মঙ্গলবার   ১৭ সেপ্টেম্বর ২০১৯   আশ্বিন ২ ১৪২৬   ১৭ মুহররম ১৪৪১

বরগুনার আলো
ব্রেকিং:
৮ হাজার ৯৬৮ কোটি ৮ লাখ টাকার প্রকল্প একনেকে অনুমোদন ভারতীয় কোস্টগার্ড ডিজির সঙ্গে রীভা গাঙ্গুলির বৈঠক ইসির চুরি যাওয়া ল্যাপটপ উদ্ধার, আটক ৩ আজ মহান শিক্ষা দিবস প্রধানমন্ত্রী ‘রাজহংস’ উদ্বোধন করবেন আজ রোহিঙ্গা ভোটার: ইসি কর্মচারীসহ আটক ৩ রিফাত-মিন্নির নতুন ভিডিও, বেরিয়ে এলো চাঞ্চল্যকর তথ্য ‘বিজ্ঞান-প্রযুক্তির বিকাশ ছাড়া দেশ উন্নয়ন করা সম্ভব নয়’ রোহিঙ্গা ভোটার খতিয়ে দেখতে চট্টগ্রামে কবিতা খানম আগামী ১০মাসের রোডম্যাপ তৈরি ও তার বাস্তবায়ন করবো - জয় ও লেখক ডেঙ্গুতে সরকারি হিসেবে ৬৮ জনের মৃত্যু আ. লীগের সম্পাদকমণ্ডলীর সভা ১৮ সেপ্টেম্বর বঙ্গবন্ধুর নাতনি টিউলিপের জন্মদিন আজ আজ থেকে ট্রাকে পেঁয়াজ বিক্রি করবে টিসিবি বিশ্ব ওজন দিবস আজ শিগগিরই বন্দর-ট্রেনে যুক্ত হচ্ছে ত্রিপুরা-বাংলাদেশ দিল্লিতে শেখ হাসিনা-মোদি বৈঠক ৫ অক্টোবর সারাদেশে ৭৫ প্রতিষ্ঠানকে পাঁচ লক্ষাধিক টাকা জরিমানা প্রাথমিকের শিক্ষক নিয়োগের ফল প্রকাশ এ পি জে আব্দুল কালাম স্মৃতি পুরস্কারে ভূষিত শেখ হাসিনা

রোহিঙ্গাদের ফেরাতে সক্রিয় ভূমিকা পালন করবে চীন

প্রকাশিত: ১২ সেপ্টেম্বর ২০১৯  

ঢাকায় নবনিযুক্ত চীনের রাষ্ট্রদূত লি জিমিং বুধবার বলেছেন, তার দেশ উদ্বাস্তু রোহিঙ্গাদের বাংলাদেশ থেকে মিয়ানমারে প্রত্যাবাসনের জন্য গঠনমূলক ও সক্রিয় ভূমিকা পালন করবে।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সাথে তার সংসদ ভবন কার্যালয়ে সৌজন্য সাক্ষাৎ করতে গিয়ে চীনা রাষ্ট্রদূত এসব কথা বলেন।

বৈঠক শেষে সাংবাদিকদের এ তথ্য জানান প্রধানমন্ত্রীর প্রেস সচিব ইহসানুল করিম।

চীন-বাংলাদেশ সম্পর্ককে এক কৌশলগত বন্ধন হিসেবে বর্ণনা করে লি জিমিং বলেন, চীন রোহিঙ্গা ইস্যু নিয়ে কাজ করছে। নেপিডোতে নিযুক্ত চীনা রাষ্ট্রদূত পরিস্থিতি দেখতে রাখাইন রাজ্য সফরও করেছেন।

চীনের উদ্যোক্তারা বাংলাদেশে আরো বিনিয়োগে আগ্রহী জানিয়ে রাষ্ট্রদূত উভয়পক্ষের জন্য লাভজনক এমন প্রকল্পের প্রতি জোর দেন।

তিনি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ‘অসাধারণ নেতৃত্বের’ প্রশংসা করে বলেন, বাংলাদেশ অসামান্য অর্থনৈতিক উন্নয়ন অর্জন করেছে।

বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ ও চীনের কমিউনিস্ট পার্টি একই লক্ষ্য ধারণ করে বলে মন্তব্য করেন তিনি।

এ সময় প্রধানমন্ত্রী বলেন, চীন সর্বদা বাংলাদেশের পক্ষে সহায়ক।

রোহিঙ্গা বিষয়ে তিনি বলেন, বাস্তুচ্যুত রোহিঙ্গারা বাংলাদেশের জন্য বড় বোঝা। রোহিঙ্গারা যাতে নিজ দেশে ফিরে যায় সে জন্য মিয়ানমারের উচিত তাদের নিরাপত্তা ও সুরক্ষা নিশ্চিত করার পাশাপাশি তাদের মধ্যে আস্থা ও বিশ্বাস তৈরি করা।

শেখ হাসিনা বলেন, বাংলাদেশ চট্টগ্রামের আনোয়ারায় বিশেষ অর্থনৈতিক অঞ্চলে চীনা উদ্যোক্তাদের জন্য জমি বরাদ্দ করেছে।

বাংলাদেশ-চীন-ভারত-মিয়ানমার অর্থনৈতিক করিডর (বিসিআইএম-ইসি) সম্পর্কে তিনি বলেন, যদি অর্থনৈতিক করিডোর বাস্তবায়ন করা যায়, তবে এ অঞ্চলটিতে অর্থনৈতিক কার্যক্রম আরো প্রাণবন্ত হবে, কারণ দক্ষিণ ও দক্ষিণ পূর্ব এশিয়া একসঙ্গে একটি বড় বাজারে পরিণত হবে।

বাংলাদেশে বিভিন্ন প্রকল্পে চীনের সহযোগিতার প্রশংসা করেন প্রধানমন্ত্রী।

বিদ্যুৎ উৎপাদন প্রসঙ্গে তিনি বলেন, বিদ্যুৎ উৎপাদন ক্ষমতা ২০০৬ সালে ৩২০০ মেগাওয়াট ছিল। এখন তা বেড়ে ২২০০০ মেগাওয়াটের বেশি হয়েছে।

প্রধানমন্ত্রীর মুখ্য সচিব নজিবুর রহমান এ সময় উপস্থিত ছিলেন।

এই বিভাগের আরো খবর