রোববার   ১৫ ডিসেম্বর ২০১৯   অগ্রাহায়ণ ৩০ ১৪২৬   ১৭ রবিউস সানি ১৪৪১

বরগুনার আলো
ব্রেকিং:
বন্দে আলী মিয়ার জন্ম ‘২ ঘণ্টার মধ্যে উড়ে যাবে সালমান খানের গ্যালাক্সি অ্যাপার্টমেন্ট!’ গরুর খামারে কম্বল দান করলেই মিলবে বন্দুকের লাইসেন্স! আজ প্রকাশ হবে রাজাকারদের তালিকা সোশ্যাল মিডিয়া বিশেষজ্ঞ খুঁজছেন ব্রিটেনের রানি শামীমের ৩৬৫ কোটি টাকা, খালেদের ৩৪, সম্রাটের ‘তেমন নেই’ মাকাসিদুশ শরিয়া তত্ত্বের প্রয়োগ ও অপপ্রয়োগ লড়েছেন মোসাদ্দেক, জিতেছে ঢাকা প্রজন্ম থেকে প্রজন্মকে সচেতন থাকতে হবে: প্রধানমন্ত্রী মোশতাক, জিয়ার মতো মীরজাফররা আর যেন ক্ষমতায় না আসে-প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসনকে প্রধানমন্ত্রীর অভিনন্দন বরগুনায় শহীদ বুদ্ধিজীবী দিবস পালিত বুদ্ধিজীবী দিবসে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে প্রধানমন্ত্রীর শ্রদ্ধা বুদ্ধিজীবী স্মৃতিসৌধে রাষ্ট্রপতি-প্রধানমন্ত্রীর শ্রদ্ধা শহীদ বুদ্ধিজীবী দিবস আজ বীরশ্রেষ্ঠ জাহাঙ্গীরের শাহাদতবার্ষিকী আজ বিশ্বের প্রভাবশালী ১০০ নারীর তালিকায় শেখ হাসিনা আজকের নবীন কর্মকর্তারাই হবেন ৪১ সালের সৈনিক : প্রধানমন্ত্রী ঘুষ-দুর্নীতির বিরুদ্ধে সজাগ থাকার আহ্বান প্রধানমন্ত্রীর বয়স্ক বাবা-মাকে না দেখলে জেল
১১৬

তালতলিতে পিটিয়ে মারা বিরল প্রজাতির নেকড়েটি ‘ইন্ডিয়ান গ্রে উলফ’

প্রকাশিত: ১৮ জুন ২০১৯  

পিটিয়ে মেরে ফেলা বিরল প্রজাতির ধূসর নেকড়েটি ঘূর্ণিঝড় ফণীর সময় ভারত থেকে বাংলাদেশে ঢুকেছিল বলে মনে করছেন সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিরা। তাঁদের মতে, দলছুট নেকড়েটি খাবারের সন্ধানে লোকালয়ে এসে গৃহস্থবাড়ি থেকে গবাদিপশু টেনে নিয়ে খেয়ে ফেলছিল। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রাণিবিদ্যা বিভাগ ইতিমধ্যে মৃত নেকড়েটির ডিএনএ নমুনা সংগ্রহ করেছে।

৪ জুন বরগুনার তালতলি উপজেলার বেহেলা এলাকায় নেকড়েটিকে পিটিয়ে মেরে ফেলেন গ্রামবাসী।

বিশেষজ্ঞরা বলছেন, নেকড়েটি ভারতের বিরল প্রজাতির ধূসর নেকড়ে (ইন্ডিয়ান গ্রে উলফ)। প্রকৃতি সংরক্ষণবিষয়ক আন্তর্জাতিক সংগঠন ইন্টারন্যাশনাল ইউনিয়ন ফর কনজারভেশন অব নেচারের (আইইউসিএন) তথ্য অনুসারে, ধূসর প্রজাতির নেকড়ে বাংলাদেশে সবশেষ দেখা গিয়েছিল ১৯৪৯ সালে।

