শুক্রবার   ১৫ নভেম্বর ২০১৯   অগ্রাহায়ণ ১ ১৪২৬   ১৭ রবিউল আউয়াল ১৪৪১

বরগুনার আলো
ব্রেকিং:
আয়কর দিলেন অর্থমন্ত্রী, রিটার্ন দাখিল প্রধানমন্ত্রীর শেখ হাসিনার নির্দেশনায় পুলিশ এখন দক্ষ: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী কলকাতা টেস্ট দেখতে আমন্ত্রণ জানিয়ে শেখ হাসিনাকে মোদীর চিঠি কৃষি জমি রক্ষায় কাজ করছে সরকার: প্রধানমন্ত্রী চার বছরের মধ্যে দারিদ্র্র্যের হার কমবে : প্রধানমন্ত্রী আজ ঝালকাঠির দুই বিচারক হত্যা দিবস পিকেএসএফ উন্নয়ন মেলার উদ্বোধন করেছেন প্রধানমন্ত্রী আয়কর মেলা: ১১৩ কোটি থেকে লক্ষ্যমাত্রা তিন হাজার কোটি টাকা রোহিঙ্গা নিপীড়নে এবার সুচি’র বিরুদ্ধে আর্জেন্টিনায় মামলা টেস্ট বিশ্বকাপ অভিষেকে টস জিতে ব্যাটিংয়ে বাংলাদেশ রোহিঙ্গা সমস্যার পেছনে জিয়াউর রহমানের হাত ছিল: প্রধানমন্ত্রী খেলাপি ঋণ অবশ্যই আদায় করা হবে: অর্থমন্ত্রী ধেয়ে আসছে ‘বুলবুলে’র চেয়েও ভয়ানক ঘূর্ণিঝড় ‘নাকরি’ দেশের কল্যাণে প্রয়োজনে বাবার মতো জীবন দেবো: শেখ হাসিনা বিমানে উড়ে বাংলাদেশ এল ২২৫টি গরু! দেশে রফতানি বাড়াতে দরকার পরিবহন খাতে উন্নয়ন: বিশ্বব্যাংক মা হারানো সেই শিশুর দায়িত্ব নিলেন উপমন্ত্রী শামীম মালয়েশিয়ায় বীমার আওতায় দুই লাখ বাংলাদেশি কর্মী আওয়ামী লীগে দূষিত রক্তের প্রয়োজন নেই: সেতুমন্ত্রী ঘুরে দাঁড়িয়ে দুর্দান্ত জয় বাংলাদেশের মেয়েদের
৩৩৪

দুঃখপ্রকাশ করে ক্ষমা প্রার্থনা বুয়েট ভিসির

প্রকাশিত: ১১ অক্টোবর ২০১৯  

বাংলাদেশের প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বুয়েট) ছাত্র আবরার ফাহাদ হত্যাকাণ্ডের ঘটনায় আনুষ্ঠানিকভাবে দুঃখপ্রকাশ করে ক্ষমাপ্রার্থনা করেছেন উপাচার্য অধ্যাপক সাইফুল ইসলাম।

শুক্রবার (১১ অক্টোবর) বুয়েট অডিটোরিয়ামে শিক্ষার্থীদের সঙ্গে আলোচনায় তিনি ক্ষমা চান। 

তিনি বলেন, আবরার আমার সন্তানের মতো ছিল। তোমাদের যেমন কষ্ট লাগছে, তার মৃত্যুতে আমারও অনেক খারাপ লেগেছে। এটি আমি মেনে নিতে পারিনি। তার মৃত্যুতে দুঃখ তোমরা পেয়েছ, আমিও পেয়েছি। আমরা সবাই মর্মাহত। আমার কিছুটা ভুল হয়েছে, আমি তোমাদের কাছে ক্ষমা প্রার্থনা করছি।

বক্তব্যের শুরুতে তিনি বলেন, আবরার হত্যার জন্য আমরা মর্মাহত। আবরার আমাদের প্রিয় ছাত্র। আবরার তোমাদের ভাই। আমার সন্তান। আমি তোমাদের ১০ দফা দাবি গতকাল নীতিগতভাবে মেনে নেয়েছি।

শিক্ষার্থীদের দাবি অনুযায়ী ফাহাদের পরিবারকে ক্ষতিপূরণ দেওয়া হবে উল্লেখ করে তিনি বলেন, অবরারের পরিবারের ক্ষতিপূরণের ব্যাপারে নোটিশের মাধ্যমে জানিয়ে দেবো। এজন্য যেভাবে কাজ করা দরকার আমরা করবো।

বুয়েট ভিসি বলেন, আমার জানা নেই এত দ্রুত সময়ের মধ্যে কোনো মামলায় এতজন আসামি আটক করা হয়েছে কিনা। আমি ওই ভোররাত থেকে কাজ করেছি। আমি আবরার হত্যার ব্যাপারে ডিআইজির সঙ্গে কথা বলেছি। এ হত্যায় আমি উদ্বিগ্ন ও মর্মাহত।

‘হত্যাকাণ্ডের পর পুলিশ আলামত নিয়ে গেছে। হত্যার আলামত নিয়ে যাওয়ার পর আমি তাদের সঙ্গে যোগাযোগ করেছি। তারা আমাদের আন্তরিকভাবে সহযোগিতা করেছেন। আবরার তোমাদের ভাই আমার সন্তান। আমি দেরি করে তোমাদের সামনে এসেছি, আমি দুঃখপ্রকাশ করছি এবং ক্ষমা চাচ্ছি।

এই বিভাগের আরো খবর