বুধবার   ১৯ ফেব্রুয়ারি ২০২০   ফাল্গুন ৬ ১৪২৬   ২৪ জমাদিউস সানি ১৪৪১

বরগুনার আলো
ব্রেকিং:
ধর্ষকদের ধরিয়ে দিন, কঠোর ব্যবস্থা নেবো: প্রধানমন্ত্রী টাকা না থাকলে এত উন্নয়ন কাজ করছি কীভাবে : প্রধানমন্ত্রী সব ব্যথা চেপে রেখে দেশের জন্য কাজ করছি : প্রধানমন্ত্রী ট্রেনে খোলা খাবার বিক্রি ও প্লাস্টিকের কাপ নিষিদ্ধ হচ্ছে মজুদ গ্যাসে চলবে ২০৩০ সাল পর্যন্ত : খনিজ সম্পদ প্রতিমন্ত্রী গুজব-অপপ্রচার রোধে কাজ করছে উচ্চ পর্যায়ের কমিটি : তথ্যমন্ত্রী সব কারখানায় ব্রেস্ট ফিডিং কর্নার স্থাপনের নির্দেশ আজ বাংলাদেশ-নেপাল পররাষ্ট্রমন্ত্রীর বৈঠক সরকার-জনগণের মধ্যে সম্পর্ক জোরদার করতে সাংসদের রাষ্ট্রপতির আহ্বান দেশে রাজনৈতিক স্থিতিশীলতা বিরাজ করছে : নাসিম ব্যাংকের জঙ্গি অর্থায়ন নজরদারিতে রয়েছে: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী ৪০০ মেট্রিক টন মধু রফতানির অর্ডার পেয়েছে বাংলাদেশ : কৃষিমন্ত্রী নয় বছরে সাড়ে ৯৭ হাজার কর্মকর্তা নিয়োগ : জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী দেশে মোবাইল টাওয়ার রেডিয়েশনের মাত্রা ক্ষতিকর নয় : বিটিআরসি সন্ধ্যায় বঙ্গভবনে যাচ্ছেন প্রধানমন্ত্রী খালেদার প্যারোলে মুক্তির কোনো আবেদন পাইনি: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী উহান ফেরত শিক্ষার্থীরা নজরদারিতেই থাকবেন : আইইডিসিআর রোহিঙ্গা ইস্যুতে ইন্দোনেশিয়ার সহায়তা চাইলেন ড. মোমেন ইউএনও’দের মাধ্যমে রাজাকারের তালিকা করা হবে : মোজাম্মেল হক মানবপাচারে অভিযুক্ত এমপির বিষয়ে দুদককে তদন্তের আহ্বান কাদেরের
১১৩

মানসিক প্রশান্তি লাভের পাঁচ উপায়

বরগুনার আলো

প্রকাশিত: ৫ সেপ্টেম্বর ২০১৯  

 

মানসিক অশান্তি ও অবসাদ মানবজীবনের অন্যতম প্রধান সমস্যা। এই সমস্যা ও সংকট থেকে মুক্তি পেতে আধুনিক চিকিৎসাবিজ্ঞানীরা নানা ধরনের পরীক্ষা-নিরীক্ষা ও গবেষণা চালাচ্ছেন। এতে মানুষ উপকৃতও হচ্ছে। আবার অনেকের ক্ষেত্রে ব্যর্থ হচ্ছে তাঁদের ফর্মুলা। মানসিক প্রশান্তি লাভে ইসলামও মানুষকে কিছু উপায় অবলম্বনের কথা বলেছে। যা মানুষকে মানসিক স্বস্তি দিতে পারে। এসব উপায় অবলম্বনের প্রতি আস্থা প্রকাশ করেছেন অনেক অমুসলিম গবেষকও। নিম্নে এমন পাঁচটি উপায় সম্পর্কে আলোচনা করা হলো—

 

একত্ববাদে বিশ্বাস

যুক্তরাষ্ট্রের সাইকোলজিক্যাল অ্যাসোসিয়েশনের জার্নালে জার্মানির ম্যান হেইম বিশ্ববিদ্যালয়ের মনোবিজ্ঞানী ড. লরা ম্যারি এডিনগার-স্কন্স-এর একটি গবেষণা প্রতিবেদন প্রকাশিত হয়। যাতে দাবি করা হয়েছে, মানসিকভাবে মুসলিমরাই পৃথিবীতে সবচেয়ে সুখী। কারণ তারা একজন সৃষ্টিকর্তার ওপর পরিপূর্ণ আস্থা ও বিশ্বাস রেখে জীবন পরিচালনা করে। মুসলিমরা তকদির বা ভাগ্যে বিশ্বাস করে। ফলে অল্পতেই তারা সন্তুষ্টি ও পরিতৃপ্তি বোধ করে। মুসলিমদের মনে আল্লাহর ভয় থাকে বদ্ধমূল। ফলে  বহুবিধ পাপাচার থেকে বিরত থাকা তাদের পক্ষে সহজ হয়। আল্লাহর একত্ববাদ আর তাঁর ওপর দৃঢ় বিশ্বাস মুসলিমদের হতাশা ও উদ্বেগ থেকে সহজেই মুক্তি দিতে পারে। গবেষকরা বলতে চেয়েছেন, একত্ববাদে বিশ্বাস বিষণ্নতা, মাদকদ্রব্যের অপব্যবহার ও আত্মহত্যার ঝুঁকি কমায়। গবেষণায় প্রমাণিত হয়েছে, ধর্ম ও সুখের সঙ্গে একটি ইতিবাচক সংযোগ আছে। (দৈনিক ইত্তেফাক, ১১ জুলাই ২০১৯)

