৪ ঘণ্টায় মৃত্যু ২২, শনাক্ত ৬৯২ সাম্প্রদায়িক উগ্রবাদের বিষদাঁত ভেঙে দেওয়া হয়েছে: কাদের

ঘুমের মধ্যে দম বন্ধ হয়ে যায়, মারাত্মক রোগের লক্ষণ নয় তো?

বরগুনার আলো

প্রকাশিত: ৮ সেপ্টেম্বর ২০২০  

ঘুমের মধ্যে শ্বাস প্রশ্বাসের ব্যাঘাত ঘটা বিরল কোনো রোগ নয়। চিকিৎসাবিজ্ঞানে একে বলা হয় স্লিপ অ্যাপনিয়া। তবে প্রায় সময়ই আমরা এই সমস্যাটির গুরুত্ব বুঝতে পারি না। এর প্রধান লক্ষণ ঘুমের মধ্যে নাক ডাকা,সারাদিন ক্লান্ত বোধ করা।  

গবেষণায় দেখা যায়, সারা বিশ্বে প্রতি ১০০ জনের মধ্যে দুই থেকে চারজন ওএসএ স্লিপ অ্যাপনিয়ায় ভুগে থাকে। বাংলাদেশের শহুরে জনসংখ্যার ৪.৪৯ ও ২.১৪ শতাংশ নারী পুরুষ এই রোগে আক্রান্ত। 

এটি সাধারণত ব্রেন বা মস্তিষ্কের কারণে হয়। এর কারণ সাধারণত হার্ট ফেইলিওর, লিভার ফেইলিওর। ফলে রোগীর শ্বাসকেন্দ্রে অর্থাৎ মস্তিষ্কে যে রেসপিরেটরি সেন্টার থাকে। সেখানেই শ্বাসের প্রক্রিয়া বন্ধ হয়ে যাওয়ার পাশাপাশি আমাদের রক্তে অক্সিজেনের পরিমাণও কমে যায়। এটি একটি প্রাণঘাতী বিষয়। তবে চলুন জেনে নেয়া যাক এই রোগের কিছু উপসর্গ-

> স্লিপ অ্যাপনিয়ার অন্যতম প্রধান লক্ষণ হলো নাক ডাকা। ৯৫ শতাংশ ওএসএ রোগী ঘুমের ঘোরে নাক ডাকেন। হোক সেটা দিনে অথবা রাতে। রাত যত বাড়তে থাকে, নাক ডাকার তীব্রতা তত বাড়তে থাকে। কখনো তিনি টের পান আবার কখনো পান না। তবে বেশির ভাগ সময়ই পাশের সঙ্গীরা এই নাক ডাকার অভিযোগ করেন। অনেকের ধারণা, নাক ডাকা হলো একটি গভীর বা প্রশান্তির ঘুম। প্রকৃতপক্ষে সে স্লিপ অ্যাপনিয়া নামের একটি ভয়াবহ কিন্তু উপেক্ষিত রোগে আক্রান্ত। তবে সব নাক ডাকা রোগীর এই সমস্যা না ও থাকতে পারে।

নাক ডাকতে ডাকতে অনেকের পুরোপুরি শ্বাস বন্ধ হয়ে যায়। এ সময় কেউ কেউ মৃত্যুভয়ে ভীত হন। রোগী বিষম খাওয়ার মতো গলার কাছে হাত নিয়ে দেখান, যেন গলায় শ্বাস আটকে মারা যাচ্ছেন।

শ্বাস বন্ধ হয়ে গেলে আচমকা ঘুম থেকে জেগে উঠে শ্বাস নেয়ার জন্য আপ্রাণ চেষ্টা করে থাকেন অনেকে।

মুখ ও গলা শুকিয়ে যায়, ফলে রাতে বারবার ঘুম থেকে উঠে পানি খেতে হয়। এই কারণে সকালে ঘুম থেকে উঠলে মাথাব্যথা, মাথা ভারী হয়ে থাকে। এছাড়াও হতাশ লাগা, হঠাৎ রাগ হয়ে যাওয়ার সমস্যাও দেখা দেয় অনেকের।   

স্লিপ অ্যাপনিয়ার রোগী ঘুমের ঘোরে হাত-পা ছোড়াছুড়ি করে। এমনকি পাশের সঙ্গীকে হাত-পা দিয়ে আঘাতও করে।  

অনেক ক্ষেত্রে কথা বলতে বলতে কিংবা গাড়িতে উঠলে ঘুমিয়ে পড়ে। দিনের বেলা অতিরিক্ত ঘুম পায়, যার প্রভাবে অপ্রত্যাশিত ও অনিয়ন্ত্রিত ঘুমিয়ে পড়ার দরুণ কর্মক্ষেত্রে মর্মান্তিক দুর্ঘটনার শিকার হতে হয়। দিনের বেলা অতিরিক্ত ঘুমের প্রভাব কাটানোর জন্য অনেকে আবার অতিরিক্ত চা-কফিতে আসক্ত হয়ে পড়েন। 

এছাড়াও কথা ভুলে যাওয়া, সিদ্ধান্তহীনতা, কাজে মনোযোগ না থাকা এর উপসর্গ।   

বরগুনার আলো