• শনিবার   ৩০ মে ২০২০ ||

  • জ্যৈষ্ঠ ১৫ ১৪২৭

  • || ০৭ শাওয়াল ১৪৪১

বরগুনার আলো
ব্রেকিং:
পদ্মাসেতুর সাড়ে ৪ কি.মি. দৃশ্যমান, বসল ৩০তম স্প্যান পদ্মা সেতুর ৩০তম স্প্যান বসছে আজ একদিনে সর্বোচ্চ আড়াই হাজার শনাক্ত, মৃত্যু ২৩ জনের বিকেল ৪টার মধ্যে বন্ধ করতে হবে দোকান-শপিংমল দেশে ২৪ ঘণ্টায় আক্রান্ত ২ হাজার ছাড়ালো, মৃত্যু ১৫ স্বাস্থ্যবিধি মেনে ৩১ মে থেকে গণপরিবহন চালুর সিদ্ধান্ত দেশে একদিনে নতুন শনাক্ত ১৫৪১, মৃত্যু ২২ জীবন বাঁচাতে জীবিকাও সচল রাখতে হবে: কাদের ২৪ ঘণ্টায় সর্বোচ্চ ১৮৭৩ জন শনাক্ত, মৃত্যু আরও ২০ জনের র‌্যাব-৮ এর অভিযানে মাদারীপুর থেকে জেএমবি’র সক্রিয় সদস্য গ্রেফতার ২৪ ঘণ্টায় ২৪ জনের মৃত্যু, আক্রান্ত ছাড়াল ৩০ হাজার মমতাকে সহমর্মিতা জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ফোন মোংলা ও পায়রা বন্দরে ১০ নম্বর মহাবিপদ সংকেত মহাবিপদ সংকেত জারি সকালে, রাতের মধ্যে আসতে হবে আশ্রয় কেন্দ্রে ২ লাখ ৫ হাজার কোটি টাকার উন্নয়ন বাজেট অনুমোদন আম্পানের আঘাতে ১০ ফুটের অধিক উচ্চতার জলোচ্ছ্বাসের আশঙ্কা আরও ১২৫১ করোনা রোগী শনাক্ত, মৃত্যু ২১ জনের আরও ৭ হাজার কওমি মাদ্রাসাকে প্রধানমন্ত্রীর অর্থ সহায়তা পায়রা-মংলায় ৭, চট্টগ্রাম-কক্সবাজারে ৬ নম্বর বিপদ সংকেত দেশে একদিনে আক্রান্ত ও মৃত্যুর নতুন রেকর্ড
৫৬

লাইলাতুল কদরের বিশেষ আমল

বরগুনার আলো

প্রকাশিত: ১৫ মে ২০২০  

 

পবিত্র কোরআন ও হাদিসের ঘোষণা অনুযায়ী এ দশকের বেজোড় রাতগুলোতে লাইলাতুল কদর তালাশ করা মুসলিম উম্মাহর জন্য একান্ত জরুরি। এ রাতের সন্ধান করতে প্রিয় নবী রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম ইরশাদ করেন, ‘তোমরা রমজানের শেষ দশকের বেজোড় রাতে লাইলাতুল কদর অনুসন্ধান কর।’
পবিত্র কোরআন ও হাদিসের ঘোষণা অনুযায়ী এ দশকের বেজোড় রাতগুলোতে লাইলাতুল কদর তালাশ করা মুসলিম উম্মাহর জন্য একান্ত জরুরি। এ রাতের সন্ধান করতে প্রিয় নবী রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম ইরশাদ করেন, ‘তোমরা রমজানের শেষ দশকের বেজোড় রাতে লাইলাতুল কদর অনুসন্ধান কর।’

