• শনিবার   ০৬ জুন ২০২০ ||

  • জ্যৈষ্ঠ ২২ ১৪২৭

  • || ১৪ শাওয়াল ১৪৪১

বরগুনার আলো
ব্রেকিং:
৩ হাজার মেডিক্যাল টেকনোলজিস্ট নিয়োগে অনুমোদন দিলেন প্রধানমন্ত্রী মানুষকে সুরক্ষিত করতে প্রাণপণে চেষ্টা করছি: প্রধানমন্ত্রী করোনায় মৃত্যুর মিছিলে আরও ৩৫ জন, নতুন শনাক্ত ২৪২৩ গত ২৪ ঘণ্টায় করোনায় ৩৭ মৃত্যু, শনাক্ত আরও ২৬৯৫ আজ থেকে চলবে আরও ৯ জোড়া ট্রেন হাসপাতাল থেকে রোগী ফেরানো শাস্তিযোগ্য অপরাধ: তথ্যমন্ত্রী যেকোনো প্রতিবন্ধকতা মোকাবিলা করে এগিয়ে যেতে পারব: প্রধানমন্ত্রী সময় যত কঠিনই হোক দুর্নীতি ঘটলেই আইনি ব্যবস্থা: দুদক চেয়ারম্যান জেলা হাসপাতালগুলোতে আইসিইউ ইউনিট স্থাপনের নির্দেশ প্রধানমন্ত্রীর করোনা বিশ্ব বদলে দিলেও বিএনপিকে বদলাতে পারেনি: কাদের করোনায় ২৪ ঘণ্টায় ৩৭ মৃত্যু, শনাক্ত ২৯১১ সীমিত আকারে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলার নির্দেশনা খাদ্য উৎপাদন আরও বাড়াতে সব ধরনের প্রচেষ্টা চলছে: কৃষিমন্ত্রী সারা দেশকে লাল, সবুজ ও হলুদ জোনে ভাগ করা হবে: স্বাস্থ্যমন্ত্রী গত ২৪ ঘণ্টায় দেশে ২৩৮১ জনের করোনা শনাক্ত পুরোপুরি স্বাস্থ্যবিধি মেনে ট্রেন চলছে: রেলমন্ত্রী দেশে গত ২৪ ঘণ্টায় ২৫৪৫ জনের করোনা শনাক্ত, মৃত্যু ৪০ জন বাস ভাড়া যৌক্তিক সমন্বয়, প্রজ্ঞাপন আজই: ওবায়দুল কাদের এখনই শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খুলবো না: প্রধানমন্ত্রী ভিডিও কনফারেন্সে এসএসসির ফল প্রকাশ করলেন প্রধানমন্ত্রী
১১

শিশুসন্তান হত্যা,করোনার ঘাড়ে দোষ চাপালেন তুরস্কের ফুটবলার

বরগুনার আলো

প্রকাশিত: ১৩ মে ২০২০  

 


নিজ ছেলে পাঁচ বছরের শিশু কাসিম তোকতাসকে পছন্দ করতেন না বাবা তুরস্কের ফুটবলার সিভহার তোকতাস। আর তাই সুযোগ বুঝে কোয়ারেন্টাইনে থাকাকালীন শিশু সন্তানকে শাঁসরোধ করে হত্যা করেন এই ফুটবলার। হত্যার দোষ চাপিয়েছিলেন করোনাভাইরাসের ওপর।
গত ২৩ এপ্রিলে নিজের ছোট ছেলেকে শ্বাসরোধ করে হত্যা করেন তিনি। পরে বুরসা শহরে এক হাসপাতালে নিয়ে যান। চিকিৎসকদের বলেছিলেন, করোনাভাইরাসের কারণে মারা গেছেন তার ছেলে কাসিম। 

শ্বাসযন্ত্রের সমস্যার কারণে যেহেতু মারা গেছে ছেলেটি, তাই ডাক্তাররাও সন্দেহ করেননি। তবে ডাক্তারকে ফাঁকি দিলেও নিজের বিবেককে ফাঁকি দিতে পারেননি সিভহার। হত্যার দশ দিন পর নিজেই পুলিশের কাছে ধরা দিয়েছেন।

স্বিকার করেছেন হত্যার মূল রহস্য, ‘ও ঘুমিয়ে ছিল। বালিশ দিয়ে আমি ওর মুখ চেপে ধরি। প্রথমে একটু প্রতিরোধ করতে চাইলেও পরে আর পেরে ওঠেনি। পনেরো মিনিট ধরে ওর মুখে বালিশ চেপে রাখি। আস্তে আস্তে নিস্তেজ হয়ে যায় ওর শরীর’।

তিনি আরো বলেন, আমি ওকে কখনই চাইনি। কেন জানি ওকে সহ্যই করতে পারতাম না। জন্ম থেকেই ওকে ভালো লাগতো না আমার। এটাই একমাত্র কারণ ও মারা যাওয়ার পেছনে, আমি ওকে পছন্দ করতাম না।

নিজের কোনো মানসিক সমস্যা নেই বলে পুলিশকে জানিয়েছেন ইলদ্রিমস্পোর ক্লাবে খেলা এ সেন্ট্রাল ডিফেন্ডার। 

বরগুনার আলো
খেলা বিভাগের পাঠকপ্রিয় খবর