• শনিবার   ৩০ মে ২০২০ ||

  • জ্যৈষ্ঠ ১৬ ১৪২৭

  • || ০৭ শাওয়াল ১৪৪১

বরগুনার আলো
ব্রেকিং:
করোনায় ২৪ ঘণ্টায় ২৮ জনের মৃত্যু, শনাক্ত ১৭৬৪ পদ্মাসেতুর সাড়ে ৪ কি.মি. দৃশ্যমান, বসল ৩০তম স্প্যান পদ্মা সেতুর ৩০তম স্প্যান বসছে আজ একদিনে সর্বোচ্চ আড়াই হাজার শনাক্ত, মৃত্যু ২৩ জনের বিকেল ৪টার মধ্যে বন্ধ করতে হবে দোকান-শপিংমল দেশে ২৪ ঘণ্টায় আক্রান্ত ২ হাজার ছাড়ালো, মৃত্যু ১৫ স্বাস্থ্যবিধি মেনে ৩১ মে থেকে গণপরিবহন চালুর সিদ্ধান্ত দেশে একদিনে নতুন শনাক্ত ১৫৪১, মৃত্যু ২২ জীবন বাঁচাতে জীবিকাও সচল রাখতে হবে: কাদের ২৪ ঘণ্টায় সর্বোচ্চ ১৮৭৩ জন শনাক্ত, মৃত্যু আরও ২০ জনের র‌্যাব-৮ এর অভিযানে মাদারীপুর থেকে জেএমবি’র সক্রিয় সদস্য গ্রেফতার ২৪ ঘণ্টায় ২৪ জনের মৃত্যু, আক্রান্ত ছাড়াল ৩০ হাজার মমতাকে সহমর্মিতা জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ফোন মোংলা ও পায়রা বন্দরে ১০ নম্বর মহাবিপদ সংকেত মহাবিপদ সংকেত জারি সকালে, রাতের মধ্যে আসতে হবে আশ্রয় কেন্দ্রে ২ লাখ ৫ হাজার কোটি টাকার উন্নয়ন বাজেট অনুমোদন আম্পানের আঘাতে ১০ ফুটের অধিক উচ্চতার জলোচ্ছ্বাসের আশঙ্কা আরও ১২৫১ করোনা রোগী শনাক্ত, মৃত্যু ২১ জনের আরও ৭ হাজার কওমি মাদ্রাসাকে প্রধানমন্ত্রীর অর্থ সহায়তা পায়রা-মংলায় ৭, চট্টগ্রাম-কক্সবাজারে ৬ নম্বর বিপদ সংকেত
১৬১

‘সোনার চর’ ঘিরে এক্সক্লুসিভ পর্যটন কেন্দ্র গড়ে তুলতে প্রকল্প

বরগুনার আলো

প্রকাশিত: ১৯ আগস্ট ২০১৯  

অপরূপ প্রাকৃতিক সৌন্দর্যে ভরা বঙ্গোপসাগরের তীরবর্তী  ‘সোনার চর’ যেন আরেক সেন্টমার্টিন। পটুয়াখালীর রাঙাবালী উপজেলার দক্ষিণ সীমানায় বঙ্গোপসাগরের একেবারে কোলঘেঁষে এর অবস্থান। পটুয়াখালীর মূল ভূখণ্ড থেকে ১২০ কিলোমিটার দক্ষিণে এবং পর্যটন কেন্দ্র কুয়াকাটা থেকে মাত্র ৫০ কিলোমিটার পূর্ব দিকে অবস্থান এ চরের।

সৈকতের পাশে ঝাউগাছের সারি আর শীতে পরিযায়ী পাখির বিচরণক্ষেত্র হয়ে ওঠা সোনার চর ঘিরে এক্সক্লুসিভ পর্যটন কেন্দ্র গড়ে তুলতে প্রকল্প হাতে নিয়েছে সরকার। এজন্য সংশ্লিষ্ট এলাকায় সার্ভে কাজে ব্যবহার করা হবে ড্রোন।

সোনার চরের বিশ হাজার ছাব্বিশ হেক্টর বিস্তৃত বনভূমিসহ ১০ কিলোমিটার দীর্ঘ সমুদ্র সৈকতজুড়ে গড়ে তোলা হবে এক্সক্লুসিভ পর্যটন কেন্দ্র। এজন্য ‘প্রিপারেশন অব পায়রা-কুয়াকাটা- রিজিওনাল প্ল্যান’ প্রকল্প বাস্তবায়ন করতে যাচ্ছে সরকার। এসব এলাকাজুড়ে বাস্তবায়ন করা হবে মহাপরিকল্পনা। এর আগে সমীক্ষা করা হবে সংশ্লিষ্ট এলাকায়। এ কাজে ৬৩ কোটি ২১ লাখ টাকা ব্যয় করবে সরকার।

