রোববার   ০৮ ডিসেম্বর ২০১৯   অগ্রাহায়ণ ২৪ ১৪২৬   ১০ রবিউস সানি ১৪৪১

বরগুনার আলো
ব্রেকিং:
শুভ জন্মদিন ডা. দীপু মনি দিল্লিতে কারখানায় অগ্নিকাণ্ডে ৩৫ জনের প্রাণহানি, আহত ৫৬ বাংলাদেশে পৌঁছালেন সালমান-ক্যাটরিনা দেশের প্রথম বিজনেস ইনকিউবেটর নির্মাণকাজের উদ্বোধন আজ আজ শিল্পীদের হাতে পুরস্কার তুলে দেবেন প্রধানমন্ত্রী বঙ্গবন্ধু বিপিএলের পর্দা উঠছে আজ বঙ্গবন্ধুকে ‘ড. অব ল’ সম্মাননা দেবে ঢাবি ইংরেজির পাশাপাশি বাংলায়ও রায় লেখার আহ্বান প্রধানমন্ত্রীর সবাই যেন ন্যায়বিচার ও আইনের আশ্রয় পায়: প্রধানমন্ত্রী আজ আন্তর্জাতিক বেসামরিক বিমান চলাচল দিবস দেশে ফিরছেন মিয়ানমারের জলসীমায় আটক ১৭ জেলে আ`লীগের সংসদীয় ও স্থানীয় সরকার মনোনয়ন বোর্ডের সভা সোমবার ফাইনাল নিশ্চিতের লড়াইয়ে টস হেরে ব্যাটিংয়ে সৌম্য-আফিফরা জাতীয় বিচার বিভাগীয় সম্মেলন আজ আওয়ামী লীগের খাদ্য উপ-কমিটির সভা আজ সভাপতির পদ ছাড়া যেকোনো পদে পরিবর্তন হতে পারে : কাদের ভারত-বাংলাদেশের সম্পর্ক চিরকালীন: রীভা গাঙ্গুলী সৌম্যের ফিফটিতে ভুটানকে উড়িয়ে দিল বাংলাদেশ বিএনপি বিশৃঙ্খলা করলে আওয়ামী লীগও প্রস্তুত: কাদের চাল নিয়ে উদ্বিগ্ন হওয়ার কারণ নেই : কৃষিমন্ত্রী
৩১

জামাতে নামাজের পর ইমাম মুসল্লিদের দিকে ফিরে বসার বিধান

প্রকাশিত: ১১ সেপ্টেম্বর ২০১৯  

 


প্রশ্ন: সাধারণত আসর ও ফজরের নামাজে সালাম ফেরানোর পর ইমাম সাহেব মুসল্লিদের দিকে মুখ করে বসতে দেখা যায় আমাদের মসজিদগুলোতে। আমার এক পরিচিত ভাই ধর্মীয় বিষয়ে ইদানিং বেশ পড়াশোনা করছে। সে আমাকে জানিয়েছে, মসজিদগুলোতে ফজর ও আসরের পর ইমাম সাহেবরা মুসল্লিদের দিকে মুখ করে বসার নিয়মটি সুন্নতের পরিপন্থি।

তার বক্তব্য মতে, মুসল্লিদের বরাবর না বসে মেহরাবের ডান দিকে বা বাম দিকে সামান্য বাঁকা হয়ে বসা উচিত। তার কথা আমি আমাকে ভাবিয়ে তুলেছে। এক্ষেত্রে শরিয়তস্বীকৃত পদ্ধতি কী জানাটা আমার জন্য খুব জরুরি।

উত্তর: আপনার পরিচিত ভাইয়ের কথা সঠিক নয়; বরং ফজর ও আসরের নামাজের পর মুসল্লিদের দিকে মুখ করে বসা ইমাম সাহেবের জন্য সুন্নত। এটি সহিহ হাদিসের মাধ্যমে প্রমাণিত।

