• রোববার   ১১ এপ্রিল ২০২১ ||

  • চৈত্র ২৮ ১৪২৭

  • || ২৮ শা'বান ১৪৪২

বরগুনার আলো
ব্রেকিং:
বাজেটে স্বাস্থ্য ও কৃষি খাত গুরুত্ব পাবে: অর্থমন্ত্রী ২৪ ঘণ্টায় আরো ৭৮ জনের মৃত্যু আ. লীগের নিজস্ব ইতিহাস তৈরির কারখানা নেই: কাদের লকডাউনে কোথাও উন্নয়ন কাজ বন্ধ থাকবে না: পরিকল্পনামন্ত্রী ফেসবুকে ‘উসকানিমূলক’ স্ট্যাটাস: গ্রেফতার হেফাজতের লোকমান আমিনী পুরো বিশ্বেই শান্তির সংস্কৃতি ছড়িয়ে দিতে চায় বাংলাদেশ: মোমেন ১২-১৩ এপ্রিল চলমান লকডাউনের নির্দেশনা জারি থাকবে: সেতুমন্ত্রী করোনায় একদিনে সর্বোচ্চ ৭৭ জনের মৃত্যু অরাজকতা সৃষ্টির চেষ্টা করলে কঠোর ব্যবস্থা : আইনমন্ত্রী আমাদের সামনে নির্ঘাত অশনি সংকেত : কাদের সরকারের নিজস্ব অর্থায়নে হচ্ছে দ্বিতীয় আমিনবাজার সেতু: সেতুমন্ত্রী দ্বিতীয় ডোজের টিকা নিলেন আইসিটি প্রতিমন্ত্রী মানুষ বাঁচাতে আরও কঠোর পদক্ষেপ নিতে হবে: প্রধানমন্ত্রী রফিকুল ইসলাম মাদানী আটক জনগণের নিরাপত্তার কথা মাথায় রেখেই লকডাউন দেয়া হয়েছে: অর্থমন্ত্রী টিকাদানে বিশ্বের শীর্ষ ২০ দেশের মধ্যে বাংলাদেশ: প্রধানমন্ত্রী করোনায় আরো ৬৬ জনের মৃত্যু ৮ এপ্রিল শুরু হচ্ছে টিকার দ্বিতীয় ডোজ: স্বাস্থ্য সচিব রাজধানীতে চলাচল করা গাড়ি গণপরিবহন নয়: জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী ২৪ ঘণ্টায় ৭০৭৫ জনের করোনা শনাক্ত, মৃত্যু ৫২

২০২৪ নয় ২৯ সালের নির্বাচন নিয়ে পরিকল্পনায় বিএনপি

বরগুনার আলো

প্রকাশিত: ৩ মার্চ ২০২১  

২০১৪ সালে দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচনের পর থেকে ঈদের পরে কঠোর আন্দোলনে যাবার ডাক দিয়ে আসছিলো বিএনপি। ২০১৪ সালের পর থেকে ২০২০ সাল পর্যন্ত সর্বমোট ১২টি ঈদ পার হলেও এখনো কোনো আন্দোলন তো দূরের কথা ছোটখাটো মিছিল ছাড়া কিছুই করতে পারেনি বিএনপি। সর্বশেষ বিএনপির পক্ষ থেকে ২০২১ সালের ঈদুল-ফিতরের পর কঠোর আন্দোলনের ডাক দেয়ার খবরে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে নানা প্রকারের হাসি ঠাট্টা শুরু হয়।

এই বিষয়ে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য গয়েশ্বর চন্দ্র রায় বলেন, মূলত সমন্বয়হীনতার অভাবেই আমরা আন্দোলন করতে পারছি না। দলের সিনিয়র নেতারা তারেক রহমানের নির্দেশে এক রকম সিদ্ধান্ত নেয়, আবার মির্জা ফখরুলরা নেন ভিন্ন সিদ্ধান্ত। নতুন করে দলে ইশরাক হোসেনের গ্রহণযোগ্যতা তৈরি হওয়ায়, তার নেয়া ভিন্ন সিদ্ধান্ত যোগ হওয়ায় আমাদের নেতৃত্বে বিভ্রান্তি সৃষ্টি হচ্ছে। এসব সমস্যা উৎরাতে পারলেই বিএনপি কঠোর আন্দোলন গড়ে তুলতে পারবে বলে আশা করছি।

গয়েশ্বর চন্দ্র রায়ের এমন বক্তব্যে খানিকটা হতাশা প্রকাশ করে দলটির স্থায়ী কমিটির আরেক সদস্য ব্যারিস্টার মওদুদ আহমেদ বলেন, গয়েশ্বর সাহেব যতোই বলুক না কেন, বিএনপি আর সেই আগের অবস্থানে নেই। ১৪ বছরে আগে বিএনপি যে অবস্থায় ছিলো এখনো ঠিক একই অবস্থায় আছে। বর্তমানে সব দিক থেকেই আমরা পিছিয়ে আছি। এমতাবস্থায় আন্দোলন তো দূরের কথা, অস্তিত্ব সংকটে পড়েছে বিএনপি। ফলে ঈদের পরে কঠোর আন্দোলনে যাবার স্বপ্ন কিভাবে বাস্তবায়ন করা হবে তা আমার মাথায় ধরছে না।

বিষয়টিকে ভিন্নভাবে ব্যাখ্যা করে বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেন, আমরা এখন আগের চেয়ে অনেক বেশি সংগঠিত। যদি এমন না হতো, তবে আমরা প্রেস ক্লাবের সামনে পুলিশের ওপর আক্রমণ করতে পারতাম না। আমি স্বীকার করছি, বিএনপিতে সমন্বয়হীনতা রয়েছে। তবে আমরা তা কাটিয়ে উঠার চেষ্টা করছি। আশা করছি ২০২৬ সালের মধ্যে আমরা আমাদের সব সমস্যার সমাধান করে গুছিয়ে উঠবে। এছাড়া আমরা ২০২৪ সালের নির্বাচনে ক্ষমতায় আসার জন্য এখনো প্রস্তুত হইনি। ইনশাআল্লাহ ২০২৯ সালের নির্বাচনে বিপুল ম্যান্ডেন্ট নিয়ে আমরা ফের ক্ষমতায় আসবো।

বরগুনার আলো