বুধবার   ১৯ ফেব্রুয়ারি ২০২০   ফাল্গুন ৬ ১৪২৬   ২৪ জমাদিউস সানি ১৪৪১

বরগুনার আলো
ব্রেকিং:
ধর্ষকদের ধরিয়ে দিন, কঠোর ব্যবস্থা নেবো: প্রধানমন্ত্রী টাকা না থাকলে এত উন্নয়ন কাজ করছি কীভাবে : প্রধানমন্ত্রী সব ব্যথা চেপে রেখে দেশের জন্য কাজ করছি : প্রধানমন্ত্রী ট্রেনে খোলা খাবার বিক্রি ও প্লাস্টিকের কাপ নিষিদ্ধ হচ্ছে মজুদ গ্যাসে চলবে ২০৩০ সাল পর্যন্ত : খনিজ সম্পদ প্রতিমন্ত্রী গুজব-অপপ্রচার রোধে কাজ করছে উচ্চ পর্যায়ের কমিটি : তথ্যমন্ত্রী সব কারখানায় ব্রেস্ট ফিডিং কর্নার স্থাপনের নির্দেশ আজ বাংলাদেশ-নেপাল পররাষ্ট্রমন্ত্রীর বৈঠক সরকার-জনগণের মধ্যে সম্পর্ক জোরদার করতে সাংসদের রাষ্ট্রপতির আহ্বান দেশে রাজনৈতিক স্থিতিশীলতা বিরাজ করছে : নাসিম ব্যাংকের জঙ্গি অর্থায়ন নজরদারিতে রয়েছে: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী ৪০০ মেট্রিক টন মধু রফতানির অর্ডার পেয়েছে বাংলাদেশ : কৃষিমন্ত্রী নয় বছরে সাড়ে ৯৭ হাজার কর্মকর্তা নিয়োগ : জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী দেশে মোবাইল টাওয়ার রেডিয়েশনের মাত্রা ক্ষতিকর নয় : বিটিআরসি সন্ধ্যায় বঙ্গভবনে যাচ্ছেন প্রধানমন্ত্রী খালেদার প্যারোলে মুক্তির কোনো আবেদন পাইনি: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী উহান ফেরত শিক্ষার্থীরা নজরদারিতেই থাকবেন : আইইডিসিআর রোহিঙ্গা ইস্যুতে ইন্দোনেশিয়ার সহায়তা চাইলেন ড. মোমেন ইউএনও’দের মাধ্যমে রাজাকারের তালিকা করা হবে : মোজাম্মেল হক মানবপাচারে অভিযুক্ত এমপির বিষয়ে দুদককে তদন্তের আহ্বান কাদেরের
১১১

পৃথিবীর ফুসফুস নষ্ট হলে কার্বন ডাই অক্সাইডে কালো হবে আকাশ!

বরগুনার আলো

প্রকাশিত: ১ সেপ্টেম্বর ২০১৯  

পৃথিবীর মোট প্রয়োজনীয় অক্সিজেনের ২০ শতাংশই সরবরাহ করে আমাজন রেইনফরেস্ট। এজন্যই দক্ষিণ আমেরিকার এই বনাঞ্চলকে পৃথিবীর ফুসফুস বলে আখ্যায়িত করা হয়। পৃথিবীর প্রায় ৩০ শতাংশ জীব প্রজাতি বসবাস করে এই জঙ্গলে। মানুষের জন্য সবচেয়ে মারাত্মক কিছু রোগ-ব্যধির ওষুধ আসে আমাজন থেকে। 

বলার অপেক্ষা রাখে না, আমরা যদি আমাজন রেইনফরেস্টকে সম্পূর্ণ ধ্বংস করে দেই, তবে তার ফলাফল হবে ভয়াবহ। এর প্রতিক্রিয়া এসে পড়বে পুরো বিশ্বের ওপর। এখন প্রশ্ন হচ্ছে আমরা কি আমাজন ছাড়া পৃথিবীতে টিকে থাকতে পারবো? আমাদের চিকিৎসাক্ষেত্রে এর প্রভাব কতটা ভয়াবহ হবে? এই বিশাল বনভূমি কি কখনো পুনরুদ্ধার করা সম্ভব? 

