সোমবার   ৩০ মার্চ ২০২০   চৈত্র ১৫ ১৪২৬   ০৫ শা'বান ১৪৪১

বরগুনার আলো
ব্রেকিং:
করোনা মোকাবিলায় সরকার জনগণের পাশে আছে -প্রধানমন্ত্রী ছুটিতে কর্মস্থল ছাড়া যাবে না : সুপ্রিম কোর্ট প্রশাসন করোনা সংকটকালে জনগণের পাশে থাকবে আ.লীগ: কাদের আমি করোনায় আক্রান্ত হইনি : স্বাস্থ্যমন্ত্রী বাংলাদেশে ২৪ ঘণ্টায় করোনা আক্রান্ত নেই : আইইডিসিআর পদ্মা সেতু‌তে বসলো ২৭তম স্প্যান, দৃশ্যমান হলো ৪ হাজার ৫০ মিটার সব পোশাক কারখানা বন্ধের নির্দেশ পবিত্র শবে বরাত ৯ এপ্রিল অতি প্রয়োজন ছাড়া ঘরের বাইরে যাবেন না : প্রধানমন্ত্রী জাতির উদ্দেশে ভাষণ দিচ্ছেন প্রধানমন্ত্রী মুক্তি পেলেন খালেদা জিয়া সন্ধ্যায় জাতির উদ্দেশে ভাষণ দেবেন প্রধানমন্ত্রী জাতির উদ্দেশে আজ ভাষণ দেবেন প্রধানমন্ত্রী নিষেধাজ্ঞা অক্ষরে অক্ষরে পালন করুন : স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বরগুনায় সকল প্রকার যানবাহন চলাচল বন্ধ রাখার নির্দেশ প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশেই খালেদা জিয়াকে মুক্তির সিদ্ধান্ত করোনা ছোঁয়াচে, এক মিটার দূরত্বে থাকার পরামর্শ ২৬ মার্চ থেকে সারাদেশে ১০ দিন গণপরিবহন বন্ধ মাঠে নেমেছে সেনাবাহিনী সকল বেসরকারি প্রতিষ্ঠানও বন্ধের নির্দেশ
৫৫

মানসিক চাপে চুল কেন পাকে?

বরগুনার আলো

প্রকাশিত: ২৪ জানুয়ারি ২০২০  

বিজ্ঞানীরা জানিয়েছেন মানসিক চাপে মানুষের চুল কেন সাদা হয়ে যায়, তার প্রতিকার কী কিংবা কিভাবে চুল পাকা ঠেকানো যাবে- সে রহস্যের সমাধান তারা করতে সক্ষম হয়েছেন। 

ইঁদুরের ওপর চালানো এক পরীক্ষায় বিজ্ঞানীরা দেখেছেন, যেসব স্টেম সেল গায়ের এবং চুলের রং নিয়ন্ত্রণ করে তীব্র ব্যথা থেকে উদ্ভূত চাপে তারা ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। পরীক্ষায় দেখা যায়, মাত্র দুই সপ্তাহের মধ্যে গাঢ় রঙের ইঁদুরের গায়ের সমস্ত লোম পেকে সাদা হয়ে গেছে।

ব্রাজিল এবং যুক্তরাষ্ট্রের বিজ্ঞানীরা জানিয়েছেন, এই গবেষণার ফলাফল ধরে বয়স বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে চুলের রঙ বদলে যাওয়া ঠেকানোর ওষুধ আবিষ্কার করা সহজ হবে।

স্বাভাবিকভাবে বয়স বাড়ার লক্ষণ হিসেবে চুলের রং পরিবর্তন হয়। বয়স ত্রিশের পর যে কোন নারী-পুরুষের চুল সাদা হওয়া শুরু হতে পারে। তবে এর সঙ্গে জিনের মান, বংশের লোকের চুল পাকার ধরন ও সময়ের একটা সম্পর্ক রয়েছে।

