• বৃহস্পতিবার   ০৯ জুলাই ২০২০ ||

  • আষাঢ় ২৫ ১৪২৭

  • || ১৮ জ্বিলকদ ১৪৪১

বরগুনার আলো
ব্রেকিং:
করোনায় ২৪ ঘণ্টায় ৪১ মৃত্যু, শনাক্ত ৩৩০৭ এইচএসসিতে ভর্তি কার্যক্রম শুরু শিগগিরই: শিক্ষামন্ত্রী করোনায় মৃত প্রবাসীর পরিবার পাবে ৩ লাখ টাকা করে: প্রধানমন্ত্রী করোনায় ২৪ ঘণ্টায় ৪৬ মৃত্যু, শনাক্ত ৩৪৮৯ করোনা শনাক্তে প্রতারণায় কঠোর অবস্থানে সরকার : ওবায়দুল কাদের করোনায় ২৪ ঘণ্টায় ৫৫ মৃত্যু, শনাক্ত ৩০২৭ চলে গেলেন বরেণ্য সংগীতশিল্পী এন্ড্রু কিশোর করোনায় আরও ৪৪ মৃত্যু, শনাক্ত ৩২০১ ভিসার মেয়াদ বাড়ালো সৌদি আরব: পররাষ্ট্রমন্ত্রী গত ২৪ ঘণ্টায় করোনায় আক্রান্ত ২৭৩৮, মৃত্যু ৫৫ কাউকেই ভূতুড়ে বিদ্যুৎ বিল পরিশোধ করতে হবে না: বিদ্যুৎ সচিব আজ থেকে অধস্তন আদালতে আত্মসমর্পণ করা যাবে করোনায় ২৪ ঘণ্টায় ২৯ মৃত্যু, শনাক্ত ৩২৮৮ বেতন-ভাতা পরিশোধে মালিকরা সহমর্মিতার নজির দেখাবেন : কাদের পাটকল শ্রমিকরা দুই ধাপে সব পাওনা পাবে: পাটমন্ত্রী গত ২৪ ঘণ্টায় করোনায় আক্রান্ত ৪০১৯, মৃত্যু ৩৮ চালের বাজার অস্থিতিশীল করলে কঠোর ব্যবস্থা : খাদ্যমন্ত্রী গত ২৪ ঘণ্টায় করোনায় আক্রান্ত ৩৭৭৫, মৃত্যু ৪১ যত্রতত্র পশুরহাটের অনুমতি দেওয়া যাবে না- ওবায়দুল কাদের জঙ্গিবাদ দমনে সফলতা ধরে রাখতে কাজ করে যাচ্ছি: র‌্যাব ডিজি
২২৮

বিদ্যাসাগরের ২০০ বছরের পুরোনো সিন্দুকে যা পাওয়া গেল

বরগুনার আলো

প্রকাশিত: ৩০ নভেম্বর ২০১৯  

উপমহাদেশের ইতিহাসে বিদ্যা সাগর এক অবিস্মরণীয় নাম। পিছিয়ে পড়া ভারতবাসীকে এগিয়ে নেয়ার ক্ষেত্রে তার অবদান সবারই জানা।

২০০ বছর পরও তিনি বেঁচে আছেন তার কাজের ভেতর দিয়ে। এদিকে সম্প্রতি বিদ্যা সাগরের কিছু অমূল্য নিদর্শনের সন্ধান পাওয়া গেছে। এর মধ্যে একটি হচ্ছে সিন্দুক। খুঁজে পাওয়ার পর  দীর্ঘ চার ঘণ্টার চেষ্টায় খোলা সম্ভব হয় ২০০ বছরের পুরোনো সেই সিন্দুক।

ঐতিহ্যশালী সংস্কৃত কলেজ ও বর্তমানের সংস্কৃত বিশ্ববিদ্যালয়ের গুদাম ঘর থেকে উদ্ধার হওয়া সেই সিন্দুক থেকে মিলল নানা মূল্যবান নথিপত্র, রুপার পদক, চেক ইত্যাদি। তবে তার মধ্যে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ হল ঈশ্বরচন্দ্র বিদ্যাসাগরের তৈরি বিধবাদের জন্য তৈরি ফান্ডের নথি।

