• বুধবার   ২৫ নভেম্বর ২০২০ ||

  • অগ্রাহায়ণ ১০ ১৪২৭

  • || ০৯ রবিউস সানি ১৪৪২

বরগুনার আলো
ব্রেকিং:
করোনায় ২৪ ঘণ্টায় মৃত্যু ২৮, শনাক্ত ২৪১৯ শিক্ষার্থী সাওদা হত্যাকাণ্ডে আসামির যাবজ্জীবন করোনায় ২৪ ঘণ্টায় মৃত্যু ৩৮, শনাক্ত ২০৬০ স্বাধীনতার ইতিহাস বিকৃত করাই বিএনপির গণতন্ত্র: কাদের প্রখ্যাত আলেম পীরজাদা গোলাম সারোয়ার সাঈদী আর নেই মানুষের কঙ্কালসহ গ্রেফতার বাপ্পী তিন দিনের রিমান্ডে শ্রাবন্তীকে কুপ্রস্তাবের অভিযোগে খুলনায় যুবক গ্রেফতার ডিসেম্বরের মাঝামাঝিতে বসবে পদ্মাসেতুর অবশিষ্ট ৪ স্প্যান: কাদের করোনায় আরও ৩০ জনের মৃত্যু, শনাক্ত ২৩৬৪ ঢাবি ছাত্রী ধর্ষণ মামলায় মজনুর যাবজ্জীবন ২০২১ সালের মধ্যে ১২৯ নতুন ফায়ার স্টেশন: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী এএসপি আনিসুল হত্যা মামলা: রিমান্ড শেষে কারাগারে আরও ৪ টিউশন ফি ছাড়া অন্য খাতে অর্থ নিতে পারবে না স্কুল-কলেজ বিএনপির রাজনীতিতে হতাশা আর ব্যর্থতা ভর করেছে: কাদের শাহজালালে যাত্রীর কাছ থেকে ৫ কোটি টাকার স্বর্ণের বার উদ্ধার নেপালের বিপক্ষে সিরিজ জয় বাংলাদেশের বিএনপি বাসে আগুন দিয়ে অবলীলায় মিথ্যা বলছে: তথ্যমন্ত্রী ফাতেহা-ই-ইয়াজদাহম ২৭ নভেম্বর সাবেক ডেপুটি স্পিকার শওকত আলী আর নেই মিথ্যা বলায় পুরস্কার থাকলে প্রথমটি পেতেন ফখরুল: তথ্যমন্ত্রী

রাজনীতিকে ‘গুডবাই’জানাচ্ছেন খালেদা জিয়া!

বরগুনার আলো

প্রকাশিত: ১৬ মার্চ ২০২০  

সব জল্পনা-কল্পনার অবসান ঘটিয়ে অবশেষে রাজনীতি থেকে বিদায় নিচ্ছেন প্রমাণিত দুর্নীতি মামলায় কারান্তরীণ বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া। এরই অংশ হিসেবে তিনি ইতোমধ্যে বোন সেলিমা ইসলামের মাধ্যমে কৌশলে সুপ্রিমকোর্টের আইনজীবী ইউনুস আলী আকন্দকে নির্দেশনা দেন সরকারপক্ষ বরাবর তার মুক্তির আবেদন করতে।

বেগম জিয়ার কথানুযায়ী, ১০ মার্চ (মঙ্গলবার) সকালে বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকী উপলক্ষে মানবিক কারণে খালেদা জিয়ার দণ্ড মওকুফ ও কারাগার থেকে মুক্তি চেয়ে রাষ্ট্রপতি এবং প্রধানমন্ত্রীর কাছে আবেদন করেন ওই আইনজীবী। এরপর থেকেই গুঞ্জন উঠেছে, খালেদা তার অতীত সব অপকর্ম স্বীকার করে রাজনীতি থেকে বিদায় নিচ্ছেন। কারণ তার দল ও পরিবারের পক্ষ থেকে কারামুক্তির ব্যাপারে কোন উদ্যোগ নেয়া হয়নি। যার কারণে অনেকটা অভিমান থেকেই বিএনপির রাজনীতি থেকে নীরবে সরে দাঁড়াতে চান বেগম জিয়া।

