রোববার   ০৫ এপ্রিল ২০২০   চৈত্র ২১ ১৪২৬   ১১ শা'বান ১৪৪১

বরগুনার আলো
ব্রেকিং:
বেসরকারি হাসপাতাল চিকিৎসা না দিলেই ব্যবস্থা: স্বাস্থ্যমন্ত্রী প্রতি উপজেলা থেকে নমুনা সংগ্রহ করার নির্দেশ প্রধানমন্ত্রীর মানুষের পাশে না দাঁড়িয়ে সমালোচনা করছে বিএনপি : কাদের দেশে আক্রান্তদের মধ্যে এ পর্যন্ত ২৬ জন সুস্থ : স্বাস্থ্যমন্ত্রী সেনাবাহিনী কতদিন মাঠে থাকবে সরকার বিবেচনা করবে: সেনাপ্রধান করোনায় খাদ্য ঘাটতি হবে না : কৃষিমন্ত্রী ভিডিও কনফারেন্সে বক্তব্য রাখ‌ছেন প্রধানমন্ত্রী আজ সকালে ৬৪ জেলার কর্মকর্তাদের সঙ্গে প্রধানমন্ত্রীর কনফারেন্স পিপিই যেন নষ্ট না হয়, সেদিকে খেয়াল রাখতে হবে: স্বাস্থ্যমন্ত্রী করোনা মোকাবিলায় সরকার জনগণের পাশে আছে -প্রধানমন্ত্রী ছুটিতে কর্মস্থল ছাড়া যাবে না : সুপ্রিম কোর্ট প্রশাসন করোনা সংকটকালে জনগণের পাশে থাকবে আ.লীগ: কাদের আমি করোনায় আক্রান্ত হইনি : স্বাস্থ্যমন্ত্রী বাংলাদেশে ২৪ ঘণ্টায় করোনা আক্রান্ত নেই : আইইডিসিআর পদ্মা সেতু‌তে বসলো ২৭তম স্প্যান, দৃশ্যমান হলো ৪ হাজার ৫০ মিটার সব পোশাক কারখানা বন্ধের নির্দেশ পবিত্র শবে বরাত ৯ এপ্রিল অতি প্রয়োজন ছাড়া ঘরের বাইরে যাবেন না : প্রধানমন্ত্রী জাতির উদ্দেশে ভাষণ দিচ্ছেন প্রধানমন্ত্রী মুক্তি পেলেন খালেদা জিয়া
১৬

বরগুনায় অস্ত্র মামলায় একজনের যাবজ্জীবন

বরগুনার আলো

প্রকাশিত: ১৫ মার্চ ২০২০  

বরগুনায় অস্ত্র মামলায় সজিব খান নামে এক ব্যক্তিকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দিয়েছে আদালত। একই সঙ্গে অস্ত্র আইনের অন্য একটি ধারায় তাকে সাত বছরের সশ্রম কারাদণ্ড দেয়া হয়েছে।

স্পেশাল ট্রাইব্যুনালের বিচারক এ.ই.এম ইসমাইল হোসেন রোববার বেলা সাড়ে ১১টার দিকে এ রায় ঘোষণা করেন। রায় ঘোষণার সময় আসামি সজিব খান আদালতে উপস্থিত ছিলেন।

সাজাপ্রাপ্ত সজিব খান বেতাগী উপজেলার উত্তর করুনা এলাকার শাহাজান হাওলাদারের ছেলে।

মামলার নথি সূত্রে জানা গেছে, গত ২০১৪ সালের ৩ জানুয়ারি বরগুনা বেতাগী উপজেলার কাজিরহাট বাজারে নান্নু নামের একটি ভাতের হোটেলে অভিযান চালিয়ে নাইন এমএম পিস্তলসহ তিন রাউন্ড গুলি উদ্ধার করা হয়। পরে জিজ্ঞাসাবাদের ভিত্তিতে বরগুনা টাউন হল বঙ্গবন্ধু বাস স্টেশন এলাকা থেকে আফাং এর বাসা থেকে একটি বিদেশি পিস্তল উদ্ধার করা হয়।

এরপরে ২০১৪ সালে ২০ মে সজিব খানকে অভিযুক্ত করে একটি অভিযোগপত্র গঠন করা হয়। রাষ্ট্র ও আসামিরপক্ষের সাক্ষী শেষে অভিযোগ প্রমাণিত হওয়ায় আসামি সজিব খানকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড সঙ্গে আরো সাত বছরের কারাদণ্ড দেয়া হয়।

বরগুনার আলো
এই বিভাগের আরো খবর