• বৃহস্পতিবার   ০৬ আগস্ট ২০২০ ||

  • শ্রাবণ ২১ ১৪২৭

  • || ১৬ জ্বিলহজ্জ ১৪৪১

বরগুনার আলো
ব্রেকিং:
শেখ হাসিনাকে জাপানের প্রধানমন্ত্রী আবের ফোন করোনায় আরও ৩৩ মৃত্যু, শনাক্ত ২৬৫৪ কামাল বেঁচে থাকলে সমাজকে অনেক কিছু দিতে পারতো: শেখ হাসিনা সাবেক সেনা কর্মকর্তা সিনহার মাকে প্রধানমন্ত্রীর ফোন করোনায় ২৪ ঘণ্টায় ৫০ মৃত্যু, শনাক্ত ১৯১৮ করোনায় আরও ৪৮ মৃত্যু, শনাক্ত ২৬৯৫ প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশে অসচ্ছল গর্ভবতী নারীরা পাবে চার হাজার টাকা ঈদ-বন্যা ঘিরে করোনা সংক্রমণের হার বাড়তে পারে: স্বাস্থ্যমন্ত্রী ট্রাফিক পুলিশ বক্সে বিস্ফোরণ, ‘নব্য জেএমবির সদস্য’ আটক করোনায় আরও ৩৫ মৃত্যু, শনাক্ত ৩০০৯ ১২ কোটি টাকা আত্মসাত করে গ্রেফতার যমুনা ব্যাংকের ম্যানেজার থানায় বিস্ফোরণে জঙ্গি সংশ্লিষ্টতা নেই : পুলিশ ২৪ ঘণ্টায় করোনা শনাক্ত ২৯৬০, মৃত্যু ৩৫ হাতের তালু দিয়ে আকাশ ঢাকা যায় না: বিএনপিকে কাদের দেশে একদিনে ৩৭ মৃত্যু, আক্রান্ত ২৭৭২ সাবরিনার অবৈধ সম্পদ অনুসন্ধানে ৪ জনকে দুদকে জিজ্ঞাসাবাদ করোনায় ২৪ ঘণ্টায় মৃত্যু ৫৪, শনাক্ত ২২৭৫ কোরবানি পশুর চামড়ার দাম নির্ধারণ করোনায় ২৪ ঘণ্টায় ৩৮ মৃত্যু, শনাক্ত ২৫২০ তিন দিনের রিমান্ডে শারমিন
৩৫২

যে ছবি বদলে দিল দুটি জীবন

বরগুনার আলো

প্রকাশিত: ৩০ নভেম্বর ২০১৮  

মাত্র একটি ছবি। আর সেই ছবিই বদলে দিল দুটি জীবন। সুযোগ হলো স্বপ্ন ছোঁয়ার। ঘটনা ২১ সেপ্টেম্বরের। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ‘খ’ ইউনিটের ভর্তি পরীক্ষার দিন ছেলে হৃদয়কে কোলে করে পরীক্ষার হলে নিয়ে যান সীমা সরকার। ছবিটি সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ছড়িয়ে পড়লে ব্যাপক সাড়া পড়ে।

এরপর সবার নজরে আসেন এই মা। ২০১৮ সালে বিশ্বে বিবিসি’র অনুপ্রেরণাদায়ী ও প্রভাবশালী একশ নারীর তালিকায় স্থান করে নেন সীমা সরকার। যেখানে ৮১তম স্থানে রয়েছেন তিনি। এ পর্যন্ত গল্পটা অনেকেরই জানা। তবে এ ছবির পেছনের কারিগরটা কে, তা নিয়ে প্রশ্ন ছিল অনেকের।