গ্রামের বাসিন্দারা বলছেন, প্রায়ই ওই নেকড়ে গ্রামে ঢুকে তাদের গরু-ছাগল খেয়ে ফেলছিল। নিজেদের গবাদিপশু রক্ষা করতেই নেকড়েটিকে মারতে তাঁরা বাধ্য হয়েছেন। তাঁরা বলেন, ঘূর্ণিঝড় ফণীর পর থেকে উপজেলার বিভিন্ন গ্রামে রাতে গরু–ছাগল খেয়ে ফেলছিল নেকড়েটি। প্রথমে বাঘ হানা দিচ্ছে ভেবে ভয়ে রাতে ঘর থেকে লোকজন প্রয়োজন ছাড়া বের হতেন না। পরে ৪ জুন সকালে স্থানীয় লোকজন ধাওয়া করে খালে ফেলে প্রাণীটিকে মেরে ফেলেন। এই নেকড়েই তাঁদের গবাদিপশু খেয়ে ফেলেছে বলে তাঁদের ধারণা।

বন বিভাগের কর্মকর্তারা বলছেন, ১৯৪০ সালে নেকড়ে–জাতীয় প্রাণী বাংলাদেশ থেকে বিলুপ্ত হয়ে গেছে। এই নেকড়ে ঘূর্ণিঝড় ফণীর কারণে ভারতের বন থেকে বাংলাদেশের উপকূল ভেসে আসতে পারে।

এ বিষয় বন বিভাগের রেঞ্জ কর্মকর্তা নয়ন মিস্ত্রি বলেন, ঘূর্ণিঝড় ফণীর পর থেকেই এই উপজেলার বিভিন্ন গ্রামের গোয়ালঘর থেকে গরু-ছাগল কোনো একটি প্রাণী খেয়ে ফেলছে বলে অভিযোগ ওঠে। ৪ জুন সকালে স্থানীয় লোকজন প্রাণীটি পিটিয়ে মেরে ফেলেন। এরপর থেকে আর কোনো গরু–ছাগল ধরে নিয়ে যাওয়ার ঘটনা ঘটেনি। তিনি বলেন, এ ধরনের নেকড়ে–জাতীয় প্রাণী ভারতের বিভিন্ন এলাকায় দেখা যায়।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রাণিবিদ্যা বিভাগের অধ্যাপক আনোয়ারুল ইসলাম ধূসর নেকড়েটির ডিএনএ নমুনা সংগ্রহ করেছেন। তিনি জানান, এই অঞ্চলে আরও ধূসর নেকড়ে থাকার বিষয়ে অনুসন্ধান করছে তাঁর দল। তিনি বলেন, এটা খুব দুঃখজনক যে নেকড়েটিকে পিটিয়ে মেরে ফেলা হয়েছে। ঘটনাটি বিষয়ে আরও তদন্তের প্রয়োজন রয়েছে।

অধ্যাপক আনোয়ারুল ইসলাম বলেন, এই এলাকায় নেকড়ে দেখা যায় না। এটি বিরল প্রজাতির ধূসর নেকড়ে বলে নিশ্চিত হওয়া গেছে। ধারণা করা যায়, নেকড়েটি ভারত থেকে এসেছে। ফণীর প্রভাবেও এটি দলছুট হয়ে বাংলাদেশে ঢুকতে পারে। খাবারের সন্ধানেই হয়তো সেটি লোকালয়ে ঢুকেছিল।

এদিকে বিরল প্রজাতির নেকড়েটিকে মেরে ফেলার ঘটনাটি নিয়ে বার্তা সংস্থা এএফপির বরাতে গত রোববার সংবাদ প্রকাশ করে ভারতের এনডিটিভি অনলাইন। এতে বলা হয়, চলতি মাসের শুরুর দিকে নেকড়েটিকে মেরে ফেলেন বাংলাদেশের কৃষকেরা। তবে বিশেষজ্ঞদের কাছে মৃত নেকড়ের ছবি পাঠানোর পর নেকড়েটি ধূসর প্রজাতির বলে শনাক্ত হয়।

ধূসর নেকড়ের মতোই বাংলাদেশে অবলুপ্তির পথে ডোরাকাটা হায়না, বারশিঙ্গা (সোয়াম্প ডিয়ার) ও কৃষ্ণসার হরিণ।

ভারতের বন্য প্রাণী ইনস্টিটিউটের কর্মকর্তা ওয়াই ভি ঝালা এএফপিকে বলেছেন, ‘ছবি দেখার পর আমরা নিশ্চিত হয়েছি, এটা ভারতীয় ধূসর নেকড়ে। ভারতের তিন হাজার প্রাণীর মধ্যে বেশ কিছু বন্দী অবস্থায় আছে। ১৯৪০ সালের পর থেকে এরা তাদের আবাস বাংলাদেশের উত্তর ও উত্তর-পশ্চিমাঞ্চল থেকে নিশ্চিহ্ন হয়ে গেছে।’

এই বিভাগের আরো খবর