শনিবার   ২৩ নভেম্বর ২০১৯   অগ্রাহায়ণ ৮ ১৪২৬   ২৫ রবিউল আউয়াল ১৪৪১

বরগুনার আলো
ব্রেকিং:
সরকার আলেমদের সঙ্গে নিয়ে দেশের উন্নয়ন করতে চায়: ধর্ম প্রতিমন্ত্রী নরসিংদীর এমপি বুবলীকে আওয়ামী লীগ থেকে বহিষ্কার চালের বাজার অস্থিতিশীল করলে কাউকে ছাড় নয়: খাদ্যমন্ত্রী ভারত মুক্তিযুদ্ধের সময় পাশে ছিল তা ভুলিনি: প্রধানমন্ত্রী চিকিৎসকদের নৈতিক শিক্ষা খুবই প্রয়োজন: পরিকল্পনামন্ত্রী সামাজিক মাধ্যমে গুজব বন্ধে বিধিমালা হচ্ছে- তথ্যমন্ত্রী শুক্রবারের মধ্যে যান চলাচল স্বাভাবিক হবে: কাদের ঘণ্টা বাজিয়ে খেলার উদ্বোধন করলেন শেখ হাসিনা একুশ শতকের চ্যালেঞ্জ মোকাবিলায় সশস্ত্র বাহিনীকে গড়ে তোলা হবে দেশপ্রেমে উদ্বুদ্ধ হয়ে সশস্ত্র বাহিনীকে কাজ করার আহ্বান সড়ক পরিবহন আইনের অসঙ্গতি দূর করা হবে: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী ‘বিএনপি সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে গুজব সৃষ্টি করছে’- কাদের অনার্স ২য় বর্ষের ২৫ নভেম্বরের পরীক্ষা স্থগিত কোন অপপ্রচারে কান না দিতে জনগণের প্রতি প্রধানমন্ত্রীর আহ্বান ‘গোলাপি’ যাত্রা রাঙ্গাতে কাল মাঠে নামছে বাংলাদেশ সারাবিশ্বে বাংলাদেশ এখন সম্মানের দেশ: প্রধানমন্ত্রী সশস্ত্র বাহিনী দিবসের সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রী আজ সন্ধ্যায় আ. লীগের অভ্যর্থনা উপকমিটির সভা ইউনেস্কোর সাধারণ অধিবেশনে অংশ নিলেন সংস্কৃতি প্রতিমন্ত্রী শিখা অনির্বাণে রাষ্ট্রপতি-প্রধানমন্ত্রীর শ্রদ্ধা
১৫২

পেটের ব্যথায় ২ যুবককে প্রেগন্যান্সি টেস্ট দিলেন ডাক্তার!

প্রকাশিত: ১৫ অক্টোবর ২০১৯  

‘সফদার ডাক্তার/মাথা ভরা টাক তার/খিদে পেলে পানি খায় চিবিয়ে.../ম্যালেরিয়া রোগী এলে/তার নাই নিস্তার/ধরে তারে দেয় কেচো গিলিয়ে।/আমাশার রোগী এলে/দুই হাতে কান ধরে/পেটটারে ঠিক করে কিলিয়ে।’ 

কবিতায়-গল্পে এমন আজব ডাক্তারের কথা আমাদের অজানা নয়। কিন্তু বাস্তবেও এমন আজগুবি চিকিৎসাসেবা দেওয়া ডাক্তার থাকা কী সম্ভব? বিশ্বাস করুন আর নাই করুন, সম্ভব!   

সম্প্রতি প্রচণ্ড পেট ব্যথা নিয়ে চিকিৎসকের শরণাপন্ন হন দুই যুবক। কিন্তু প্রেসক্রিপশন দেখে তাদের মাথায় রীতিমত আকাশ ভেঙে পড়ে। ওই দুই যুবককে চিকিৎসক কিনা দিয়েছেন প্রেগন্যান্সি টেস্ট! 

ভারতের ঝাড়খণ্ড রাজ্যের ছাতরা জেলার একটি সরকারি হাসপাতালে এ ঘটনা ঘটেছে। 

আন্তর্জাতিক সংবাদমাধ্যম বলছে, কয়েকদিন আগে গোপাল গাঞ্জু ও কামেশ্বর ঝানু নামে দুই যুবক পেটের ব্যথায় ছাতরার সিমারিয়া হাসপাতালে চিকিৎসক মুকেশ কুমারের কাছে যান। সব দেখে-শুনে ডাক্তার প্রেসক্রিপশনে লেখেন তাদের প্রেগন্যান্সি টেস্ট করাতে হবে। শুধু তাই নয়, একই সঙ্গে তাদের এইচআইভি ও হিমোগ্লোবিন টেস্ট করার পরামর্শও দেওয়া হয় ব্যবস্থাপত্রে (প্রেসক্রিপশন)।  

খবরে বলা হয়, পরবর্তীতে ওই প্রেসক্রিপশন দেখে ক্ষুব্ধ হয়ে চিকিৎসক মুখেশের বিরুদ্ধে জেলা সিভিল সার্জন অরুণ কুমার পাসওয়ানের কাছে অভিযোগ করেন দুই যুবক। এ ব্যাপারে তদন্ত চলছে বলে জানান পাসওয়ান।   

এদিকে প্রেসক্রিপশনে উল্লেখ থাকলেও, এমন কিছু লেখার কথা অস্বীকার করেছেন অভিযুক্ত চিকিৎসক। 

ভারতে এ ধরনের ঘটনা এটাই প্রথম নয়। এর আগেও চলতি বছরের জুলাই মাসে পূর্ব সিংভূম জেলায় আরেক ডাক্তার পেটের ব্যথায় এক নারীকে কন্ডম ব্যবহারের প্রেসক্রিপশন দেন। সেটি নিয়ে ওষুধ কেনার উদ্দেশ্যে ফার্মাসিতে যাওয়ার পরই ওই নারী কন্ডমের ব্যাপারটি জানতে পারেন। 

এই বিভাগের আরো খবর