রোববার   ২৩ ফেব্রুয়ারি ২০২০   ফাল্গুন ১১ ১৪২৬   ২৮ জমাদিউস সানি ১৪৪১

বরগুনার আলো
ব্রেকিং:
পতাকার মর্যাদা ধরে রাখতে সেনা সদস্যদের প্রতি রাষ্ট্রপতির আহ্বান জুয়ার আসর থেকে আটক ২৬ দুই ইউনিভার্সিটিকে ১০ লাখ টাকা করে জরিমানা দৃশ্যমান পদ্মা সেতুর পৌনে চার কিলোমিটার সারা দেশে শহীদ দিবস ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস পালিত ইংরেজি উচ্চারণে বাংলা বলার সমালোচনা প্রধানমন্ত্রীর উন্নত দেশ গড়তে বেসরকারি সহযোগিতা প্রয়োজন: পররাষ্ট্রমন্ত্রী মুজিববর্ষে বিএনপিকেও আমন্ত্রণ জানানো হবে: কাদের ভণ্ডপীরসহ ৯ জনের কারাদণ্ড প্রধানমন্ত্রী সব সময় শিক্ষাকে গুরুত্ব দেন: পরিকল্পনামন্ত্রী মুজিব বর্ষে নতুন শিল্প কারখানা স্থাপন করা হবে: শিল্প প্রতিমন্ত্রী আসন্ন সেচ মৌসুমে লোডশেডিংয়ের শঙ্কা নেই : বিদ্যুৎ বিভাগ একুশে পদক হাতে তুলে দিলেন প্রধানমন্ত্রী শহীদ দিবস ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস শুক্রবার একুশে পদক মেধা ও মনন চর্চার ক্ষেত্র সম্প্রসারিত করবে : রাষ্ট্রপতি আজ একুশে পদক প্রদান করবেন প্রধানমন্ত্রী এনামুল বাছিরের পদোন্নতির আবেদন হাইকোর্টে খারিজ ডাকঘর সঞ্চয়ের সুদহার পুনর্বিবেচনা করা হবে : অর্থমন্ত্রী মুঠোফোন প্রতারক জিনের বাদশা গ্রেফতার করোনাভাইরাস নিয়ে গুজবে কান দিবেন না : স্বাস্থ্যমন্ত্রী
৫৬

মামলাজট কমিয়ে আনতে প্রত্যেক জেলায় হচ্ছে কমিটি

বরগুনার আলো

প্রকাশিত: ৩ সেপ্টেম্বর ২০১৯  

নিম্ন আদালতে ফৌজদারি মামলায় দীর্ঘদিন আটক কারাবন্দিদের দ্রুত বিচার নিষ্পত্তি ও জেলা পর্যায়ে ফৌজদারি বিচার ব্যবস্থার সাথে সংশ্লিষ্ট সব বিভাগের মধ্যে সমন্বয়ের জন্য ‘কেস কো-অর্ডিনেশন কমিটি’ গঠন করা হচ্ছে।

মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের জেলা ম্যাজিস্ট্রেসি পরিবীক্ষণ শাখা থেকে সম্প্রতি এ বিষয়ে পরিপত্র জারি করেছে। এই কমিটির মাধ্যমে সরকার মামলাজট কমিয়ে আনার পরিকল্পনা করছে।

আইন ও বিচার বিভাগের মাধ্যমে সুপ্রিম কোর্টের পরামর্শ নিয়ে কমিটি গঠনের পরিপত্রটি জারি করা হয়েছে। জেলা ও দায়রা জজ এবং জেলা ম্যাজিস্ট্রেট এই কমিটিতে যুগ্মভাবে সভাপতির দায়িত্ব পালন করবেন। প্রতি মাসে পর্যায়ক্রমে নিজেদের দফতরে বৈঠকের আয়োজন করবেন তারা। কমিটির সদস্য মোট ২৫ জন।

পরিপত্র অনুযায়ী, কমিটি ফৌজদারি বিচার ব্যবস্থায় স্থানীয় সমস্যাগুলো চিহ্নিত করবে। সেই আলোকে স্থানীয়ভাবে তার সমাধানের লক্ষ্যে পদক্ষেপ গ্রহণ করার জন্য কী ব্যবস্থা নেয়া যায় তার খতিয়ে দেখতে বলা হয়েছে। এ ছাড়া দীর্ঘমেয়াদে পেন্ডিং মামলাগুলো পর্যালোচনা করে দ্রুত নিষ্পত্তিতে সহযোগিতা প্রদান ও মামলা নিষ্পত্তির অগ্রগতি তরান্বিত করার সুপারিশও করবে কমিটি।

কমিটি বিনা বিচারে দীর্ঘদিন আটক কারাবন্দিদের আইনের আলোকে মুক্তির লক্ষ্যে আইনানুগ পদক্ষেপ গ্রহণ করবে। কারাগারগুলোর ব্যবস্থাপনা মূল্যায়ন ও প্রয়োজনীয় নির্দেশনা প্রদানও করবে এই কমিটি। এর বাইরে কারাবন্দিদের স্বাস্থ্যের বিভিন্ন বিষয়ে তার পরিবারের কাছে খবরাখবর পৌঁছানো এবং প্রয়োজনে ভিডিও কলের মাধ্যমে তাদের সঙ্গে যোগাযোগ করানোর ব্যবস্থা করবে কমিটি।

এছাড়া কমিটির অন্যান্য কাজের মধ্যে রয়েছে- জেল থেকে মুক্তির পর আসামিরা যেন পরিবারে ও সমাজে সম্পৃক্তকরণে প্রয়োজনীয় নির্দেশনা প্রদান ও তদারকি করা। পুনর্বাসনের মাধ্যমে সমাজে প্রতিষ্ঠিত করার জন্য কারাবন্দীদের প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা নেয়া। জীবনমুখী কর্মসংস্থান সৃষ্টি ও প্রয়োজনে ঋণের ব্যবস্থা করা। জামিনে মুক্ত আসামি যেন ওই একই অপরাধে পুনরায় জড়িয়ে না পড়ে সেজন্য তাদের পেশার প্রতি নজরদারি করা।

মাদকের প্রতি আসক্তি প্রতিরোধ ও নৈতিকতা-মূল্যবোধ সৃষ্টির জন্য সচেতনতামূলক কার্যক্রম গ্রহণ, আদালতে আসামি ও সাক্ষীদের হাজিরা নিশ্চিতকরণ ও মামলা দ্রুত নিষ্পত্তিতে উদ্ভাবনী উদ্যোগ গ্রহণের কাজও কমিটি করবে বলে পরিপত্রে উল্লেখ করা হয়েছে।

এর বাইরে কমিটি যেসব বিষয় আমলে নিতে চাইবে সেসব বিষয়ে নিয়মিত বৈঠকের মাধ্যম শাসন বিভাগ ও বিচার বিভাগকে অবহিত করার জন্য বলা হয়েছে।

বরগুনার আলো
এই বিভাগের আরো খবর