• সোমবার   ০১ জুন ২০২০ ||

  • জ্যৈষ্ঠ ১৮ ১৪২৭

  • || ০৯ শাওয়াল ১৪৪১

বরগুনার আলো
ব্রেকিং:
সীমিত আকারে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলার নির্দেশনা খাদ্য উৎপাদন আরও বাড়াতে সব ধরনের প্রচেষ্টা চলছে: কৃষিমন্ত্রী সারা দেশকে লাল, সবুজ ও হলুদ জোনে ভাগ করা হবে: স্বাস্থ্যমন্ত্রী গত ২৪ ঘণ্টায় দেশে ২৩৮১ জনের করোনা শনাক্ত পুরোপুরি স্বাস্থ্যবিধি মেনে ট্রেন চলছে: রেলমন্ত্রী দেশে গত ২৪ ঘণ্টায় ২৫৪৫ জনের করোনা শনাক্ত, মৃত্যু ৪০ জন বাস ভাড়া যৌক্তিক সমন্বয়, প্রজ্ঞাপন আজই: ওবায়দুল কাদের এখনই শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খুলবো না: প্রধানমন্ত্রী ভিডিও কনফারেন্সে এসএসসির ফল প্রকাশ করলেন প্রধানমন্ত্রী আগামীকাল ১২টার পরিবর্তে ১১টায় প্রকাশ হবে এসএসসির ফল করোনায় ২৪ ঘণ্টায় ২৮ জনের মৃত্যু, শনাক্ত ১৭৬৪ পদ্মাসেতুর সাড়ে ৪ কি.মি. দৃশ্যমান, বসল ৩০তম স্প্যান পদ্মা সেতুর ৩০তম স্প্যান বসছে আজ একদিনে সর্বোচ্চ আড়াই হাজার শনাক্ত, মৃত্যু ২৩ জনের বিকেল ৪টার মধ্যে বন্ধ করতে হবে দোকান-শপিংমল দেশে ২৪ ঘণ্টায় আক্রান্ত ২ হাজার ছাড়ালো, মৃত্যু ১৫ স্বাস্থ্যবিধি মেনে ৩১ মে থেকে গণপরিবহন চালুর সিদ্ধান্ত দেশে একদিনে নতুন শনাক্ত ১৫৪১, মৃত্যু ২২ জীবন বাঁচাতে জীবিকাও সচল রাখতে হবে: কাদের ২৪ ঘণ্টায় সর্বোচ্চ ১৮৭৩ জন শনাক্ত, মৃত্যু আরও ২০ জনের
৬৩

পিপিই উৎপাদন ও রপ্তানি করতে চায় বিজিএমইএ

বরগুনার আলো

প্রকাশিত: ৩০ মার্চ ২০২০  

বিশ্বমানের চতুর্থ ধাপের পার্সোনাল প্রোটেকটিভ ইকুইপমেন্ট (পিপিই) তৈরির পাশাপাশি বিদেশে রপ্তানির পরিকল্পনা নিয়েছে তৈরি পোশাক-শিল্প মালিকদের সংগঠন বিজিএমইএ।

আগামী ছয় থেকে এক বছরের মধ্যে পিপিই সেক্টরের রপ্তানি বাজারে প্রবেশ করার পরিকল্পনা নিয়েছে সংগঠনটি।  বর্তমানে বিশ্বমানের পিপিই’র ব্যাপক চাহিদা রয়েছে।  বর্তমানে মাত্র ১১টি প্রতিষ্ঠান পিপিই তেরি করছে।  প্রতিদিনই নতুন নতুন প্রতিষ্ঠান যোগ হচ্ছে এই সেক্টরে।  বাংলাদেশ যদি শুরুতে ওই বাজার ধরতে পারে তাহলে পোশাক-শিল্প খাত আবারো ঘুরে দাঁড়াতে সক্ষম হবে বলে মনে করছেন পোশাক খাত সংশ্লিষ্টরা।

এ বিষয়ে বিজিএমইএ সভাপতি রুবানা হক বলেন, বর্তমানে বিজিএমইএ কমপক্ষে ২০ হাজার পিপিই দেওয়ার জন্য পরিকল্পনা করছে।  মূলত আমরা যা বানাচ্ছি প্রথম স্তরের পিপিই।  কিন্তু করোনার চিকিত্সা কাজে সংশ্লিষ্ট চিকিত্সক ও স্বাস্থ্যকর্মীদের প্রয়োজন তৃতীয় ও চতুর্থ স্তরের পিপিই।  আমাদের চূড়ান্ত লক্ষ্য বিশ্বমানের ওই ধরনের পিপিই তৈরি করা।   যা বিদেশে রপ্তানি করা যায়।  আমরা ইতিমধ্যে আইএলও, ডব্লিউএইচও, ডব্লিএফপি, ইউনিসেফ এবং অন্যান্য সংস্থার সাথে আলোচনা করেছি।