সাম্প্রতিক সময়ে আমাজনের জন্য প্রধান হুমকি হয়ে দাঁড়িয়েছে বড় মাত্রার দাবানল। কিন্তু দুঃখজনকভাবে প্রাকৃতিক দাবানল হলো আমাজন ধ্বংসের বহু কারণের মধ্যে একটি মাত্র কারণ। চাষাবাদ, খনিজ সম্পদ আহরণ ও কাঠ সংগ্রহের উদ্দেশ্যে প্রতি মিনিটে তিন-তিনটি ফুটবল মাঠের সমতুল্য আয়তনের আমাজন বনভূমি ধ্বংস করছে মানুষ। আমরা যদি এই বনভূমি ধ্বংস প্রক্রিয়া ঠেকাতে ব্যর্থ হই, আগামী ১০০ বছরের মধ্যে এই বন পুরোপুরি নিশ্চিহ্ন হয়ে যাবে। 

 

আমাজনে দাবানল

আমাজনে দাবানল

পুরো দক্ষিণ আমেরিকা মহাদেশের মোট আয়তনের প্রায় ৪০ শতাংশ জুড়ে আমাজন জঙ্গলের অবস্থান। এই মহাদেশের অর্থনীতির সিংহভাগের যোগান আসে এই বনাঞ্চল থেকে। আমাজন বনাঞ্চল একাই প্রতি বছর ৮৬ বিলিয়ন কার্বন শোষণ করে থাকে। আমাজন না থাকলে এই বিপুল পরিমাণ কার্বন পৃথিবীর পরিবেশকে দূষিত করত। 

এই পরিসংখ্যান শুনে অনেকেই মনে করবেন, আমাজন রক্ষার জন্য আমাদের সর্বোচ্চ প্রচেষ্টা করা উচিত। তবে বাস্তবতা একেবারেই ভিন্ন। ১৯৭৮ সাল থেকে এ পর্যন্ত প্রায় সাড়ে ৭ লাখ বর্গকিলোমিটার আয়তনের রেইনফরেস্ট ধ্বংস করা হয়েছে। আর এই ধ্বংসলীলার পুরোটাই মানুষের অবদান। 

আমাজন জঙ্গল পুরোপুরি ধ্বংস হয়ে গেলে পৃথিবীর বিপুল পরিমাণ জীববৈচিত্র্য একেবারেই ধূলিসাৎ হয়ে যাবে। পৃথিবীর অন্য যেকোনো বাস্তুসংস্থানের চেয়ে আমাজনের জীববৈচিত্র্য অনেক বেশি। এই অপরিসীম জীববৈচিত্র্য ধ্বংস হয়ে গেলে তার বিরূপ প্রভাব পড়বে গোটা পৃথিবীর উপর। 

 

পৃথিবীর ফুসফুস খ্যাত আমাজন জঙ্গল

পৃথিবীর ফুসফুস খ্যাত আমাজন জঙ্গল

এতো গেলো শুধুমাত্র বাস্তুসংস্থানের মতো কাঠখোট্টা বিষয়। এবার আসি খাবার ও ওষুধের কথায়। অনেকেই অবাক হবেন এটা জেনে যে, জীবনরক্ষাকারী শতশত প্রেসক্রাইবড ওষুধের কাঁচামাল আসে আমাজন থেকে। না, শুধুমাত্র ভেষজ বা হার্বাল ওষুধ নয়। ক্যান্সারের মতো মারাত্মক রোগের ওষুধের যোগান দেয় আমাজন। বিজ্ঞানীরা বিশ্বাস করেন, আমাজনের বুকে যত রোগের মহৌষধ লুকিয়ে আছে, আমরা তার মাত্র ৫ শতাংশ এখন পর্যন্ত আবিষ্কার করতে পেরেছি! 

তাই এ বনভূমি পুরোপুরি ধ্বংস হলে ওষুধের বিশাল একটি উৎস পড়ে যাবে হুমকির মুখে। চিকিৎসাবিজ্ঞানের অভাবনীয় উন্নতি শুধু থেমেই যাবে না, পিছিয়ে পড়বে অনেকাংশে। আমাজন ধ্বংস হয়ে গেলে জলবায়ু পরিবর্তনের গতি অভাবনীয় পরিমাণে বেড়ে যাবে। অক্সিজেনের উৎস হওয়া তো দূরের কথা!

এই বন ধ্বংস করে গড়ে ওঠা কারখানা থেকে নির্গত কার্বন ডাই অক্সাইডে কালো হবে পৃথিবীর আকাশ। এখন পর্যন্ত আমাজন প্রতি বছর ৯০ থেকে ১৫০ বিলিয়ন টন কার্বন শোষণ করে। আমাজন না থাকলে অক্সিজেনের সরবরাহ বন্ধ হওয়ার পাশাপাশি কার্বন ধারণের একটি বড় শোষণাগারেরও মৃত্যু হবে। অধিকাংশ গবেষকই মনে করেন, এমনটি হলে আমরা জলবায়ু পরিবর্তনের যুদ্ধে হেরে যেতে হবে। 

বরগুনার আলো