• বৃহস্পতিবার   ০৪ জুন ২০২০ ||

  • জ্যৈষ্ঠ ২১ ১৪২৭

  • || ১২ শাওয়াল ১৪৪১

বরগুনার আলো
ব্রেকিং:
৩ হাজার মেডিক্যাল টেকনোলজিস্ট নিয়োগে অনুমোদন দিলেন প্রধানমন্ত্রী মানুষকে সুরক্ষিত করতে প্রাণপণে চেষ্টা করছি: প্রধানমন্ত্রী করোনায় মৃত্যুর মিছিলে আরও ৩৫ জন, নতুন শনাক্ত ২৪২৩ গত ২৪ ঘণ্টায় করোনায় ৩৭ মৃত্যু, শনাক্ত আরও ২৬৯৫ আজ থেকে চলবে আরও ৯ জোড়া ট্রেন হাসপাতাল থেকে রোগী ফেরানো শাস্তিযোগ্য অপরাধ: তথ্যমন্ত্রী যেকোনো প্রতিবন্ধকতা মোকাবিলা করে এগিয়ে যেতে পারব: প্রধানমন্ত্রী সময় যত কঠিনই হোক দুর্নীতি ঘটলেই আইনি ব্যবস্থা: দুদক চেয়ারম্যান জেলা হাসপাতালগুলোতে আইসিইউ ইউনিট স্থাপনের নির্দেশ প্রধানমন্ত্রীর করোনা বিশ্ব বদলে দিলেও বিএনপিকে বদলাতে পারেনি: কাদের করোনায় ২৪ ঘণ্টায় ৩৭ মৃত্যু, শনাক্ত ২৯১১ সীমিত আকারে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলার নির্দেশনা খাদ্য উৎপাদন আরও বাড়াতে সব ধরনের প্রচেষ্টা চলছে: কৃষিমন্ত্রী সারা দেশকে লাল, সবুজ ও হলুদ জোনে ভাগ করা হবে: স্বাস্থ্যমন্ত্রী গত ২৪ ঘণ্টায় দেশে ২৩৮১ জনের করোনা শনাক্ত পুরোপুরি স্বাস্থ্যবিধি মেনে ট্রেন চলছে: রেলমন্ত্রী দেশে গত ২৪ ঘণ্টায় ২৫৪৫ জনের করোনা শনাক্ত, মৃত্যু ৪০ জন বাস ভাড়া যৌক্তিক সমন্বয়, প্রজ্ঞাপন আজই: ওবায়দুল কাদের এখনই শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খুলবো না: প্রধানমন্ত্রী ভিডিও কনফারেন্সে এসএসসির ফল প্রকাশ করলেন প্রধানমন্ত্রী
৮৬

পেঁয়াজের দাম বাড়িয়ে বিভ্রান্তি ছড়াচ্ছে বিএনপির সিন্ডিকেট!

বরগুনার আলো

প্রকাশিত: ৩ অক্টোবর ২০১৯  

মোকাম থেকে পাইকারি ও খুচরা বাজারে পেঁয়াজের সরবরাহ স্বাভাবিক। এরপরও সারা দেশে বেসামাল পেঁয়াজের বাজার। সংশ্লিষ্টরা মনে করছেন, বিএনপির পুরনো সেই শক্তিশালী কারসাজি চক্রই (সিন্ডিকেট) এ পরিস্থিতি তৈরি করেছে।

