বুধবার   ১৯ ফেব্রুয়ারি ২০২০   ফাল্গুন ৬ ১৪২৬   ২৪ জমাদিউস সানি ১৪৪১

বরগুনার আলো
ব্রেকিং:
ধর্ষকদের ধরিয়ে দিন, কঠোর ব্যবস্থা নেবো: প্রধানমন্ত্রী টাকা না থাকলে এত উন্নয়ন কাজ করছি কীভাবে : প্রধানমন্ত্রী সব ব্যথা চেপে রেখে দেশের জন্য কাজ করছি : প্রধানমন্ত্রী ট্রেনে খোলা খাবার বিক্রি ও প্লাস্টিকের কাপ নিষিদ্ধ হচ্ছে মজুদ গ্যাসে চলবে ২০৩০ সাল পর্যন্ত : খনিজ সম্পদ প্রতিমন্ত্রী গুজব-অপপ্রচার রোধে কাজ করছে উচ্চ পর্যায়ের কমিটি : তথ্যমন্ত্রী সব কারখানায় ব্রেস্ট ফিডিং কর্নার স্থাপনের নির্দেশ আজ বাংলাদেশ-নেপাল পররাষ্ট্রমন্ত্রীর বৈঠক সরকার-জনগণের মধ্যে সম্পর্ক জোরদার করতে সাংসদের রাষ্ট্রপতির আহ্বান দেশে রাজনৈতিক স্থিতিশীলতা বিরাজ করছে : নাসিম ব্যাংকের জঙ্গি অর্থায়ন নজরদারিতে রয়েছে: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী ৪০০ মেট্রিক টন মধু রফতানির অর্ডার পেয়েছে বাংলাদেশ : কৃষিমন্ত্রী নয় বছরে সাড়ে ৯৭ হাজার কর্মকর্তা নিয়োগ : জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী দেশে মোবাইল টাওয়ার রেডিয়েশনের মাত্রা ক্ষতিকর নয় : বিটিআরসি সন্ধ্যায় বঙ্গভবনে যাচ্ছেন প্রধানমন্ত্রী খালেদার প্যারোলে মুক্তির কোনো আবেদন পাইনি: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী উহান ফেরত শিক্ষার্থীরা নজরদারিতেই থাকবেন : আইইডিসিআর রোহিঙ্গা ইস্যুতে ইন্দোনেশিয়ার সহায়তা চাইলেন ড. মোমেন ইউএনও’দের মাধ্যমে রাজাকারের তালিকা করা হবে : মোজাম্মেল হক মানবপাচারে অভিযুক্ত এমপির বিষয়ে দুদককে তদন্তের আহ্বান কাদেরের
৬১

ডায়ালাইসিস কখন দরকার ?

বরগুনার আলো

প্রকাশিত: ২৯ আগস্ট ২০১৯  

দীর্ঘমেয়াদি কিডনি রোগে ডায়ালাইসিস চিকিৎসায় যখন ওষুধ দ্বারা রোগীর কোনো উন্নতি হয় না তখনই রোগীকে ডায়ালাইসিস চিকিৎসার অন্তর্ভুক্ত করা হয়ে থাকে। দীর্ঘমেয়াদি কিডনি বিকল হওয়া অর্থাৎ 'ক্রনিক রেনাল ফেইলিওর' শেষ স্তরে বা পর্যায়ে ডায়ালাইসিস করা হয়ে থাকে। আর এই কার্যক্ষমতা যখন ৯৫ ভাগের বেশি থাকে না, তখনই ডায়ালাইসিস চিকিৎসা প্রদান করা হয়।
শতকরা ৫০ ভাগ ডায়ালাইসিস রোগী হার্টের জন্য আর শতকরা ১৫ ভাগ ইনফেকশনজনিত কারণে মৃত্যুবরণ করে থাকেন। এই চিকিৎসা অত্যন্ত ব্যয়বহুল। একটি রোগীকে এই চিকিৎসায় বেঁচে থাকতে বার্ষিক ব্যয় প্রায় তিন লাখ টাকা। দুর্ভাগ্যজনক হলেও সত্য, আমাদের দেশে ক্রনিক রেনাল ফেইলিওর রোগীদের শতকরা ২০ ভাগের কম রোগী এই ডায়ালাইসিস চিকিৎসা পেয়ে থাকেন। সরকারি ব্যবস্থাপনায় জাতীয় কিডনি ইনস্টিটিউট ও হাসপাতাল এবং ঢাকা মেডিকেল কলেজ হসপাতালে বিনামূল্যে ডায়ালাইসিসের ব্যবস্থা রয়েছে। এ ছাড়া মিরপুর ২ নম্বরের কিডনি ফাউন্ডেশন, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ে রয়েছে। ডায়ালাইসিসের সময় হেপাটাইটিস, ম্যালেরিয়া, সিফিলিস, এইডস এসব ভয়ানক রোগের সংক্রমণ যেন না হয় সেদিকে নজর রাখতে হবে।

ডায়ালাইসিস দুই ধরনের : হেমোডায়ালাইসিস ও পেরিটোনিয়াল ডায়ালাইসিস
পেরিটোনিয়াল ডায়ালাইসিস :এই পদ্ধতিতে দুই লিটার ডায়ালাইসিস ফ্লুইড একটি নলের সাহায্যে পেটের পেরিটোনিয়াল ক্যাভিটিতে প্রবেশ করানো হয় এবং ১৫ থেকে ৩০ মিনিট পর আবার বের করে নেওয়া হয়। এভাবে ৪৮-৭২ ঘণ্টা পর্যন্ত ডায়ালাইসিস চালানো হয়। ফলে শরীরের দূষিত পদার্থগুলো বের হয়ে আসে এবং রোগীর সুস্থতা ফিরে আসে। 
হেমোডায়ালাইসিস (রক্তের মাধ্যম) :হেমোডায়ালাইসিসের উদ্দেশ্য হচ্ছে কিডনি অকেজো হওয়ার ফলে রক্তে জমাকৃত রাসায়নিক পদার্থকে বাইরে বের করে দেওয়া।
এই চিকিৎসা দ্বারা তিন থেকে চার সপ্তাহ কয়েকবার ডায়ালাইসিসের মাধ্যমে তাৎক্ষণিক কিডনি অকেজো (অ্যাকুইট রেনাল ফেইলিওর) রোগীদের সম্পূর্ণ ভালো করা সম্ভব।
দীর্ঘমেয়াদি কিডনি অকেজো রোগীদের নিয়মিত ডায়ালাইসিস করার জন্য এ-ভি ফিস্টুলা তৈরি করতে হয়।
সাধারণত হাতের কবজিতে এই ফিস্টুলা তৈরি করা হয়। ফিস্টুলা করার তিন থেকে চার সপ্তাহ পর এর মাধ্যমে ডায়ালাইসিস করা যায়।

বরগুনার আলো