নগর উন্নয়ন অধিদফতর জানায়, নদী বা সমুদ্রই হচ্ছে এই চরে যাতায়াতের একমাত্র পথ। সোনার চর সূর্যের আলোতে সোনার মত চকচক করে। চরের প্রতিটি বালুকণা সোনার মত দেখায়। এছাড়া সোনার চরে আছে হরিণ, বানর, শুকরসহ বিভিন্ন প্রজাতির বন্যপ্রাণী। দেখা যায় প্রকৃতির নীলিমায় ভরা মনোরম দৃশ্য। শেষ বিকেল থেকে শুরু হয় লাল কাঁকড়ার ছোটাছুটি। রয়েছে সুন্দরী, কেওড়া, গড়াল, গর্জন, খইয়া বাবলা ও ছইলাসহ বিভিন্ন প্রজাতির গাছ।

চরকে এক্সক্লুসিভ পর্যটন কেন্দ্রে রূপান্তর করতে সমীক্ষা কাজ পরিচালনায় দুই কোটি টাকা মূল্যের কয়েকটি ড্রোন ব্যবহার করা হবে। পরামর্শক প্রতিষ্ঠানের মাধ্যমে ড্রোন ইমেজ ক্রয় এবং ম্যাপ তৈরির কাজ করা হবে ১৫ হাজার একরজুড়ে। প্রকল্পের আওতায় দুই কোটি টাকা ব্যয়ে ড্রোন কেনার প্রস্তাব করা হয়েছে। পর্যায়ক্রমে এক লাখ একর এলাকা ড্রোনের মাধ্যমে সার্ভে করা হবে। সার্ভে থেকে পাওয়া তথ্যের উপর ভিত্তি করেই মহাপরিকল্পনা নেওয়া হবে বলে জানায় নগর উন্নয়ন অধিদফতর।

অধিদফতর সূত্র জানায়, প্রকল্প এলাকাটি ঘূর্ণিঝড়, জলোচ্ছ্বাস, লবণাক্ততা, নদী ভাঙনসহ জলবায়ু পরিবর্তনের বিরূপ প্রভাবের ঝুঁকির মধ্যে অবস্থিত, যা উন্নয়নকে বাধাগ্রস্ত করতে পারে। এ প্রেক্ষাপটে দুর্যোগ ও জলবায়ু পরিবর্তনের বিরূপ প্রভাব সহনীয় পরিকল্পিত ভূমি ব্যবহার নিশ্চিতকরণেই ড্রোন সার্ভে করা হবে। কৃষি জমি সুরক্ষা, পরিকল্পিত আধুনিক বন্দর নগরী ও বাস্তুসংস্থান সহায়ক গড়ে তোলার মাধ্যমে কর্মসংস্থানের সুযোগ সৃষ্টি করতে মহাপরিকল্পনা নিতে যাচ্ছে সরকার।

প্রকল্পের আওতায় সোনার চরকে বিশ্বমানের পর্যটন কেন্দ্রের রূপ দেওয়া হবে। এজন্য সব ধরনের আধুনিক অবকাঠামো নির্মাণ করবে সরকার। কুয়াকাটা, তালতলী ও পাথরঘাটা উপজেলা সমন্বয়ে পর্যটন জোন স্থাপনেও করা হবে ড্রোন সার্ভে। চলতি সময় থেকে শুরু করে ২০২১ সালের জুন মাসে সার্ভে কাজ সমাপ্ত হবে।

নগর উন্নয়ন অধিদফতরের সিনিয়র প্ল্যানার মাকসুদ হাসেম বলেন, এক্সক্লুসিভ পর্যটন কেন্দ্র হবে ‘সোনার চর’। শুধু সোনার চর নয় উপকূলীয় অনেক এলাকায় ট্যুরিস্ট জোন হবে। এসব এলাকায় ইকোপার্কসহ ম্যানগ্রোভ ফরেস্টে রূপ দেওয়া হবে। পর্যটন কেন্দ্র হিসেবে সোনার চরে রয়েছে অপার সম্ভাবনা। এখানে যাতায়াতের সুব্যবস্থাসহ রাত্রীযাপনের জন্য নির্মাণ করা হবে আধুনিক অবকাঠামো।

তিনি আরো বলেন, আধুনিক অবকাঠামো নির্মাণের আগে পুরো এলাকা সার্ভে করতে ব্যবহার করা হচ্ছে ড্রোন। সার্ভে সম্পন্ন হওয়ার পরই পুরো এলাকাজুড়ে মহাপরিকল্পনা নেওয়া হবে। এরইমধেই আমরা ১৫ হাজার একর ড্রোন ইমেজ নিয়েছি, সামনে আরো কিছু ড্রোন ইমেজ নেওয়া হবে। সোনার চরকে ঘিরে গড়ে উঠতে পারে বিশ্বমানের ইকো ট্যুরিজম। তবে নদী বা সমুদ্র পথ ছাড়া যাতায়াতের কোনো সুযোগ নেই।

বরগুনার আলো
ভ্রমণ বিভাগের পাঠকপ্রিয় খবর