বৃহস্পতিবার   ২৪ অক্টোবর ২০১৯   কার্তিক ৮ ১৪২৬   ২৪ সফর ১৪৪১

বরগুনার আলো
ব্রেকিং:
ধর্মঘট প্রত্যাহার, শনিবার অনুশীলনে যোগ দেবেন সাকিবরা বরগুনায় কলেজছাত্রী হত্যায় বিএনপির সাবেক নেতার যাবজ্জীবন তুরস্কে ফিকাহ-বিষয়ক আন্তর্জাতিক সম্মেলনে বাংলাদেশি গবেষক ডিসেম্বরে মুক্তি পাচ্ছে পরমব্রত-কোয়েলের নতুন সিনেমা মশা-ছারপোকা দূর করবে কর্পূর অছাত্ররা কোনোভাবেই ঢাবির হলে অবস্থান করতে পারবে না-উপাচার্য ধনী-দরিদ্রের বৈষম্য কমার প্রত্যাশা পরিকল্পনামন্ত্রীর আগামী ১ নভেম্বর থেকে সড়ক পরিবহন আইন কার্যকরে গেজেট প্রকাশ ঢাকার দুই সিটি নির্বাচন জানুয়ারিতে! ২০৪০ সালের মধ্যে বাংলাদেশ হবে অধূমপায়ী রাষ্ট্র : তথ্যমন্ত্রী মহাকাশে তোলা সেলফি প্রকাশ বাংলাদেশ সফরে জাপানের সম্রাটকে আমন্ত্রণ রাষ্ট্রপতির এমপিও: ১৭৫ ভোকেশনাল প্রতিষ্ঠানের তালিকা  পরিবেশ সুরক্ষা নিশ্চিতে সরকার কাজ করছে : গণপূর্তমন্ত্রী প্রযুক্তি ব্যবহারে আফ্রিকায় ‘কৃষি বিপ্লব’ দুদক এখন অনেক শক্তিশালী: কমিশনার মোজাম্মেল ‘পায়ের বেড়ি’ খুলছে না সৌদি নারীদের বৃক্ষরোপণে ইসলামের উৎসাহ ও নির্দেশনা পদ্মাসেতুর অবশিষ্ট জমিতে মিলিটারি ফার্ম করবে সেনাবাহিনী শাহজালালে ১ কোটি ২০ লাখ টাকার স্বর্ণসহ যাত্রী আটক

বিএনপির এমপিদের একহাত নিলেন গয়েশ্বর!

প্রকাশিত: ৭ অক্টোবর ২০১৯  

বিএনপির কারান্তরীণ চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তিতে কোনো আন্দোলন গড়ে তুলতে না পেরে দিকভ্রান্ত হয়ে পড়েছে বিএনপি। সম্প্রতি কারামুক্তির উপায় হিসেবে বিএনপির এমপিরা খালেদা জিয়ার সঙ্গে দেখা করে প্যারোলে মুক্তির প্রসঙ্গ সামনে আনেন। যার দরুন রাজনৈতিক মহলে সমালোচিত হচ্ছে বিএনপি।

যদিও বিএনপির শীর্ষ নেতারা বলছেন, কোনোভাবেই বেগম জিয়ার মুক্তি প্যারোলে নিতে রাজি নয় বিএনপি। এ নিয়ে দলের মধ্যে বাড়ছে বিভ্রান্তি। একপক্ষ বলছে প্যারোল, অন্যপক্ষ বলছে ‘না’।

এমন প্রেক্ষাপটে বিএনপির এমপিদের প্যারোল নিয়ে বালখিল্যে বিরক্তি প্রকাশ করে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য গয়েশ্বর চন্দ্র রায় অসন্তোষ প্রকাশ করেছেন। জানা গেছে, দুর্নীতির দুই মামলায় দণ্ড নিয়ে কারাবন্দী খালেদা জিয়াকে দেখে এসে বিএনপির সাত সংসদ সদস্য তার জামিনের জন্য প্রধানমন্ত্রীর হস্তক্ষেপ কামনা করেন। তারা এটাও বলেন যে মুক্তি পেলে খালেদা জিয়া বিদেশে যাবেন।

বিএনপি চেয়ারপারসনের মুক্তির দাবিতে শনিবার (৫ অক্টোবর) জাতীয় প্রেস ক্লাবে আয়োজিত এক আলোচনা সভায় গয়েশ্বর চন্দ্র রায় বিরক্তি প্রকাশ করে বলেন, ‘অতি দায়িত্ব পালন করতে গিয়ে আমাদের দলের সাংসদরা ইতিমধ্যে ম্যাডামের সাথে হাসপাতালে দেখা করেছেন। উনাদেরকে নিয়ে অনেকে অনেক কথা বলছে। উনারা যে খুব বেশি আন্তরিক ম্যাডামের মুক্তির জন্য, সেটা আমাদের সামনে এবং জনগণের সামনে আশ্বস্ত করার চেষ্টা করেছেন। আর সেটি করতে গিয়ে- ম্যাডামের (খালেদা জিয়া) যে আপসহীন উপাধিটা আছে- এটা খারিজ করতে গিয়ে ধরা পড়েছে।’

তিনি আরও বলেন, যে উদ্দেশ্যে তাদের সংসদে পাঠানো হলো তা না করে তারা ম্যাডামের কাছে গিয়ে প্যারোলের বার্তা নিয়ে এসেছেন- এটা তাদের জন্য লজ্জার। তারা অথর্ব রাজনীতির উদাহরণ দিচ্ছে প্রতিনিয়ত। আসলে তাদের নিয়ে কথা বলার মতো আগ্রহও হারিয়ে ফেলেছি আমরা। তাদের কাছে যে প্রত্যাশা জনগণের ছিলো তা ধূলায় মিশিয়ে দিয়েছে। কোথায় তারা মুক্তির জন্য বলিষ্ঠ ভূমিকা পালন করবে, তা না করে তারা প্যারোলের বার্তা নিয়ে এসেছেন। এটি নিতান্তই লজ্জার।

এই বিভাগের আরো খবর