মহান রাব্বুল আলামিন আল্লাহ তায়ালা রমজান মাসের শেষ দশকের বেজোড় রাতগুলোতে মুমিন বান্দার জন্য রেখেছেন ফজিলত পূর্ণ রাত। যাকে পবিত্র কোরআনের ভাষায় বলা হয় ‘লাইলাতুল কদর’।
আরবি ভাষায় ‘লাইলাতুল’ অর্থ হলো রাত্রি বা রজনী এবং ‘কদর’ শব্দের অর্থ সম্মান, মর্যাদা, মহাসম্মান। 

এ রাতে মহান আল্লাহ তায়ালা পবিত্র কোরআন নাজিল করেছেন। আর এ রাতের ফজিলত বর্ণনা করতে গিয়ে মহান আল্লাহ তায়ালা ঘোষণা করেন,

إِنَّآ أَنزَلۡنَـٰهُ فِى لَيۡلَةِ ٱلۡقَدۡرِ
وَمَآ أَدۡرَٮٰكَ مَا لَيۡلَةُ ٱلۡقَدۡرِ
لَيۡلَةُ ٱلۡقَدۡرِ خَيۡرٌ۬ مِّنۡ أَلۡفِ شَہۡرٍ۬
تَنَزَّلُ ٱلۡمَلَـٰٓٮِٕكَةُ وَٱلرُّوحُ فِيہَا بِإِذۡنِ رَبِّہِم مِّن كُلِّ أَمۡرٍ۬
سَلَـٰمٌ هِىَ حَتَّىٰ مَطۡلَعِ ٱلۡفَجۡرِ
বাংলা উচ্চারণ :
ইন্না আনযালনাহু ফী লাইলাতিল কাদরি, ওয়ামা আদরাকা মা লাইলাতুল কাদরি, লাইলাতুল কাদরি খাইরুম মিন আলফি শাহর, তানাযযালুল মালাইকাতু ওয়াররূহ, ফিহা বিইযনি রাব্বিহিম মিন কুল্লি আমরিন, সালামুন হিয়া হাত্তা মাতলাইল ফাজর।

> আমি একে (কোরআন) অবর্তীণ করেছি লাইলাতুল কদরে।

> (হে রাসূল!) আপনি কি লাইলাতুল কদর সম্বন্ধে জানেন?

> লাইলাতুল কদর হলো এক হাজার মাস অপেক্ষা শ্রেষ্ঠ।

> তাদের পালনকর্তার নির্দেশক্রমে এতে (এ রাতে) প্রত্যেক কাজের জন্য ফেরেশতারা এবং রূহ (জিবরিল আলাইহিস সালাম) অবর্তীণ হন।

> শান্তিময় সেই রাত; যা ফজর উদয় পর্যন্ত অব্যহত থাকে। (সূরা : কদর ৯৭: ১-৫)।

এ রাতের ইবাদতের ব্যাপারে প্রিয় নবী হজরত মুহাম্মাদ (সা.) স্ত্রী-পরিবারসহ সারা জেগে থেকে ইবাদত-বন্দেগিতে অতিবাহিত করতেন। তিনি রমজানের শেষ দশকের ইবাদতের মতো এতো বেশি পরিশ্রম অন্য সময় করতেন না।

মহান আল্লাহ তায়ালা এ রাতকে বরকতময় রাত হিসেবে ঘোষণা দিয়েছেন। পবিত্র কোরআনে এসেছে- ‘নিশ্চয় আমি ইহা (কোরআন) কে এক বরকতময় রাতে নাজিল করেছি।’ (সূরা : দুখান, আয়াত : ৩)।

এ রাতের বরকতের ফজিলত বর্ণনায় প্রিয় নবী ঘোষণা করেন, ‘যে ব্যক্তি ঈমানের সঙ্গে সাওয়াবের আশায় এ (লাইলাতুল কদরে) রাতে ইবাদত-বন্দেগি করে, তার আগের সব ছোট গোনাহ মাফ হয়ে যায়।’

