শনিবার   ১৮ জানুয়ারি ২০২০   মাঘ ৫ ১৪২৬   ২২ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪১

বরগুনার আলো
ব্রেকিং:
ফাইভজির স্বপ্ন বাস্তবে পরিণত হবে শিগগির: অর্থমন্ত্রী ঢাকা সিটি ভোট পিছিয়ে ১ ফেব্রুয়ারি করার সিদ্ধান্ত ইসির এসএসসি ও সমমানের পরীক্ষা পিছিয়ে ৩ ফেব্রুয়ারি সংসদের দক্ষিণ প্লাজায় সোমবার মান্নানের জানাজা এমপি আব্দুল মান্নানের মৃত্যুতে গভীর শোক রাষ্ট্রপতির পদ্মা সেতুর ২২তম স্প্যান বসছে এ মাসেই আব্দুল মান্নানের মৃত্যুতে ওবায়দুল কাদেরের শোক এমপি মান্নানের মৃত্যুতে প্রধানমন্ত্রীর শোক বয়ানে চলছে দ্বিতীয় দিনের ইজতেমা,কাল আখেরী মোনাজাত বিপিএলে প্রথম শিরোপার স্বাদ পেলো রাজশাহী আদালতে মজনুর স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে সাউন্ড সিস্টেমে জাতীয় সংগীত পরিবেশন করা যাবে ১ ফেব্রুয়ারি থেকে এসএসসি শুরু প্রথম আলোর সম্পাদকসহ ১০ জনের বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা আমরা ক্রসফায়ারকে সাপোর্ট করতে পারি না : ওবায়দুল কাদের পোশাক রপ্তানিকে ছাড়িয়ে যাবে আইসিটি : জয় বিশ্ব ইজতেমার দ্বিতীয় পর্ব শুরু কাল বিশ্ব ইজতেমার ২য় পর্বে ময়দানে আসতে শুরু করেছেন মুসল্লিরা অন্ধকার ভেদ করে আলোর পথে বাংলাদেশ: সংসদে প্রধানমন্ত্রী রিফাত হত্যা : দুই আসামি জামিনে মুক্ত
৬২

মাছ খেলেই কমবে শ্বাসকষ্ট!

প্রকাশিত: ৭ আগস্ট ২০১৯  

অ্যাজমার সমস্যায় বড় ছোট সবাই আক্রান্ত হয়ে থাকে। জানেন কি? পৃথিবী জুড়ে ৩০ কোটি মানুষ অ্যাজমায় আক্রান্ত, যা ২০২৫ সাল নাগাদ ৪০ কোটিতে পৌঁছাবে। বাংলাদেশে এ রোগে আক্রান্তের সংখ্যা প্রায় ১ কোটি ১০ লাখ। যার মধ্যে ৪০ লাখই শিশু। শ্বাসকষ্ট বা হাঁপানি জনিত রোগে কাবু হয়ে অনেকেই হোমিওপ্যাথি কিংবা অ্যালোপ্যাথি সব ধরনের ওষুধ খেয়ে থাকেন। 

তবুও সম্পূর্ণভাবে সুস্থ হওয়ার সংখ্যা খুবই কম! ছোট থেকে বড় কাউকেই রেহাই দেয় না রোগটি। কেউ কেউ আবার অনেক কম বয়সেই রোগটিতে আক্রান্ত হয়। কিন্তু, ঘরোয়া উপায়েই মিলতে পারে সমাধান। খাদ্যতালিকাতে যোগ করতে পারেন স্যামন, ট্রাউট কিংবা সার্ডিনের মত সামুদ্রিক মাছগুলোকে।

সম্প্রতি, বিষয়টি নিয়ে গবেষণা করেন অস্ট্রেলিয়ার গবেষকরা। যেখানে দেখা গিয়েছে, স্যামন, ট্রাউট, সার্ডিনের মধ্যে থাকে বিশেষ কিছু উপাদান। যেগুলো বাচ্চাদের হাপাঁনির প্রবণতাকে অনেকাংশে কম করে। তাই, এখনই খাদ্য তালিকাতে এই মাছগুলো রাখুন।

বিজ্ঞানীরা জানিয়েছেন, অতিরিক্ত ফ্যাট, চিনি এবং লবণজাতীয় খাবার শিশু শরীরকে (হাঁপানিতে আক্রান্ত) সরাসরি প্রভাবিত কর। কিন্তু, এখন এটাও প্রমাণিত স্বাস্থ্যকর খাদ্যতালিকা এবং সঠিক উপাদান কমাবে পারে শিশুদের শ্বাসকষ্টজনিত সমস্যাকে।

মোট ৬৪ জন হাঁপানিতে আক্রান্ত বাচ্চার উপর পরীক্ষাটি করা হয়। যেখানে দুটি ভাগে ভাগ করে নিয়ে পরীক্ষাটি করা হয়। প্রথমের গ্রুপটিকে নির্দিষ্ট সময়ের জন্য বিশেষ ডায়েট দেয়া হয়। খাওয়ানো হয় প্রচুর তেলযুক্ত মাছ।

বাকিদের সাধারণ খাবার দেয়া হয়। যারা বিশেষ তেলযুক্ত মাছের ডায়েটটি ফলো করেছিল তাদের মধ্যে এসেছে পরিবর্তন। তেলযুক্ত সামুদ্রিক মাছগুলোর মধ্যে থাকে ওমেগা-৩। যেটি অনেকাংশে কমায় শিশুদের হাঁপানির প্রবণতাকে।