শুক্রবার   ২৮ ফেব্রুয়ারি ২০২০   ফাল্গুন ১৫ ১৪২৬   ০৪ রজব ১৪৪১

বরগুনার আলো
ব্রেকিং:
খালেদা জিয়ার জামিন আবেদন খারিজ বঙ্গবন্ধু অসাম্প্রদায়িক বাংলাদেশ দিয়েছেন : স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী মশা যেন ভোট খেয়ে না ফেলে, নতুন মেয়রদের প্রধানমন্ত্রী তাপস-আতিককে শপথ পড়ালেন প্রধানমন্ত্রী আমার কাছে রিপোর্ট আসছে, কাউকে ছাড়ব না : প্রধানমন্ত্রী দ্বিতীয় কিস্তির ২৭ কোটি ৬০ লাখ টাকা বিটিআরসিকে দিল রবি মাধ্যমিক পর্যন্ত বিজ্ঞান বাধ্যতামূলকের নির্দেশ প্রধানমন্ত্রীর বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর ওপর নজরদারি বাড়াতে বললেন প্রধানমন্ত্রী বরগুনায় ওয়ারেন্ট ভুক্ত দুই আসামী গ্রেপ্তার আজকের স্বর্ণপদক প্রাপ্তরা ২০৪১ এর বাংলাদেশ গড়ার কারিগর যে কোন অর্জনের পেছনে দৃঢ় মনোবল এবং আত্মবিশ্বাস গুরুত্বপূর্ণ ‘প্রধানমন্ত্রী স্বর্ণপদক’ পেলেন ১৭২ শিক্ষার্থী আজ ১৭২ শিক্ষার্থী প্রধানমন্ত্রী স্বর্ণপদক পাচ্ছেন অশান্ত দিল্লিতে কারফিউ, নিহত ১৭ পিকে হালদারসহ ২০ জনের ব্যাংক হিসাব জব্দের আদেশ বহাল ৭ মার্চ জাতীয় দিবস ঘোষণা করে হাইকোর্টের রায় ১৪ দিনেই ভালো হচ্ছেন করোনা রোগী : আইইডিসিআর মুশফিক-নাঈমে ইনিংস ব্যবধানে দূর্দান্ত জয় টাইগারদের পিলখানা ট্র্যাজেডি দিবস আজ রিফাত হত্যা মামলার আসামি সিফাতের বাবা গ্রেফতার
১৫৬

বরগুনার উপকূলে ঝাঁকে ঝাঁকে ধরা পড়ছে রুপালি ইলিশ

বরগুনার আলো

প্রকাশিত: ৩ আগস্ট ২০১৯  

উপকূলীয় বরগুনা জেলার বেতাগীর বিষখালি নদীতে জাল ফেললেই জেলেদের জালে ধরা পরছে ঝাঁকে ঝাঁকে রুপালি ইলিশ। ইলিশ শিকারে নিষেধাজ্ঞার টানা ৬৫ দিন পর এবার উপকূলীয় জেলেদের মুখে হাসি ফুটেছে।

দীর্ঘ অলস সময় কাটানোর পর এখন তারা ইলিশ আহরণের কর্মযজ্ঞে ব্যস্ত। বৈরী আবহাওয়াকে উপেক্ষা করেও মাছ শিকারে মরিয়া বিষখালির জেলেরা।

শুধু বিষখালি নয় বঙ্গোপসাগরে এবার বেশি পরিমাণ ইলিশ ধরা পরায় উপকূলীয় জেলা বরগুনার বেতাগী, বামনা, পাথরঘাটার জেলে এবং মৎস্য ব্যবসায়ীদের দিন কাটছে ব্যস্ততায়।

অপরদিকে ইলিশ বেশি পাওয়ায় দামও কমে আসছে, এতে স্বস্তি ফিরেছে ক্রেতাদের মনে।

বেতাগী উপজেলা মৎস্য অফিস সূত্রে জানা গেছে, প্রতি বছর সরকার ইলিশের উৎপাদন বৃদ্ধির লক্ষ্যে ১২ অক্টোবর থেকে ২ নভেম্বর পর্যন্ত ইলিশ শিকারে নিষেধাজ্ঞা জারি করেন। কারণ এ সময়ে গভীর সাগর থেকে নদীর মোহনায় এসে ডিম দেয় মা ইলিশ।

অন্যান্য বছরের তুলনায় এ বছরের নিষেধাজ্ঞার পদ্ধতি কিছুটা ভিন্ন ছিল। ২০ মে থেকে ২৩ জুলাই পর্যন্ত টানা ৬৫ দিন ইলিশ শিকারে নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়েছিল। এ নিয়ে হতাশা আর ক্ষোভে মুখ থুবড়ে পরেছিল বিষখালি নদী পাড়ের জেলেরা।

পুরো ৬৫ দিনই বেকার সময় পার করতে হয়েছে জেলেদের। জেলেদের দাবি ছিল ডিম দেওয়ার সঠিক সময় নির্ধারণ করে ৬৫ দিনের নিষেধাজ্ঞা কমিয়ে আগের মতো ২২ দিন করার।

উপজেলার চরখালী এলাকার জেলে ফোরকান মিয়া জানান, বর্তমানে নদীতে জাল ফেললেই মাছ ওঠে, সবাই মিলে নদী পেরিয়ে সাগরে গেলে ঝাঁকে ঝাঁকে ইলিশ পাওয়া যায়। নদী ও সাগরের মোহনায় গেলে একেকটি বড় জেলে ট্রলারে প্রতিদিন ১০০-২০০ ইলিশ ধরা পড়ে; যা ৪০ থেকে ৫০ হাজার টাকা বিক্রি করা যায়।

তিনি আরও বলেন, সাগরে এভাবে ইলিশ ধরা পড়লে খুব অল্প দিনেই দাদনের ঋণ শোধ করা যাবে। সব জেলের সংসারের অভাব দূর হবে। তবে আবার হঠাৎ করে যদি ইলিশের পরিমাণ কমে যায় তাহলে জেলেদের দুঃখ-দুর্দশার শেষ থাকবে না। কারণ এ সব এলাকার জেলেদের বিকল্প কোনো আয়ের সুযোগ নেই।

বেতাগী উপজেলা মৎস্য কর্মকর্তা মো. মোস্তফা আল রাজিব বলেন, ৬৫ দিন নিষেধাজ্ঞা থাকাকালীন সময়ে বেতাগীর জেলেরা ইলিশ শিকার থেকে বিরত থেকেছেন। এ জন্য বেতাগী উপজেলা মৎস্য দফতর ইলিশ রক্ষায় মডেল হিসেবে’প্রধানমন্ত্রীর হাত থেকে জাতীয়ভাবে পুরস্কারও পেয়েছেন। আর যথাসময়ে ইলিশ রক্ষার কারণেই বর্তমানে নদী ও সাগরে ঝাঁকে ঝাঁকে রূপালী ইলিশ ধরা পড়ছে।

তিনি বলেন, বর্তমানে যেভাবে ইলিশের দেখা মিলছে এভাবে কয়েক দিন মাছ ধরা পড়লে তাতে জেলেদের দুর্দশা থাকার কথা নয়। আমরা মনে করি, এভাবে সামনের কয়েক মাস প্রচুর ইলিশ ধরা পড়বে।

বরগুনার আলো
এই বিভাগের আরো খবর