• সোমবার   ০১ মার্চ ২০২১ ||

  • ফাল্গুন ১৬ ১৪২৭

  • || ১৭ রজব ১৪৪২

বরগুনার আলো
ব্রেকিং:
দেশে কোনো গরিব মানুষ থাকবে না : তথ্যমন্ত্রী বেসরকারি চিকিৎসা সেবা ব্যয় নির্ধারণ শিগগিরই: স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাটকা সংরক্ষণে কাল থেকে ৬ জেলায় মাছ ধরা নিষিদ্ধ করোনায় ২৪ ঘণ্টায় মৃত্যু ৮, শনাক্ত ৩৮৫ আমরা শিক্ষিত ও দক্ষ মানবসম্পদ গড়তে বদ্ধপরিকর: প্রধানমন্ত্রী শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলার ৬০ কর্মদিবস পর পরীক্ষা: শিক্ষামন্ত্রী এ এক বদলে যাওয়া বাংলাদেশ: প্রধানমন্ত্রী উন্নয়নশীল দেশে উত্তরণের কৃতিত্ব নতুন প্রজন্মের : প্রধানমন্ত্রী করোনায় ২৪ ঘণ্টায় মৃত্যু ৫, শনাক্ত ৪০৭ উৎসবমুখর পরিবেশে হবে ৫ম ধাপের পৌরসভা নির্বাচন: কাদের মুজিবনগর-কলকাতা স্বাধীনতা সড়কের কাজ শেষ পর্যায়ে: এলজিআরডি মন্ত্রী রেলে ১২ হাজার লোক নিয়োগ দেয়া হবে: রেলপথ মন্ত্রী করোনায় ২৪ ঘণ্টায় মৃত্যু ৫, শনাক্ত ৪১০ বঙ্গবন্ধুর পরিবার সততা, মেধা ও সাহসের প্রতীক: কাদের জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের স্থগিত পরীক্ষার সময়সূচি প্রকাশ সাত কলেজের পরীক্ষা চলবে: শিক্ষা মন্ত্রণালয় কেন্দ্রীয় পুলিশ হাসপাতালে সাধারণ মানুষও চিকিৎসা পাবেন: আইজিপি জনগণ ভালোবেসে আমাদের সরকার গঠনের সু্যোগ দিয়েছে: কাদের সাত কলেজের বিষয়ে সিদ্ধান্ত সন্ধ্যায় বিএনপির অনেক নেতা গোপনে টিকা নিয়েছেন : তথ্যমন্ত্রী

তিস্তার চরাঞ্চলে মরিচ চাষে খুশি কৃষকরা

বরগুনার আলো

প্রকাশিত: ২৪ জানুয়ারি ২০২১  

তিস্তার চরে ফিরেছে চাষাবাদ। হাসি ফুটেছে নদী ভাঙনের শিকার ক্ষতিগ্রস্থদের মুখে মুখে। এসব পরিবারের সদস্যরা ঝুঁকে পড়েছে চাষাবাদে। নদীতে বিলীন হওয়া জমির ফসল ঘরে তুলে পেরে খুশি এখন অনেকেই। 

তাই নানান ফসলে ভরে উঠেছে রংপুরে পীরগাছার ছাওলা ও তাম্বুলপুর ইউনিয়নে তিস্তার বুকে জেগে উঠা প্রায় ২০টি বালুচর। চলতি মৌসুমে মরিচের ভালো ফলন দেখা দিয়েছে। মরিচসহ নানা ফসলে ভরে উঠেছে তিস্তার চরাঞ্চল।

উপজেলার দুটি ইউনিয়নে প্রবাহিত হয়েছে তিস্তা নদী। প্রতি বছরেই নদী ভাঙনের শিকার হয় তিস্তা নদী কবলিত এলাকার পরিবারগুলো। তবু তারা জীবন জীবিকার তাগিদে তিস্তায় জেগে উঠা চরে বিভিন্ন ধরনের ফসল ফলিয়ে আশার আলো জাগায়। 

ছাওলা ইউনিয়নের চর ছাওলা, কিশামত ছাওলা, গাবুড়ার চর, শিবদেব চর, চর ছাওলা কামারের হাট ও তাম্বুলপুর ইউনিয়নের রহমতচর, নামাচর, চর রহমতসহ প্রায় ২০টি জেগে উঠা তিস্তা নদীর চর এখন আবাদি জমিতে পরিণত হয়েছে। চরাঞ্চলের হাজারও একর জমিতে এখন চাষাবাদ করা হচ্ছে নানা প্রজাতির ফসল। বিশেষ করে মরিচ, গম, ভুট্টা, আলু, বেগুন, পিঁয়াজ, রসুন, টমেটো, বাদাম, সরিষা, তিল, তিশি, তামাক, কুমড়া ও তরমুজসহ বিভিন্ন শাকসবজি চাষাবাদ করা হচ্ছে। 

সরেজমিনে (২৩ জানুয়ারি) শনিবার ছাওলা ইউনিয়নের কিশামত ছাওলা গ্রামের বেল্লাল এর সাথে কথা হলে তিনি জানান, এবারে নিজে ১ বিঘা জমিতে মরিচ চাষ করেছে। প্রতি বিঘা জমিতে খরচ হয় ৮ থেকে ১০ হাজার টাকা। ফলন ভালে হলে ১৫ হতে ২০ হাজার টাকা মরিচ বিক্রি হয় এক বিঘা জমিতে। দীর্ঘ ৬ মাস ধরে মরিচ তোলা হয়। স্বল্প খরচে অধিক লাভের আশায় চরের কৃষকরা এখন মরিচসহ নানাবিধ তরিতরকারি চাষে ঝুঁকে পড়েছে। তিনি আরো বলেন, মরিচের দামও এখন ভালো। বর্তমান বাজারে প্রতি কেজি মরিচ ৫০ থেকে ৬০ টাকা দরে বিক্রি করা হচ্ছে। 

উপজেলার ঐতিহ্যবাহী পাওটানাহাট এর ব্যবসায়ী আশরাফ আলী জানান, স্থানীয় মরিচের চাহিদা অনেক বেশি। তাছাড়া স্থানীয়ভাবে মরিচ কিনে বিক্রি করলে লাভ বেশি হয়। চরাঞ্চলের জমিতে তরিতরকারির আবাদ এখন ভালো হয়। সে কারণে চরের মানুষ এখন অনেক খুশি।

উপজেলা কৃষি অফিসার শামীমুর রহমান জানান, চলতি মৌসুমে ১শ ২০ হেক্টর জমিতে মরিচ চাষ হয়েছে। পলি জমে থাকার কারণে চরের জমি অনেক উর্বর। যার কারণে যে কোন প্রকার ফসলের ফলন ভাল হয়। তিনি বলেন, চরের কৃষকরা নিজে পরিজন নিয়ে জমিতে কাজ করে। সেই কারণে তারা অনেক লাভবান হয়।

বরগুনার আলো