• সোমবার   ০৬ জুলাই ২০২০ ||

  • আষাঢ় ২২ ১৪২৭

  • || ১৫ জ্বিলকদ ১৪৪১

বরগুনার আলো
ব্রেকিং:
ভিসার মেয়াদ বাড়ালো সৌদি আরব: পররাষ্ট্রমন্ত্রী গত ২৪ ঘণ্টায় করোনায় আক্রান্ত ২৭৩৮, মৃত্যু ৫৫ কাউকেই ভূতুড়ে বিদ্যুৎ বিল পরিশোধ করতে হবে না: বিদ্যুৎ সচিব আজ থেকে অধস্তন আদালতে আত্মসমর্পণ করা যাবে করোনায় ২৪ ঘণ্টায় ২৯ মৃত্যু, শনাক্ত ৩২৮৮ বেতন-ভাতা পরিশোধে মালিকরা সহমর্মিতার নজির দেখাবেন : কাদের পাটকল শ্রমিকরা দুই ধাপে সব পাওনা পাবে: পাটমন্ত্রী গত ২৪ ঘণ্টায় করোনায় আক্রান্ত ৪০১৯, মৃত্যু ৩৮ চালের বাজার অস্থিতিশীল করলে কঠোর ব্যবস্থা : খাদ্যমন্ত্রী গত ২৪ ঘণ্টায় করোনায় আক্রান্ত ৩৭৭৫, মৃত্যু ৪১ যত্রতত্র পশুরহাটের অনুমতি দেওয়া যাবে না- ওবায়দুল কাদের জঙ্গিবাদ দমনে সফলতা ধরে রাখতে কাজ করে যাচ্ছি: র‌্যাব ডিজি ৩৮তম বিসিএসের চূড়ান্ত ফল প্রকাশ করোনায় ২৪ ঘণ্টায় ৬৪ মৃত্যু, শনাক্ত ৩৬৮৩ শিগগিরই আরও ৪ হাজার নার্স নিয়োগ: প্রধানমন্ত্রী করোনায় ২৪ ঘণ্টায় ৪৫ মৃত্যু, শনাক্ত ৪০১৪ অর্ধশত যাত্রী নিয়ে বুড়িগঙ্গায় লঞ্চডুবি, উদ্ধার কাজ চলছে করোনায় ২৪ ঘণ্টায় ৪৩ মৃত্যু, শনাক্ত ৩৮০৯ ফ্লাইট পরিচালনার অনুমোদন পাচ্ছে ৪ বিদেশি এয়ারলাইন্স অপরাধী ক্ষমতাবান হলেও ছাড় দেয়া হবে না: কাদের
২০৭

বিড়াল পালনে ইসলামের হুকুম

বরগুনার আলো

প্রকাশিত: ১২ ফেব্রুয়ারি ২০২০  

বিড়াল অত্যন্ত নিরীহ একটি প্রাণী। তুলতুলে গা আর নম্র স্বভাবের কারণে অনেকে বিড়াল পালতে পছন্দ করেন। আসুন জেনে নেই, বিড়াল সম্পর্কে ইসলামের কিছু বিধিবিধান।ইসলামের দৃষ্টিতে বিড়াল লালন-পালন করা জায়েজ। বিড়াল পালনে ঘরে ইঁদুরের উৎপাত কমে আসে। এছাড়া মাছের কাঁটা, ঝুটা খাবার খেয়ে আমাদের পরিবেশকেও রাখে সুন্দর। হজরত আবু হুরায়রা (রা.) বিড়াল পালন খুব পছন্দ করতেন। একারণে তার আসল নাম আব্দুর রহমান ঢাকা পড়ে হয়ে যায় আবু হুরায়রা (বিড়ালের পিতা)। রাসুলুল্লাহ (সা.) তার বিড়ালপ্রীতির কারণে এ নামেই তাকে ডাকতেন। বিড়াল হারাম প্রাণী হওয়ার কারণে এর ঝুটাও হারাম হওয়ার কথা ছিলো।

কিন্তু একটা হাদিসের কারণে ইসলামি চিন্তাবিদগণ এর ঝুটাকে হারাম থেকে নামিয়ে মাকরুহ সাব্যস্ত করেছেন। হাদিসটি হলো, হজরত কাবশা বিনতে কাব ইবনে মালিক (রা.) থেকে বর্ণিত, তিনি বলেন, ‘হজরত আবু কাতাদা (রা.) আমার নিকট আগমন করলেন। আমি তার জন্য পানিভর্তি একটি উজুর পাত্র উপস্থিত করলাম। এমন সময় একটা বিড়াল তা হতে পান করল। তিনি ঐ বিড়ালটির জন্য পাত্রটি কাত করে দিলেন, যাতে সে পান করতে পারে। কাবশা (রা.) বলেন, তখন আবু কাতাদা (রা.) দেখলেন, আমি তার দিকে অবাক হয়ে তাকিয়ে আছি। তিনি বললেন, ‘হে ভাতিজী! তুমি কি আশ্চর্য বোধ করছ? আমি বলাম হ্যাঁ। তিনি বললেন, রাসূলুল্লাহ (সা.) বলেছেন, এরা (বিড়াল) অপবিত্র নয়, এরা তোমাদের আশেপাশে বিচরণকারী এবং বিচরণকারিনী।’ (সুনানে নাসাই: ৩৪১)

তাই কোনো খাবারে যদি বিড়াল মুখ দেয় আর খাবারের মালিক ধনী হয় তাহলে ওই খাবার খাওয়া তার জন্যে মাকরুহ বা অপছন্দনীয়। আর খাবারের মালিক যদি দরিদ্র হয় তাহলে তার জন্যে খাবারটি খাওয়া জায়েজ। (ফতওয়ায়ে আলমগিরি: ৪৩: ১)

বরগুনার আলো
ধর্ম বিভাগের পাঠকপ্রিয় খবর