বুধবার   ২৬ ফেব্রুয়ারি ২০২০   ফাল্গুন ১৩ ১৪২৬   ০২ রজব ১৪৪১

বরগুনার আলো
ব্রেকিং:
৭ মার্চ জাতীয় দিবস ঘোষণা করে হাইকোর্টের রায় ১৪ দিনেই ভালো হচ্ছেন করোনা রোগী : আইইডিসিআর মুশফিক-নাঈমে ইনিংস ব্যবধানে দূর্দান্ত জয় টাইগারদের পিলখানা ট্র্যাজেডি দিবস আজ রিফাত হত্যা মামলার আসামি সিফাতের বাবা গ্রেফতার কুষ্টিয়ায় জগো বাহিনীর প্রধানের ফাঁসি, ১১ জনের যাবজ্জীবন এখন পর্যন্ত বাংলাদেশ করোনামুক্ত: আইইডিসিআর লোভ-লালসার ঊর্ধ্বে থেকে দায়িত্ব পালন করতে বললেন রাষ্ট্রপতি নাঈমুল আবরার হত্যা : ৪ আসামিকে গ্রেফতারের নির্দেশ আইন মেনেই বিদেশি কম্পানিকে এদেশে ব্যবসা করতে হবে- প্রধান বিচারপতি অপ্রাপ্তবয়স্ক চার কোটি নাগরিককে এনআইডি দেবে ইসি বাকি এক হাজার কোটি টাকা তিন মাসের মধ্যে দিতে গ্রামীণফোনকে নির্দেশ পতাকার মর্যাদা ধরে রাখতে সেনা সদস্যদের প্রতি রাষ্ট্রপতির আহ্বান জুয়ার আসর থেকে আটক ২৬ দুই ইউনিভার্সিটিকে ১০ লাখ টাকা করে জরিমানা দৃশ্যমান পদ্মা সেতুর পৌনে চার কিলোমিটার সারা দেশে শহীদ দিবস ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস পালিত ইংরেজি উচ্চারণে বাংলা বলার সমালোচনা প্রধানমন্ত্রীর উন্নত দেশ গড়তে বেসরকারি সহযোগিতা প্রয়োজন: পররাষ্ট্রমন্ত্রী মুজিববর্ষে বিএনপিকেও আমন্ত্রণ জানানো হবে: কাদের
২৪২

ঢাকার খাস জমি উদ্ধারে হাইকোর্টের পূর্ণাঙ্গ রায় প্রকাশ

বরগুনার আলো

প্রকাশিত: ২২ জানুয়ারি ২০১৯  

ঢাকার প্রায় ২৮শ’ একর খাস জমি উদ্ধারে হাইকোর্টের দেয়া পূর্ণাঙ্গ রায় প্রকাশিত হয়েছে। সোমবার হাইকোর্টের বিচারপতি গোবিন্দ্র চন্দ্র ঠাকুর ও বিচারপতি মোহাম্মদ উল্লাহ স্বাক্ষর করার পর রায়টি প্রকাশ করা হয়। রায়ে আদালত বলেছেন, সরকারের নামে থাকা ২৮শ’ একর জমি উদ্বার করা ভূমি মন্ত্রণালয়ের সাংবিধানিক দায়িত্ব।

সূত্র জানায়, ১৯৯৫ সালে ঢাকা মহানগরে ভূমি জরিপ করা হয়। সেসময় জেলা প্রশাসকের এক নম্বর খতিয়ানভুক্ত প্রায় ২৮শ’ একর খাস জমি বিভিন্ন ব্যক্তির নামে রেকর্ডভুক্ত করেন জরিপ কাজে নিয়োজিত সেটেলমেন কর্মকর্তারা। এসব জমির বেশিরভাগই খাল ও নদী। এ নিয়ে গণমাধ্যমে প্রতিবেদন প্রকাশিত হলে ২০১১ সালে ভূমি মন্ত্রণালয় একটি তদন্ত কমিটি গঠন করে।

এর পরিপ্রেক্ষিতে ব্যবস্থা নেয়ার জন্য দুর্নীতি দমন কমিশনকে (দুদক) চিঠি দেয় মন্ত্রণালয়। সেই চিঠি চ্যালেঞ্জ করে এসিস্টেন্ট সেটেলমেন অফিসার অ্যাসোসিয়েশনের পক্ষে সংগঠনের প্রেসিডেন্ট মো. জাহাঙ্গীর আলম হাইকোর্টে রিট করেন। সেই রিটের পর চিঠির কার্যক্রম স্থগিত করে রুল জারি করেন হাইকোর্ট। পরে সাত কার্যদিবস রুল শুনানি হয়।

শুনানি শেষে গত বছরের ৪ ডিসেম্বর হাইকোর্টের একটি বেঞ্চ রুল নিষ্পত্তি করে রায় দেন।

আজ সোমবার প্রকাশিত রায়ে আদালত বলেন, সরকারের নামে থাকা প্রায় ২৮শ’ একর জমি উদ্বার করার জন্য ভূমি মন্ত্রণালয়ের সাংবিধানিক দায়িত্ব আছে।

পর্যবেক্ষণে আদালত বলেন, সরকারের অবশ্যই ওই জমি উদ্বারে প্রেস সার্ভে (নতুন জরিপ) করার আইনগত অধিকার রয়েছে।

অপর এক আদেশে পূর্ণ দায়-দায়িত্ব ঠিক হবার আগ পর্যন্ত কারোর বিরুদ্ধে ক্রিমিনাল মামলা না করার জন্য মতামত দেন আদালত।

আদালতে আজ ভূমি মন্ত্রণালয়ের পক্ষে ছিলেন অ্যাডভোকেট মনজিল মোরশেদ। অপরপক্ষে ছিলেন অ্যাডভোকেট খলিলুর রহমান।

মনজিল মোরশেদ বলেন, জরিপের সময় কিছু অসাধু কর্মকর্তা ঢাকার প্রায় ২৮শ’ একর খাস জমি ব্যক্তি মালিকানায় রেকর্ড করেন, যার মাধ্যমে সরকারের হাজার হাজার কোটি টাকার ক্ষতি হয়। আদালতের রায় প্রকাশের পর নতুন জরিপের মাধ্যমে ওই জমি সরকারের নামে রেকর্ডভুক্ত করতে আর কোনো বাধা থাকছে না।

বরগুনার আলো
এই বিভাগের আরো খবর