বুধবার   ১৮ সেপ্টেম্বর ২০১৯   আশ্বিন ৩ ১৪২৬   ১৮ মুহররম ১৪৪১

বরগুনার আলো
ব্রেকিং:
রিফাত হত্যা : পলাতক ৯ জনের বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা রোহিঙ্গা সংকট : ত্রিপক্ষীয় বৈঠকে বসছে চীন-মিয়ানমার-বাংলাদেশ আমাদের কাজই হচ্ছে জনগণকে সেবা দেয়া : প্রধানমন্ত্রী রোহিঙ্গা ইস্যুতে চীন বাংলাদেশের পক্ষে: মোমেন আজ গাজীপুর যাবেন প্রধানমন্ত্রী পরিবেশ দূষণ: ৪ প্রতিষ্ঠানকে কোটি টাকা জরিমানা স্বর্ণজয়ী রোমান সানার মায়ের চিকিৎসার দায়িত্ব নিলেন প্রধানমন্ত্রী আরো দু’টি বোয়িং বিমান কেনার ইঙ্গিত দিলেন প্রধানমন্ত্রী কারাবন্দির তথ্য ডাটাবেজে থাকবে: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অপ্রতিরোধ্য গতিতে এগিয়ে যাচ্ছে দেশ: প্রধানমন্ত্রী অত্যাধুনিক প্রযুক্তির ‘রাজহংস’ উদ্বোধন করলেন প্রধানমন্ত্রী গরিবের ঘরবাড়ি গ্রাম যেন ভাঙা না হয়: প্রধানমন্ত্রী দুই মাসে এডিপি বাস্তবায়নের হার বেড়েছে ৪.৪৮ শতাংশ উদ্বোধনের দিনেই পদ্মাসেতুতে ট্রেন চলবে: রেলমন্ত্রী ৮ হাজার ৯৬৮ কোটি ৮ লাখ টাকার প্রকল্প একনেকে অনুমোদন ভারতীয় কোস্টগার্ড ডিজির সঙ্গে রীভা গাঙ্গুলির বৈঠক ইসির চুরি যাওয়া ল্যাপটপ উদ্ধার, আটক ৩ আজ মহান শিক্ষা দিবস প্রধানমন্ত্রী ‘রাজহংস’ উদ্বোধন করবেন আজ রোহিঙ্গা ভোটার: ইসি কর্মচারীসহ আটক ৩
১৯৮

ধেয়ে আসছে পৃথিবীর বিপদ!

প্রকাশিত: ১৪ মার্চ ২০১৯  

বিপদে পৃথিবী। ধেয়ে আসছে গ্রহাণু। আগামী ২০ মার্চ পৃথিবীর সবচেয়ে কাছে আসবে সেটি। এমনটাই জানানো হয়েছে মার্কিন মহাকাশ গবেষণা দপ্তর নাসার তরফ থেকে। এই গ্রহাণুটির নাম রাখা হয়েছে ২০১৯ ডিএন সিডি ৫। এর ব্যাস ৭৫০ ফুট বা ২৩০ মিটার। তবে সতর্কবার্তা দিলেও নাসার পক্ষ থেকে আশ্বস্ত করে বলা হয়েছে, পৃথিবীর কাছাকাছি আসলেও সংঘর্ষ হওয়ার কোনো সম্ভাবনাই নেই। পৃথিবীর কক্ষপথে সেটি প্রবেশ করবে না। তবুও আশঙ্কা কিন্তু থাকছেই।

এদিকে, পৃথিবীর কক্ষপথ ঘেঁষে ঘণ্টায় ১৬ হাজার মাইল গতিবেগে চলে গেল আরেকটি গ্রহাণু। যার নাম ২০১৯ ডিএন। এর ব্যাস ছিল ৬৫৬ ফুট বা ২০০ মিটার। শুক্রবার দুপুর নাগাদ পৃথিবী এবং গ্রহাণুটির দূরত্ব সবচেয়ে কম ছিল।

নাসার পক্ষ থেকে এই প্রসঙ্গে একটি বিবৃতিতে বলা হয়েছে, এই গ্রহাণুগুলোর মধ্যে খুব কমসংখ্যকই এমন গ্রহাণু রয়েছে, যেগুলো পৃথিবীর জন্য ভয়ঙ্কর হতে পারে। তবে এগুলোকে ভাল করে পর্যবেক্ষণ করতে পারলে লাভ আমাদের। পরে যদি কোনো গ্রহাণুর থেকে পৃথিবীর ভয় থাকে, সেক্ষেত্রে সঠিক পদক্ষেপ করা সম্ভবপর হবে।

এর আগে নাসা জানিয়েছিল, ২০১৮ এলএফ১৬ নামে একটি গ্রহাণু, যার আকার বিগ বেন ঘড়ির থেকেও দ্বিগুণ আগামী ২০২৩ সালের ৮ আগস্ট পৃথিবীর বুকে আছড়ে পড়তে পারে। তবে সেটির পৃথিবীর সঙ্গে সংঘর্ষের সম্ভাবনা ৩০ মিলিয়নে একবার। তাই এখনই ভয়ের কোনো কারণ নেই। ‌‌