 

কোরআন অধ্যয়ন

কোরআন তেলাওয়াত ও অধ্যয়নের মাধ্যমেও হৃদয়ে প্রশান্তি আসে। কোরআন মাজিদ সম্পর্কে আল্লাহ তাআলা বলেন, ‘আমি কোরআন নাজিল করেছি, যা মুমিনের জন্য রোগের আরোগ্য ও রহমতস্বরূপ।’ (সুরা বনি ইসরাঈল, আয়াত : ৮২)

ইতালির খ্যাতনামা মনোবিজ্ঞানী রোকসানা ইলিনা নেগরা ইসলাম গ্রহণের পর তাঁর প্রতিক্রিয়ায় বলেন, ‘আমি পবিত্র কোরআন অধ্যয়ন করেছি। যতই পড়েছি ততই আমি মুগ্ধ হয়েছি। এই মুগ্ধতা ভাষায় প্রকাশ করার মতো নয়। আমি মনোবিজ্ঞানের শিক্ষার্থী। আমি সব সময় প্রশান্তির জন্য, অসুস্থতা থেকে নিরাময়ের উপায় খুঁজে বের করার চেষ্টা ও গবেষণা করেছি। আলহামদুলিল্লাহ! আমি এ সিদ্ধান্তে উপনীত হয়েছি—ইসলামেই রয়েছে সব কিছুর সঠিক সমাধান।’ (দৈনিক ইনকিলাব, ১৬ জানুয়ারি ২০১৭)

 

নামাজ আদায়

নামাজ আদায়ের ব্যাপারে রোকসানা ইলিনা নেগরা বলেন, ‘ইসলামের প্রধান ইবাদত নামাজের অনুশীলন প্রশান্তি লাভের অন্যতম সেরা মাধ্যম।’ (প্রাগুক্ত)

নামাজ আদায়ের মাধ্যমে মানুষের অন্তরে প্রশান্তি আসে। নামাজ আদায়কারী মানসিক অশান্তি থেকে নিরাপদ থাকে। এ সম্পর্কে আল্লাহ তাআলা বলেন, ‘মানুষকে সৃষ্টি করা হয়েছে ভীরু হিসেবে। যখন তাকে অনিষ্ট স্পর্শ করে, তখন সে হা-হুতাশ করে। আর যখন কল্যাণপ্রাপ্ত হয়, তখন কৃপণ হয়ে যায়। তবে তারা স্বতন্ত্র, যারা নামাজ আদায়কারী। যারা তাদের নামাজে সার্বক্ষণিক কায়েম থাকে।’ (সুরা মায়ারিজ, আয়াত : ১৮-২৩)

রাসুলুল্লাহ (সা.) যখন দুশ্চিন্তাগ্রস্ত হতেন বেলাল (রা.)-কে বলতেন, ‘নামাজের ইকামত দাও, এর মাধ্যমে আমাকে প্রশান্তি দাও।’ (সুনানে আবি দাউদ, হাদিস : ৪৯৮৫)

অন্য হাদিসে এসেছে, রাসুলুল্লাহ (সা.) যখন চিন্তিত হতেন নামাজে দাঁড়িয়ে যেতেন। (সুনানে আবি দাউদ, হাদিস : ১৩১৯)

 

আল্লাহর স্মরণ

পরিপূর্ণ মানসিক প্রশান্তি লাভ ও সব রকম মানসিক উৎকণ্ঠা থেকে মুক্তির অন্যতম উপায় আল্লাহ তাআলার স্মরণ। আল্লাহকে স্মরণের মাধ্যমে মানসিক প্রশান্তি এবং হৃদয়ের পরিতৃপ্তি অর্জিত হয়। কোরআনে ইরশাদ হয়েছে, ‘যারা ঈমান আনে, আল্লাহর স্মরণে তাদের অন্তর প্রশান্ত হয়। জেনে রেখো, আল্লাহর স্মরণেই শুধু হৃদয় প্রশান্ত হয়।’ (সুরা রাদ, আয়াত : ২৮)

 

আল্লাহর ওপর নির্ভরতা

একজন ঈমানদার আল্লাহ তাআলার ওপর এই বিশ্বাস রাখে যে, সর্ববিষয়ে আল্লাহ তাআলা তার জন্য যথেষ্ট। আল্লাহ বলেন, ‘যে ব্যক্তি আল্লাহর ওপর নির্ভর করে তার জন্য আল্লাহই যথেষ্ট।’ (সুরা তালাক, আয়াত : ৩)

আল্লাহর ওপর নির্ভরশীলতা ও পরিপূর্ণভাবে বিশ্বাস স্থাপনে তার মনোবল বেড়ে যায়। অমূলক ভাবনায় সে বিচলিত না হয়ে বরং তাঁর অনুগ্রহ ও সাহায্য লাভের আশায় সর্বদা আশান্বিত থাকে। তখন তার মনে কোনো দুশ্চিন্তা বা উৎকণ্ঠা স্থান পায় না। কঠিন কাজও সহজ হয়ে যায়; নিরানন্দ হয়ে ওঠে আনন্দময়; অশান্তি পরিণত হয় প্রশান্তিতে। ফলে সে অন্তরে খুঁজে পায় এক অনাবিল সুখ ও পরিতৃপ্তি।

বরগুনার আলো