মানসিক চাপে যে চুল পেকে সাদা হয়ে যায়, এ কথা বহুকাল ধরেই প্রচলিত আছে। কিন্তু বিজ্ঞানীরা এতদিন জানতেন না, ঠিক কিভাবে সেটা হয়। নেচার সাময়িকীতে প্রকাশিত গবেষণায় হার্ভাডের বিজ্ঞানী অধ্যা ইয়া-সিয়ে সু জানিয়েছেন, ‘আমরা এখন নিশ্চিত যে, মানসিক চাপের কারণে মানুষের চুল অকালে পেকে যেতে পারে এবং সেটা কিভাবে হয়, এখন আমরা তা জানি।’

সাও পাওলো ইউনিভার্সিটি এবং হার্ভাড ইউনিভার্সিটির বিজ্ঞানীদের বিশ্বাস এই প্রক্রিয়ার সঙ্গে মেলানোসাইট স্টেম সেল সম্পর্কিত, যেটি মেলানিন উৎপাদন করে। মেলানিনের মাত্রার হেরফেরের কারণে মানুষের চুল ও গায়ের রঙে পার্থক্য হয়।

স্থায়ী ক্ষতি
গবেষকরা বৈজ্ঞানিক নিরীক্ষার জন্য ইঁদুরের শরীরে তীব্র যন্ত্রণা সৃষ্টির মাধ্যমে এই পরীক্ষা চালিয়েছেন। তাতে দেখা গেছে, অ্যাড্রেনালিন এবং কর্টিসল নিঃসরণ হয়, হৃদপিণ্ডের গতি ও রক্তের চাপ বেড়ে যায় এবং তাদের নার্ভাস সিস্টেমে মারাত্মক প্রভাব ফেলে। 

এর ফলে ইঁদুরের মধ্যে ব্যাপক চাপ সৃষ্টি হয়। ক্রমে এই প্রক্রিয়ার গতি বাড়িয়ে দেয়া হয় এবং দেখা যায় চুলের ফলিকলে থাকা মেলানিনে আঘাত করতে শুরু করে এই প্রক্রিয়া।

গবেষকরা বলছেন, ‘ধারণা করেছিলাম স্ট্রেস বা মানসিক চাপ শরীরের জন্য ক্ষতিকর, কিন্তু আমাদের ফলাফলে আমরা যা দেখেছি তা কল্পনারও বাইরে। অল্প কয়েকদিনের মধ্যে পিগমেন্ট-পুনঃরুৎপাদনকারী স্টেম সেলগুলো সম্পূর্ণ নিঃশেষ হয়ে যায়। এরপর আর আপনার পিগমেন্ট তৈরি হবে না। ফলে ক্ষতিটা স্থায়ী।’

ওষুধ তৈরির ধারণা
আরেক পরীক্ষায় গবেষকেরা দেখেছেন, কিছু ইঁদুরের লোমের রং পরিবর্তন থামিয়ে দেয়া হয়েছিল, তাদেরকে অ্যান্টি-হাইপারটেনসিভ দেবার মাধ্যমে যা তাদের উচ্চ রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণে রেখেছিল।

শারীরিক যন্ত্রণায় থাকা ইঁদুরের সঙ্গে এই চাপমুক্ত ইঁদুরের অবস্থা তুলনা করতে গিয়ে দেখা যায়, তাদের স্টেম সেল ক্ষতিগ্রস্ত হবার পেছনে এক ধরনের প্রোটিন দায়ী। সাইক্লিন-ডিপেন্ডেন্ট কিনাস সিডিকে নামের এই প্রোটিনকে যখন দমন করা হয়, তখন ইঁদুরের লোমের রং বদল থেমে যায়।

আর এর মাধ্যমেই বিজ্ঞানীরা বুঝতে পারেন কিভাবে চুলের রং পরিবর্তন ঠেকানো যাবে। অর্থাৎ ওষুধ তৈরির সময় সিডিকে নামের এই প্রোটিনকে নিয়ন্ত্রণের কথা মাথায় রেখেই সেটা করতে হবে।

তবে একে চুল পাকা ঠেকানোর পথ পেয়ে যাওয়া ভাবছেন না অধ্যাপক সু। তিনি বলছেন, ‘এটি মানুষের ওপর পরীক্ষা শুরু করার একটি প্রক্রিয়া মাত্র। সেই সঙ্গে শরীরের অন্যান্য অংশের চুলও কেন পাকে সেটাও বুঝতে পারছি আমরা।’
সূত্র : বিবিসি

বরগুনার আলো
এই বিভাগের আরো খবর