সাহাবি জায়েদ ইবনে খালেদ জুহানি (রা.) বলেন, হুদাইবিয়ায় আমরা রাসুলুল্লাহ (সা.)-এর পেছনে ফজরের নামাজ আদায় করি। সে রাতে বৃষ্টি হয়েছিল। নামাজ শেষ হওয়ার পর তিনি সমবেত সবার দিকে ফিরলেন এবং জিজ্ঞেস করলেন, ‘তোমরা কি জানো তোমাদের রব কী বলেছেন?...’ (বুখারি, হাদিস: ৮৪৬)

ছামুরা ইবনে জুনদুব (রা.) থেকে বর্ণনা করেন, ‘নবী (সা.) যখন ফজরের নামায শেষ করতেন, তখন  সবার দিকে মুখ করে বসতেন। এরপর বলতেন, ‘তোমাদের কেউ কি গত রাতে কোনো স্বপ্ন দেখেছে?’ (মুসলিম, হাদিস: ২২৭৫)

সুতরাং মসজিদগুলোতে ইমামগণ সাধারণত যেভাবে মুসল্লিদের দিকে ফিরে বসেন, সেটা হাদিস ও সুন্নতসম্মত। আর ডানে বা বামে সামান্য বাঁকা হয়ে বসার প্রসঙ্গ তখন, যখন ইমামের সোজাসুজি কোনো মাসবুক ব্যক্তি নামাজ আদায় করতে থাকে এবং ইমাম ও ওই নামাযরত ব্যক্তির মাঝে কোনো আড়াল না থাকে। কেননা নামাজির চেহারা তখন ইমামের চেহারার বরাবর হয়ে যায়। আর এভাবে নামাজির মুখোমুখি হয়ে বসা অনুচিত।

আর যদি এমন হয় যে, ইমামের সোজাসুজি কোনো কাতারে কোনো মাসবুক নামায আদায় করছে ঠিক, কিন্তু তার ও ইমামের মাঝখানে অন্য মুসল্লীদের আড়াল রয়েছে, তাহলে সেক্ষেত্রে মুসল্লীর দিকে ইমামের ফিরে বসা দূষণীয় নয়। অতএব, এক্ষেত্রে ইমাম সাহেবেরও মুসল্লীদের দিকে ফিরে বসতে অসুবিধা নেই।

প্রসঙ্গত, কিছু হাদিসে রাসুল (সা.) নামাজের সালাম ফেরানোর পর বামে বা ডানে ফেরার কথা রয়েছে। তবে এর উদ্দেশ্য হলো, জায়গা ছেড়ে উঠে যাওয়া। মুসল্লিদের দিকে ফিরে বসা নয়। আল্লামা আনওয়ার শাহ কাশ্মিরি (রহ.) ফয়জুল বারিতে বিষয়টি এভাবেই উল্লেখ করেছেন। প্রশ্নে যে ব্যক্তির কথা বলা হয়েছে, তিনি হয়ত ওই হাদিস থেকে ভুল বুঝেছেন; এমনটা হতে পারে।

তথ্যসূত্র: সুনানে আবু দাউদ, হাদিস: ১০৫৩; শরহু মুসলিম, ইমাম নববি ৫/২২০; উমদাতুল কারি: ৬/১৪৩; ফয়জুল বারি: ২/৩১৬; মুআত্তা মুহাম্মাদ, পৃষ্ঠা: ১৫৪; মুসান্নাফে ইবনে আবি শাইবা, হাদিস: ৩১২৮; কিতাবুল উম্ম: ১/১৫১; খুলাছাতুল ফাতাওয়া ১/১৫৬; বাদায়েউস সানায়ে: ১/৩৯৪; ফাতহুল কাদির: ১/৪২৬; হালবাতুল মুজাল্লি: ২/২২২; আদদুররুল মুখতার: ১/৫৩১-৫৩২

এই বিভাগের আরো খবর