বৃহস্পতিবার   ২১ নভেম্বর ২০১৯   অগ্রাহায়ণ ৬ ১৪২৬   ২৩ রবিউল আউয়াল ১৪৪১

বরগুনার আলো
ব্রেকিং:
সারাদেশের পরিবহন ধর্মঘট প্রত্যাহার ময়নাতদন্ত প্রতিবেদন লিখতে হবে স্পষ্ট অক্ষরে: হাইকোর্ট আজ সশস্ত্র বাহিনী দিবস শাহজালালে পৌঁছেছে পাকিস্তানের ৮২ টন পেঁয়াজ ক্রিকেটের সঙ্গে টেনিসও এগিয়ে যাচ্ছে : প্রধানমন্ত্রী রিফাত হত্যা : চার্জ গঠন ২৮ নভেম্বর চালের দাম বাড়ানোর চেষ্টা করলে কঠোর ব্যবস্থা: খাদ্যমন্ত্রী র‌্যাব-৮ এর অভিযানে শীর্ষ সন্ত্রাসী গ্রেফতার ৭ ডিসেম্বর বিচারবিভাগীয় সম্মেলনে উপস্থিত থাকবেন প্রধানমন্ত্রী বরিশাল বোর্ডে এসএসসিতে বৃত্তি পাচ্ছেন ১৪১৭ শিক্ষার্থী কবি সুফিয়া কামালের মৃত্যুবার্ষিকী আজ জাতীয় অর্থনীতিতে নারীর অবদান সবচেয়ে বেশি: পলক স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর সঙ্গে ট্রাক মালিকদের ফের বৈঠক আজ চক্রান্তকারীদের আইনের আওতায় আনা হবে: ওবায়দুল কাদের দেশে ফিরেছেন প্রধানমন্ত্রী লবণের দাম বাড়ালে জেল-জরিমানা : বাণিজ্যমন্ত্রী লবণ নিয়ে গুজবে কান দিবেন না: শিল্প মন্ত্রণালয় ২০২১ সালের মধ্যে ১০০০ উদ্যোক্তা তৈরিতে সহায়তা দেবে সরকার পদ্মাসেতুর প্রায় আড়াই কিলোমিটার দৃশ্যমান সেনা কল্যাণ সংস্থার চারটি স্থাপনা উদ্বোধন
২৩০

যে ছবি বদলে দিল দুটি জীবন

প্রকাশিত: ৩০ নভেম্বর ২০১৮  

মাত্র একটি ছবি। আর সেই ছবিই বদলে দিল দুটি জীবন। সুযোগ হলো স্বপ্ন ছোঁয়ার। ঘটনা ২১ সেপ্টেম্বরের। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ‘খ’ ইউনিটের ভর্তি পরীক্ষার দিন ছেলে হৃদয়কে কোলে করে পরীক্ষার হলে নিয়ে যান সীমা সরকার। ছবিটি সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ছড়িয়ে পড়লে ব্যাপক সাড়া পড়ে।

এরপর সবার নজরে আসেন এই মা। ২০১৮ সালে বিশ্বে বিবিসি’র অনুপ্রেরণাদায়ী ও প্রভাবশালী একশ নারীর তালিকায় স্থান করে নেন সীমা সরকার। যেখানে ৮১তম স্থানে রয়েছেন তিনি। এ পর্যন্ত গল্পটা অনেকেরই জানা। তবে এ ছবির পেছনের কারিগরটা কে, তা নিয়ে প্রশ্ন ছিল অনেকের।

শেষ পর্যন্ত ছবির আলোকচিত্রী আল মামুনের সঙ্গে সাক্ষাৎ হলো মা সীমা সরকার ও তার সন্তান হৃদয় সরকারের। বিবিসির উদ্যোগেই তাদের সাক্ষাৎ হয়। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কলা ভবনে অপরাজেয় বাংলার পাদদেশে সীমা সরকার ও হৃদয় সরকারের সঙ্গে দেখা হয় আল মামুনের। এ সময় মা-ছেলে দুজনের চোখেমুখেই কৃতজ্ঞতা ফুটে উঠছিল মামুনের প্রতি। কারণ ওই একটি ছবিই যে বদলে দিয়েছে তাদের জীবন! তাই মা-ছেলের সমস্ত ধন্যবাদ মামুনকে ঘিরেই।

আল মামুন জানান, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে মনোবিজ্ঞানে ৪র্থ বর্ষে পড়ছেন। গ্রামের বাড়ি ঠাকুরগাঁওয়ে। ছবিটি তিনি তোলেন তার নিজের আবাসিক হল বিজয় একাত্তরে।

বিবিসিকে মামুন বলেন, ‘সে দিন আমার কাজিনও ভর্তি পরীক্ষা দিতে এসেছিল। ওর সঙ্গে কথা বলতে বলতেই হঠাৎ চোখে পড়ে হৃদয়কে কোলে করে নিয়ে যাচ্ছে তার মা। আমার কাছে অবাক লাগে। এরপর ছবিটি তুলি। সামাজিক মাধ্যমে ছবিটি পোস্ট করার পরই ভাইরাল হয়ে যায়।’

শখের বশে প্রায়ই নানা রকমের ছবি তোলেন মামুন। তবে এ ছবির সঙ্গে তার আত্মিক যোগাযোগ থাকলেও পেছনের সংগ্রামের গল্পটা জানা ছিল না তার।

 

যে ফটোগ্রাফারের ছবি বদলে দিল দুটি জীবন

সন্তানকে কোলে নেওয়া সীমা সরকারের ভাইরাল হওয়া সেই ছবি। ছবি: বিবিসি বাংলা

হৃদয় বলেন, ভাইরাল হওয়া ছবিতে সামনে থাকা মেয়েটিও তার সহপাঠী। একইসঙ্গে কোচিং ও ভর্তি পরীক্ষা দিতে এসেছিলেন তারা।

হৃদয়ের মা বলেন, ‘ও (মামুন) আমার আরেকটা সন্তানের মতোই, ও আমার জন্য যা করেছে, আমি ওর জন্য প্রাণখুলে দোয়া করি ও যাতে অনেক বড় হয়।’ একহাতে হৃদয় আর অন্যহাতে মামুনকে জড়িয়ে কথাগুলো বলছিলেন এই মা।

নেত্রকোনা পৌর শহরের কুরপাড় এলাকার বাসিন্দা নিম্ন মধ্যবিত্ত পরিবারের সীমা সরকার। তার দুই ছেলের মধ্যে বড় ছেলে শারীরিক প্রতিবন্ধী হৃদয় সরকার। শিশুকালে সকলের আদরযত্নে বড় হতে থাকলেও শৈশব থেকেই কোলে-পিঠে করে বহন করে নিয়ে যান প্রাথমিক বিদ্যালয়ে। শুধু তাই নয়, ছেলেকে কোলে নিয়ে তিন-চার তলা সিঁড়ি বেয়েছেন সীমা সরকার। প্রতিবন্ধী ছেলেকে পড়াশোনা করানোয় নিগৃহের শিকারও হয়েছেন। স্বল্প আয়ের পরিবারে প্রতিবন্ধী শিশুকে পড়াশোনা করাতে গিয়ে আর্থিক অনটনেও পড়েছেন তিনি।

তবে হাল ছাড়েননি। উচ্চ বিদ্যালয় থেকে কলেজ, কলেজ থেকে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে স্থান করে নিয়েছেন হৃদয়। অদম্য ইচ্ছা শক্তি আর দৃঢ় মনোবল থাকলেই যেকোন অসাধ্যকে সাধন করা যায় তারই প্রমাণ করলেন মা ও ছেলে।