তিনি বলেন, তাদের কাছে মানসম্মত পিপিই উত্পাদন ও আমাদের উত্পাদন ক্ষমতাকে বৃদ্ধি করতে সহায়তা চেয়েছি। তারা প্রযুক্তিগতসহ এ সেক্টরে মার্কেট তৈরিতে সহায়তা করবে বলে আশ্বস্ত করেছে।  এই প্রচেষ্টা ইতিমধ্যে সম্পন্ন।  তাদের সহায়তায় আগামী ৬ মাস থেকে এক বছরের মধ্যে এই সেক্টরকে কাঙ্ক্ষিত মাত্রায় উন্নত করতে পারবো এবং চতুর্থ ধাপের পিপিই তৈরি করার মতো ক্ষমতা ও জ্ঞান অর্জন করবে আমাদের গার্মেন্টস খাত।

বিজিএমইএ সূত্রে আরো জানা যায়, বাংলাদেশে কোভিড-১৯ ভাইরাসের প্রকোপটি যেহেতু সত্যিই বেড়েছে।  সেখানে বাংলাদেশে পিপিই স্যুটগুলির অভাব রয়েছে।  এটি কেবল চিকিত্সক এবং নার্সদের নয়, সব হাসপাতালের কর্মীদের প্রয়োজন। বর্তমান পরিস্থিতিতে আইন প্রয়োগকারী সংস্থাগুলিসহ আরও অনেক প্রতিষ্ঠান পিপিই চাইছে। পিপিই স্যুটগুলি স্থানীয়ভাবে আমাদের পোশাক উত্পাদকদের দ্বারা তৈরি হয় না।  বিশ্বস্বাস্থ্য সংস্থা অনুযায়ী মানসম্মত পিপিই ফ্যাব্রিক আমদানি করতে হয় মূলত চীন থেকে। তদুপরি চিকিত্সায় ব্যবহারের জন্য পিপিই স্যুট তৈরি করতে হয় তবে কারখানাগুলিকে সেলাইসহ কিছু বিশেষ যন্ত্রপাতি দরকার হবে। কারখানায় জীবানুমক্ত পরিবেশও বজায় রাখতে হবে।  প্রশিক্ষণও প্রয়োজন হবে। সেক্ষেত্রে বাংলাদেশের যেকোনও কারখানার জন্য কমপক্ষে ৬ মাস বা তার বেশি সময় লাগবে।

সূত্র আরো জানায়, বর্তমানে বিজিএমইএ কমপক্ষে ২০ হাজার পিপিই দেওয়ার জন্য পরিকল্পনা করছে। মূলত আমরা যা বানাচ্ছি প্রথম স্তরের পিপিই। কিন্তু করোনার চিকিত্সা কাজে সংশ্লিষ্ট চিকিত্সক ও স্বাস্থ্যকর্মীদের প্রয়োজন তৃতীয় ও চতুর্থ স্তরের পিপিই।  আমরা যা তৈরি করছি তা বিশ্বমানের নয়। এটি মূলত শতভাগ পানিরোধী এবং পেশাদার পিপিই’র কাছাকাছি।  বর্তমান প্রেক্ষাপটে এ ধরনের পিপিই ব্যবহার করে চিকিৎসা দিতে চিকিত্সক ও স্বাস্থ্যকর্মীরা ভয় পাচ্ছে।  তারা করোনাভাইরাস প্রতিরোধে সক্ষম এমন পিপিই আশা করে। আমাদের তৈরিকৃত পোশাকগুলি ইতোমধ্যে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের মহাপরিচালক (ডিজিএইচএস) অনুমোদন দিয়েছে। বর্তমানে আমাদের অনেক সদস্য এ ধরনের পোশাক (লেভেল-১) দান করছেন। আমরা আরো কিছু ফ্রেবিক্স কেনার পরিকল্পনা করছি।

তবে বিজিএমইএ’র চূড়ান্ত লক্ষ্য বিশ্বমানের পিপিই তৈরি করে এবং বিদেশে রপ্তানি করা।  যা অত্যন্ত দ্রুততার সঙ্গে করতে চায় সংগঠনটি।

বরগুনার আলো
জাতীয় বিভাগের পাঠকপ্রিয় খবর