দায়িত্বশীল একটি সূত্র জানিয়েছে, দুই বছরেরও অধিক সময় ধরে দুর্নীতি মামলায় কারান্তরীণ বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া। অথচ এই দীর্ঘসময়েও তার মুক্তি কিংবা দল পুনর্গঠনে মনোনিবেশ করেননি দলের দায়িত্বে থাকা ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমান। উপরন্তু মজেছেন মোটা উৎকোচের বিনিময়ে পদ-মনোনয়ন বাণিজ্যে। এতে দলের মধ্যে সৃষ্টি হয়েছে বিভক্তি ও কোন্দল। এ কারণে খালেদার মুক্তি নিয়ে ডাকা কোন কর্মসূচিতেই উপস্থিত হন না দলীয় নেতাকর্মীরা। আগ্রহ হারিয়েছেন তার আইনজীবীরাও। হতাশ হয়ে ছেড়ে দিয়েছেন আইনি লড়াইও। বিএনপির নেতাসহ তার পরিবারের বাগাড়ম্বরে আস্থা হারিয়ে তাই খালেদা জিয়া সিদ্ধান্ত নিয়েছেন নিজের সব অপকর্মের দায় স্বীকার করে নিতে। এজন্য তিনি ইতোমধ্যে নতিস্বীকার করে রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রী বরাবর আইনজীবীর মাধ্যমে দণ্ড মওকুফ ও কারামুক্তির আবেদন করেছেন। তার আবেদনের পর থেকেই রাজনৈতিক মহলে শুরু হয়েছে আলোচনা-সমালোচনা।

বিএনপির একটি বৃহৎ অংশ বলছে, খালেদা জিয়ার কারামুক্তিতে তারা তারেক রহমানের নির্দেশনা অনুযায়ী কাজ করেছেন। নিজেদের সবটুকু দিয়ে চেষ্টা করেছেন দলীয় নেত্রীকে মুক্ত করতে। সে অনুযায়ী দলীয় কর্মসূচিও ঘোষণা করা হয়েছিল। কিন্তু দুঃখজনক বিষয় কেউ সেসব কর্মসূচিতে সাড়া দেয়নি। এজন্য হয়তো দল ও পরিবারের উপর অভিমান করে ম্যাডাম (খালেদা জিয়া) তার বিরুদ্ধে আনা সব অপরাধের দায় স্বীকার করে রাষ্ট্রপক্ষের কাছে মুক্তির আবেদন করেছেন। তবে রাজনীতি থেকে বিদায় নেবেন কিনা সে ব্যাপারে দলের কাছে কোন তথ্য নেই।

এ বিষয়ে রাজনৈতিক বিশিষ্টজনরা বলছেন, রাজনীতিতে প্রতিষ্ঠিত হওয়ার জন্য যে রকম কাঠখড় পোড়াতে হয়, তা করতে হয়নি খালেদাকে। তিনি জিয়ার মৃত্যুর পর বিধবা স্ত্রী হিসেবে দলের ঐক্য বজায় রাখার জন্য এবং পাকিস্তানি গোয়েন্দা সংস্থা আইএসআইয়ের মধ্যস্থতায় বিএনপির শীর্ষ পদে আসীন হন। এ কারণে তিনি পদ ও দলের মর্ম না বুঝে লিপ্ত হয়েছিলেন সীমাহীন দুর্নীতিতে। যার চূড়ান্ত পরিণতি হিসেবে এখন তিনি কারান্তরীণ। কারাবাসকালে খালেদার উপলব্ধি হয়েছে, দল কিংবা পরিবার তার মুক্তির ব্যাপারে কোন পদক্ষেপ নেবে না। তাই বাধ্য হয়ে নিজের সব অপকর্ম স্বীকার করে তিনি সরকারের দ্বারস্থ হয়েছেন। একইসঙ্গে সিদ্ধান্ত নিয়েছেন রাজনীতি ছাড়ার।

বরগুনার আলো