শনিবার   ১৮ জানুয়ারি ২০২০   মাঘ ৪ ১৪২৬   ২২ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪১

বরগুনার আলো
ব্রেকিং:
বিপিএলে প্রথম শিরোপার স্বাদ পেলো রাজশাহী আদালতে মজনুর স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে সাউন্ড সিস্টেমে জাতীয় সংগীত পরিবেশন করা যাবে ১ ফেব্রুয়ারি থেকে এসএসসি শুরু প্রথম আলোর সম্পাদকসহ ১০ জনের বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা আমরা ক্রসফায়ারকে সাপোর্ট করতে পারি না : ওবায়দুল কাদের পোশাক রপ্তানিকে ছাড়িয়ে যাবে আইসিটি : জয় বিশ্ব ইজতেমার দ্বিতীয় পর্ব শুরু কাল বিশ্ব ইজতেমার ২য় পর্বে ময়দানে আসতে শুরু করেছেন মুসল্লিরা অন্ধকার ভেদ করে আলোর পথে বাংলাদেশ: সংসদে প্রধানমন্ত্রী রিফাত হত্যা : দুই আসামি জামিনে মুক্ত দুর্নীতি মামলা : বিএনপি প্রার্থী ইশরাকের বিচার শুরু কাদেরের বাইপাস পরবর্তী স্বাস্থ্যের উন্নতি, দেশে ফিরছেন রাতেই  এসডিজি অর্জনে বাংলাদেশ সঠিক পথে রয়েছে : প্রধানমন্ত্রী আবুধাবি থেকে দেশে ফিরেছেন প্রধানমন্ত্রী সরকারের জনপ্রিয়তা অনেক বেড়েছে: আইআরআই ওমানের সুলতানের মৃত্যুতে প্রধানমন্ত্রীর শোকবার্তা আবুধাবি থেকে দেশের পথে প্রধানমন্ত্রী পদ্মাসেতুতে বসলো ২১তম স্প্যান,দৃশ্যমান হলো ৩ হাজার ১৫০ মিটার রিট খারিজ, নির্ধারিত তারিখেই হচ্ছে ঢাকার দুই সিটি নির্বাচন
৪৮

সরকারি হেল্পলাইনে এক বছরে ৩৪ হাজার মানুষকে আইনি সেবা

প্রকাশিত: ৮ সেপ্টেম্বর ২০১৯  

বর্তমান সরকারের বিনামূল্যে টোল ফ্রি হটলাইনের মাধ্যমে ২০১৮-২০১৯ অর্থবছরে মোট ৩৩ হাজার ৯৭৯ জনকে আইনগত পরামর্শ ও তথ্যসেবা দেওয়া হয়েছে। এর মধ্যে নারী ও শিশুর সংখ্যা প্রায় আট হাজার। সম্প্রতি জাতীয় আইনগত সহায়তা প্রদান সংস্থার এক প্রতিবেদনে এ তথ্য তুলে ধরা হয়েছে। ২০১৫-২০১৬ অর্থবছরের সংস্থাটির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে সরকারি আইনি সহায়তায় জাতীয় হেল্পলাইন ‘১৬৪৩০’ চালু করা হয়।
 
২০১৬ সালের ২৮ এপ্রিল এ হেল্পলাইনের উদ্বোধন করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। সেই থেকে ২৪ ঘণ্টা জাতীয় পর্যায়ে আইনগত সহায়তা সেবা দিচ্ছে টোল ফ্রি এ হেল্পলাইন।

প্রতিবেদনে বলা হয়, এ হেল্পলাইন উদ্বোধনের পর থেকে সারাদেশের অসংখ্য মানুষকে আইনি পরামর্শ, তথ্য সেবা ও লিগ্যাল কাউন্সেলিং সেবা দেওয়া হচ্ছে, যা অসহায় মানুষের আইনি অধিকার সুরক্ষায় কার্যকর অবদান রাখছে। ২০১৮-২০১৯ অর্থবছরে এ কলসেন্টার থেকে ৩৩ হাজার ৯৭৯ জনকে আইনগত পরামর্শ ও তথ্য সেবা দেওয়া হয়েছে। এর মধ্যে ৭ হাজার ৭৬৭ জন নারী, ২৫ হাজার ৪৯৫ জন পুরুষ, ৬৫১ জন শিশু ও ১৬ জন তৃতীয় লিঙ্গের মানুষ রয়েছেন।
 
আর্থিকভাবে অসচ্ছল, সহায়-সম্বলহীন ও নানাবিধ আর্থ-সামাজিক কারণে বিচার পেতে অসমর্থ জনগোষ্ঠীকে আইনগত সহায়তা দিতে ২০০০ সালে ‘আইনগত সহায়তা প্রদান’ আইন প্রণয়ন করা হয়। এ আইনের আওতা সরকার ‘জাতীয় আইনগত সহায়তা প্রদান সংস্থা’ প্রতিষ্ঠা করে। দরিদ্র-অসহায়দের আইনের আশ্রয় ও বিচার প্রবেশাধিকার নিশ্চিত করার উদ্দেশ্যে এ সংস্থার অধীনে প্রত্যেক জেলায় জজ কোর্ট প্রাঙ্গণে জেলা লিগ্যাল এইড অফিস স্থাপন করা হয়েছে। সেখানে সহকারী জজ/সিনিয়র সহকারী জজ পদমর্যাদার একজন বিচারককে ‘লিগ্যাল এইড অফিসার’ হিসেবে পদায়ন করা হয়। 

এছাড়া, দেশের সর্বোচ্চ আদালতে সরকারি আইনি সেবা নিশ্চিত করতে স্থাপন করা হয়েছে সুপ্রিম কোর্ট লিগ্যাল এইড অফিস।  উপজেলা ও ইউনিয়ন পর্যায়ে লিগ্যাল এইড কমিটি গঠন করা হয়েছে। চৌকি আদালত ও শ্রম আদালতে গঠিত হয়েছে বিশেষ কমিটি।

এই বিভাগের আরো খবর