ব্রিটিশ আমলে বিদ্যাসাগরের হাত ধরেই বিধবা বিবাহের আইন পাশ হয়েছিল। পুরুষতান্ত্রিক সমাজে যেখানে বিধবাদের দ্বিতীয়বার বিয়ের কথা ভাবাও ছিল পাপ, সেখানে বিধবা বিবাহ প্রবর্তন করতে সফল হয়েছিলেন বিদ্যাসাগর।

শুধু তাই নয়, বিধবাদের সাহায্যার্থে  অর্থও বরাদ্দ করা হয়েছিল, সে প্রমাণও এবার দিল ২০০ বছরের পুরোনো সিন্দুকটি।

বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য সোমা বন্দ্যোপাধ্যায় সংবাদমাধ্যমের সামনে তুলে ধরেন একটি পুরোনো নথি। মুক্তকেশী দেবীর বিধবা ফান্ড নামাঙ্কিত সেই নথিতে কোনো স্বামীহারা মহিলা কত অর্থ পেয়েছেন, তার বিস্তারিত বর্ণনা রয়েছে।

শ্রীধরপুর, জেলা বর্ধমানের উল্লেখ রয়েছে সেখানে। নথিটি ১৯৫৬ সালের বলে জানানো হয়েছে। অর্থাৎ ফান্ডটি যে দীর্ঘদিন চালু ছিল, এ তারই প্রমাণ।

এই নথির পাশাপাশি আরো বেশ কিছু মূল্যবান সম্পত্তির হিসেব সংক্রান্ত নথি মিলেছে। মিলেছে সাতটি এনভেলপ। শ্রী এ ভেঙ্কটরমন শাস্ত্রীর নামে ১৯৪৬ সালের ব্যাংকের অর্থ জমার কাগজপত্রও পাওয়া গিয়েছে সিন্দুক থেকে।

এছাড়াও তিনটা রুপার পদক উদ্ধার করা গিয়েছে। দুটি গঙ্গামণি দেবী রুপার পদক ও একটি এ এন মুখার্জি রুপার পদক পাওয়া গিয়েছে। সংস্কৃতিতে প্রথম স্থান অধিকারীকে সংস্কৃত ও প্রেসিডেন্সি কলেজ মিলে গঙ্গামণি দেবী রুপার পদকে সম্মানিত করা হতো। একটি ১৯১৯ এবং অন্যটি পদকটি ১৯৬৫ সালের পদক।

এ এন মুখার্জি রুপার পদকটি দেয়া হতো ইংরেজি ভাষার সর্বোচ্চ নম্বর প্রাপককে। বাকি এনভেলপগুলি ভিসির অনুমতি নিয়ে খোলা হবে। এই সমস্ত নথির ঐতিহাসিক মূল্য ঠিক কতটা, তা নিয়ে বিশেষজ্ঞদের সঙ্গে আলোচনা করে জানানো হবে বলে জানিয়েছেন উপাচার্য।

শুক্রবার বেলা ১২ টার আগে থেকে পুরোনো সিন্দুকটি খোলার চেষ্টা চলে। চাবি তৈরি করেও তা খোলা যায়নি। চার ঘণ্টার চেষ্টায় শেষমেশ তা খোলে।

গুদামে অনেক আবর্জনা ছিল বলে হয়তো ঢাকা পড়ে গিয়েছিল সিন্দুকটি। এছাড়াও মেলে একটি দেয়াল সিন্দুক। যেখানে ৮৫টি পাস বই মিলেছে। সেগুলি বেশির ভাগই পোস্ট অফিসের বই। ১৯৩০ সালের। সেখান থেকে স্কলারশিপের টাকা দেয়া হতো বলে মনে করা হচ্ছে।

বরগুনার আলো
আন্তর্জাতিক বিভাগের পাঠকপ্রিয় খবর