শেষ পর্যন্ত ছবির আলোকচিত্রী আল মামুনের সঙ্গে সাক্ষাৎ হলো মা সীমা সরকার ও তার সন্তান হৃদয় সরকারের। বিবিসির উদ্যোগেই তাদের সাক্ষাৎ হয়। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কলা ভবনে অপরাজেয় বাংলার পাদদেশে সীমা সরকার ও হৃদয় সরকারের সঙ্গে দেখা হয় আল মামুনের। এ সময় মা-ছেলে দুজনের চোখেমুখেই কৃতজ্ঞতা ফুটে উঠছিল মামুনের প্রতি। কারণ ওই একটি ছবিই যে বদলে দিয়েছে তাদের জীবন! তাই মা-ছেলের সমস্ত ধন্যবাদ মামুনকে ঘিরেই।

আল মামুন জানান, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে মনোবিজ্ঞানে ৪র্থ বর্ষে পড়ছেন। গ্রামের বাড়ি ঠাকুরগাঁওয়ে। ছবিটি তিনি তোলেন তার নিজের আবাসিক হল বিজয় একাত্তরে।

বিবিসিকে মামুন বলেন, ‘সে দিন আমার কাজিনও ভর্তি পরীক্ষা দিতে এসেছিল। ওর সঙ্গে কথা বলতে বলতেই হঠাৎ চোখে পড়ে হৃদয়কে কোলে করে নিয়ে যাচ্ছে তার মা। আমার কাছে অবাক লাগে। এরপর ছবিটি তুলি। সামাজিক মাধ্যমে ছবিটি পোস্ট করার পরই ভাইরাল হয়ে যায়।’

শখের বশে প্রায়ই নানা রকমের ছবি তোলেন মামুন। তবে এ ছবির সঙ্গে তার আত্মিক যোগাযোগ থাকলেও পেছনের সংগ্রামের গল্পটা জানা ছিল না তার।

 

যে ফটোগ্রাফারের ছবি বদলে দিল দুটি জীবন

সন্তানকে কোলে নেওয়া সীমা সরকারের ভাইরাল হওয়া সেই ছবি। ছবি: বিবিসি বাংলা

হৃদয় বলেন, ভাইরাল হওয়া ছবিতে সামনে থাকা মেয়েটিও তার সহপাঠী। একইসঙ্গে কোচিং ও ভর্তি পরীক্ষা দিতে এসেছিলেন তারা।

হৃদয়ের মা বলেন, ‘ও (মামুন) আমার আরেকটা সন্তানের মতোই, ও আমার জন্য যা করেছে, আমি ওর জন্য প্রাণখুলে দোয়া করি ও যাতে অনেক বড় হয়।’ একহাতে হৃদয় আর অন্যহাতে মামুনকে জড়িয়ে কথাগুলো বলছিলেন এই মা।

নেত্রকোনা পৌর শহরের কুরপাড় এলাকার বাসিন্দা নিম্ন মধ্যবিত্ত পরিবারের সীমা সরকার। তার দুই ছেলের মধ্যে বড় ছেলে শারীরিক প্রতিবন্ধী হৃদয় সরকার। শিশুকালে সকলের আদরযত্নে বড় হতে থাকলেও শৈশব থেকেই কোলে-পিঠে করে বহন করে নিয়ে যান প্রাথমিক বিদ্যালয়ে। শুধু তাই নয়, ছেলেকে কোলে নিয়ে তিন-চার তলা সিঁড়ি বেয়েছেন সীমা সরকার। প্রতিবন্ধী ছেলেকে পড়াশোনা করানোয় নিগৃহের শিকারও হয়েছেন। স্বল্প আয়ের পরিবারে প্রতিবন্ধী শিশুকে পড়াশোনা করাতে গিয়ে আর্থিক অনটনেও পড়েছেন তিনি।

তবে হাল ছাড়েননি। উচ্চ বিদ্যালয় থেকে কলেজ, কলেজ থেকে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে স্থান করে নিয়েছেন হৃদয়। অদম্য ইচ্ছা শক্তি আর দৃঢ় মনোবল থাকলেই যেকোন অসাধ্যকে সাধন করা যায় তারই প্রমাণ করলেন মা ও ছেলে।

বরগুনার আলো
পাঠকের চিন্তা বিভাগের পাঠকপ্রিয় খবর