পবিত্র কোরআন ও হাদিসের ঘোষণা অনুযায়ী এ দশকের বেজোড় রাতগুলোতে লাইলাতুল কদর তালাশ করা মুসলিম উম্মাহর জন্য একান্ত জরুরি। এ রাতের সন্ধান করতে প্রিয় নবী রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম ইরশাদ করেন, ‘তোমরা রমজানের শেষ দশকের বেজোড় রাতে লাইলাতুল কদর অনুসন্ধান কর।’

তাই শুধুমাত্র রমজানের ২৭ তারিখ লাইলাতুল কদর উদযাপন না করে শেষ দশকের বেজোড় রাতগুলোতে তা অনুসন্ধান করা উচিত।

হজরত আয়েশা রাদিয়াল্লাহু আনহা অন্য হাদিসে বর্ণনা করেন, ‘তোমরা রমজানের শেষ দশকের বেজোড় রাত্রিগুলোতে লাইলাতুল কদর অনুসন্ধান কর।’

হাদিসের ঘোষণার প্রেক্ষিতে মুসলিম উম্মাহর উচিত, রমজানের শেষ দশকের ২১, ২৩, ২৫, ২৭ ও ২৯ তারিখ রাতে লাইলাতুল কদর তালাশ করা।

এ রাতের (লাইলাতুল কদর) বিশেষ দোয়া বা আমল :

উম্মুল মুমিনিন হজরত হজরত আয়েশা রাদিয়াল্লাহু আনহা বর্ণনা করেন, একবার আমি রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামকে জিজ্ঞাসা করলাম- হে আল্লাহর রাসূল! (সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম) আপনি বলে দিন, আমি যদি লাইলাতুল কদর কোন রাতে হবে তা জানতে পারি, তাতে আমি কি (দোয়া) পড়বো?

প্রিয় নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বললেন, তুমি বলো-

আরবি :

اللَّهُمَّ إِنَّكَ عُفُوٌّ تُحِبُّ الْعَفْوَ فَاعْفُ عَنِّي
বাংলা উচ্চারণ :

‘আল্লাহুম্মা ইন্নাকা আ’ফুউবুন তুহিব্বুল আফওয়া ফাআ’ফু আন্নি।’

অর্থ :

‘হে আল্লাহ! অবশ্যই তুমি ক্ষমাশীল, দয়াময়, তুমি ক্ষমা করাকে ভালোবাস। অতএব, তুমি আমাকে ক্ষমা করে দাও। (সুনানে ইবনে মাজাহ : হাদিস- ৩৮৫০ সহিহ, আহমাদ : হাদিস- ৬/১৮২, সহিহ-আলবানি, তিরমিযী : হাদিস-৩৫১৩)।

এক কথায় পবিত্র লাইলাতুল কদরের রাতের সব ইবাদতই আল্লাহ তায়ালা কবুল করেন। আর এ রাতের সব ইবাদতই ফজিলতপূর্ণ। এ রাতে নফল নামাজ, পবিত্র কোরআন তেলাওয়াত, জিকির-আজকার, তাসবিহ-তাহলিল, দোয়া-দরূদ, তাওবা-ইসতেগফারের গুরুত্ব অনেক বেশি।

তাই মহান আল্লাহর ক্ষমা ও জাহান্নামের আগুন থেকে মুক্তি লাভে লাইলাতুল কদরের উদ্দেশ্যে রমজানের বেজোড় রাতগুলো জেগে উল্লেখিত ইবাদত-বন্দেগির মাধ্যমে অতিবাহিত করার জরুরি।

মহান আল্লাহ তায়ালা পবিত্র কোরআন ও সুন্নায় ঘোষিত মর্যাদাবান রাত লাইলাতুল কদরে ইবাদত বন্দেগির মাধ্যমে মুসলিম উম্মাহকে পরকালের কামিয়াবি ও জাহান্নামের আজাব থেকে মুক্তির তাওফিক দান করুন। আমিন।

বরগুনার আলো
ধর্ম বিভাগের পাঠকপ্রিয় খবর