শুক্রবার   ২০ সেপ্টেম্বর ২০১৯   আশ্বিন ৪ ১৪২৬   ২০ মুহররম ১৪৪১

বরগুনার আলো
ব্রেকিং:
ছাত্রলীগের পর যুবলীগকে ধরেছি : প্রধানমন্ত্রী ছাত্রলীগকে সংযমের সঙ্গে চলার নির্দেশ প্রধানমন্ত্রীর প্রধানমন্ত্রীর সাথে যুক্তরাজ্য প্রতিনিধি দলের সাক্ষাত অবৈধ জুয়ার আড্ডা বা ক্যাসিনো চলতে দেওয়া হবে না: ডিএমপি কমিশনার পটুয়াখালীতে ধর্ষণ মামলার বাদীকে পেটানো প্রধান আসামিসহ গ্রেপ্তার-৪ শাহজালালে বিমানের জরুরি অবতরণ শুক্রবার নিউইয়র্ক যাচ্ছেন প্রধানমন্ত্রী রাজধানীর তিনটি ক্যাসিনোতে র‌্যাবের অভিযান জিম্বাবুয়েকে হারিয়ে ত্রিদেশীয় সিরিজের ফাইনালে বাংলাদেশ টস হেরে ব্যাটিং এ বাংলাদেশ রিফাত হত্যা : পলাতক ৯ জনের বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা রোহিঙ্গা সংকট : ত্রিপক্ষীয় বৈঠকে বসছে চীন-মিয়ানমার-বাংলাদেশ আমাদের কাজই হচ্ছে জনগণকে সেবা দেয়া : প্রধানমন্ত্রী রোহিঙ্গা ইস্যুতে চীন বাংলাদেশের পক্ষে: মোমেন আজ গাজীপুর যাবেন প্রধানমন্ত্রী পরিবেশ দূষণ: ৪ প্রতিষ্ঠানকে কোটি টাকা জরিমানা স্বর্ণজয়ী রোমান সানার মায়ের চিকিৎসার দায়িত্ব নিলেন প্রধানমন্ত্রী আরো দু’টি বোয়িং বিমান কেনার ইঙ্গিত দিলেন প্রধানমন্ত্রী কারাবন্দির তথ্য ডাটাবেজে থাকবে: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অপ্রতিরোধ্য গতিতে এগিয়ে যাচ্ছে দেশ: প্রধানমন্ত্রী
৫৪

পৌণে দুশো বছর পরও সাগরতলে অবিকৃত ফ্রাঙ্কলিনের জোড়া জাহাজ

প্রকাশিত: ৪ সেপ্টেম্বর ২০১৯  

 ইংল্যান্ড থেকে পৃথিবীর উত্তর-পশ্চিম কোণ বরাবর নতুন পথ খুঁজতে সমুদ্রাভিযানে বের হন ব্রিটিশ নাবিক জন ফ্রাঙ্কলিন। ১৮৪৫ সালে তিনি এরিবাস ও টেরর নামে ২টি জাহাজ নিয়ে রওনা দিয়েছিলেন। কিন্তু হঠাৎ রহস্যজনকভাবে ২টি জাহাজসহ নিখোঁজ হন ফ্রাঙ্কলিনসহ ১২৯ যাত্রী। এর ১৭৪ বছর পর জট খুলছে রহস্যে মোড়া সেই সমুদ্রাভিযানের। ২০১৪ ও ২০১৬ সালে ওই ২টি জাহাজের খোঁজ পাওয়া যায়। দূরনিয়ন্ত্রিত যন্ত্র দিয়ে সেগুলোর ভেতরের পরিস্থিতি দেখেন বিজ্ঞানীরা। তারা দেখতে পান, জাহাজের ভেতরের জিনিসপত্র ভালো অবস্থায় রয়েছে। আর তাই বিজ্ঞানীদের ধারণা, পরীক্ষা-নিরীক্ষা চালালে ওই ২ জাহাজের যাত্রীদের শেষদিনগুলোর পরিস্থিতি এবং সে সময় অভিযানে ওই ২ জাহাজ কী কী পর্যবেক্ষণ করেছিলো, তা জানা সম্ভব হবে। 

জন ফ্রাঙ্কলিন ব্রিটিশ রয়্যাল নেভির কর্মকর্তা ছিলেন। বাষ্পচালিত ইঞ্জিনের ওই ২ জাহাজে ৩ বছরের খাবার মজুদ ছিলো। ইতিহাস থেকে জানা যায়, ইউরোপ থেকে ১৮৪৫ সাল পর্যন্ত যতগুলো সমুদ্রাভিযান হয়েছিলো, তার মধ্যে এটাই ছিলো সবচেয়ে সুপরিকল্পিত। স্কটল্যান্ডের অর্কনেদ্বীপ ও গ্রিনল্যান্ডে নোঙর ফেলার পর ওই ২ জাহাজ আর্কটিক কানাডার উদ্দেশে রওনা দেয়। তাদের পরিকল্পনা ছিলো আর্কটিক কানাডার বিভিন্ন প্রণালির গোলকধাঁধা ভেদ করে প্রশান্ত মহাসাগরে পৌঁছানো।