এ প্রসঙ্গে কচুক্ষেত বাজারের এক পেঁয়াজের আড়তদার বলেন, আমাদের বেশি দাম দিয়ে পেঁয়াজ কিনতে হচ্ছে। কিছুই করার নেই। পেঁয়াজের এই সিন্ডিকেটটি প্রায় ত্রিশ বছর পুরনো। ১৯৯১ সালে বিএনপির শাসনামলে তৈরি হওয়া এই সিন্ডিকেট এখনো সক্রিয়। তারা হুট করে পেঁয়াজের দাম বাড়িয়ে দেয়। চক্রের সদস্যরা কারসাজি করে ২০ দিনে চার ধাপে ভোক্তার পকেট থেকে কেটে নিয়েছে ন্যূনতম ৫৭২ কোটি টাকা। ভোক্তারা বলছেন, সরকার ক্যাসিনো কারবারিদের ধরছে। আশা করছি, বাজার পরিস্থিতি যে বা যারা নষ্ট করছে, তাদের বিরুদ্ধেও ব্যবস্থা নেবে সরকার।

১২ সেপ্টেম্বর দেশের বাজারে দেশি পেঁয়াজ বিক্রি হয় ৫০-৫৫ টাকা কেজি। পরদিন ভারত পেঁয়াজের রফতানি মূল্য বাড়িয়ে ৮৫২ ডলার করে। এ খবরে সেদিন দেশের বাজারে ২৫-৩০ টাকা বাড়িয়ে দেশি পেঁয়াজ বিক্রি হয় ৮০ টাকা। এই দরে পেঁয়াজ বিক্রি হয় ২৩ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত। বাণিজ্য মন্ত্রণালয় বলছে, দেশে প্রতিবছর পেঁয়াজের চাহিদা থাকে ২৪ লাখ টন। সে হিসাবে এক মাসের চাহিদা ২ লাখ টন। একদিনে চাহিদা ৬ হাজার ৬৬৬ টন। এ হিসাবে একদিনে ৩০ টাকা বাড়ানো হলে ১১ দিনে ভোক্তার পকেট থেকে কাটা হয়েছে ২১৯ কোটি ৯৭ লাখ টাকা।

২৪ সেপ্টেম্বর সংকটের কথা জানিয়ে নতুন করে ৫ টাকা বাড়িয়ে দেশি পেঁয়াজ বিক্রি হয় ৮৫ টাকায়। যা দু’দিন বিক্রি হয়। এ দু’দিনে ভোক্তার পকেট থেকে হাতিয়ে নেয়া হয়েছে অতিরিক্ত ৪৬ কোটি ৬৬ লাখ টাকা।

এরপর ২৬ সেপ্টেম্বর আরও ৫ টাকা বাড়িয়ে ৯০ টাকা বিক্রি শুরু করে বিএনপির সিন্ডিকেট। ২৯ সেপ্টেম্বর বিকাল পর্যন্ত ওই দরে বিক্রি করা হয়। বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের দৈনিক বিক্রির হিসাব অনুযায়ী, এ সময়ে প্রায় ২৬ হাজার ৫০০ টন পেঁয়াজ বিক্রি হয়েছে ওই দরে। এতে ভোক্তার পকেট থেকে সিন্ডিকেট হাতিয়ে নিয়েছে ১০৬ কোটি টাকা।

ভারত থেকে আমদানি বন্ধের অজুহাতে ২৯ সেপ্টেম্বর সন্ধ্যায় এক লাফে পেঁয়াজের দাম ৩০-৩৫ টাকা বাড়িয়ে ১২০-১২৫ টাকা বিক্রি করা হয়। মঙ্গলবার পর্যন্ত সেটি অব্যাহত ছিল। আরও দাম বেড়ে যাওয়ার আশঙ্কায় এ সময়ে ভোক্তারা সাধারণ সময়ের চেয়ে বেশি পরিমাণে পেঁয়াজ কিনেছেন।

তবে পিঁয়াজের এই সিন্ডিকেট নিয়ে সজাগ রয়েছে সরকার। ইতিমধ্যে সরকারের তরফ থেকে পেঁয়াজের দাম বাড়িয়ে কেউ বাজার অস্থিতিশীল করতে চাইলে ও সরকার নির্ধারিত দামের চেয়ে বেশি নিয়ে ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলে জানানো হয়েছে।

বরগুনার আলো
রাজনীতি বিভাগের পাঠকপ্রিয় খবর