• শনিবার   ১১ জুলাই ২০২০ ||

  • আষাঢ় ২৭ ১৪২৭

  • || ২০ জ্বিলকদ ১৪৪১

বরগুনার আলো
ব্রেকিং:
করোনায় ২৪ ঘণ্টায় ৩০ মৃত্যু, শনাক্ত ২৬৮৬ লিবিয়ায় ২৬ বাংলাদেশিকে হত্যার ঘটনায় চক্রের দুই সদস্য কারাগারে করোনায় ২৪ ঘণ্টায় ৪১ মৃত্যু, শনাক্ত ৩৩০৭ এইচএসসিতে ভর্তি কার্যক্রম শুরু শিগগিরই: শিক্ষামন্ত্রী করোনায় মৃত প্রবাসীর পরিবার পাবে ৩ লাখ টাকা করে: প্রধানমন্ত্রী করোনায় ২৪ ঘণ্টায় ৪৬ মৃত্যু, শনাক্ত ৩৪৮৯ করোনা শনাক্তে প্রতারণায় কঠোর অবস্থানে সরকার : ওবায়দুল কাদের করোনায় ২৪ ঘণ্টায় ৫৫ মৃত্যু, শনাক্ত ৩০২৭ চলে গেলেন বরেণ্য সংগীতশিল্পী এন্ড্রু কিশোর করোনায় আরও ৪৪ মৃত্যু, শনাক্ত ৩২০১ ভিসার মেয়াদ বাড়ালো সৌদি আরব: পররাষ্ট্রমন্ত্রী গত ২৪ ঘণ্টায় করোনায় আক্রান্ত ২৭৩৮, মৃত্যু ৫৫ কাউকেই ভূতুড়ে বিদ্যুৎ বিল পরিশোধ করতে হবে না: বিদ্যুৎ সচিব আজ থেকে অধস্তন আদালতে আত্মসমর্পণ করা যাবে করোনায় ২৪ ঘণ্টায় ২৯ মৃত্যু, শনাক্ত ৩২৮৮ বেতন-ভাতা পরিশোধে মালিকরা সহমর্মিতার নজির দেখাবেন : কাদের পাটকল শ্রমিকরা দুই ধাপে সব পাওনা পাবে: পাটমন্ত্রী গত ২৪ ঘণ্টায় করোনায় আক্রান্ত ৪০১৯, মৃত্যু ৩৮ চালের বাজার অস্থিতিশীল করলে কঠোর ব্যবস্থা : খাদ্যমন্ত্রী গত ২৪ ঘণ্টায় করোনায় আক্রান্ত ৩৭৭৫, মৃত্যু ৪১
১১৮

৩৫ বছরের বেশি বয়সীদের ৩ শতাংশই চোখের গ্লুকোমায় ভুগছে

বরগুনার আলো

প্রকাশিত: ১৬ মার্চ ২০২০  

বিশ্বে প্রায় ৮ কোটি মানুষ চোখের গ্লুকোমা জনিত রোগ অন্ধত্বে ভুগছেন। যার একটি বড় অংশ দক্ষিণ এশিয়ার দেশগুলোতে। এ ধারাবাহিকতায় বাংলাদেশে পঁয়ত্রিশ বছরের বেশি বয়সীদের মধ্যে শতকরা ৩ ভাগ মানুষ রোগটির শিকার।

গত শনিবার (১৪ মার্চ) সকালে বিশ্ব গ্লুকোমা সচেতনতা সপ্তাহের শেষদিনে বাংলাদেশ গ্লুকোমা সোসাইটির উদ্যোগে ধানমন্ডির একটি রেস্টুরেন্টে আয়োজিত এক সভায় চক্ষু রোগ চিকিৎসা বিশেষজ্ঞরা এসব কথা বলেন।

তারা বলেন, নীরব অন্ধত্বের বড় কারণ রোগটির প্রতিকার না থাকায় প্রতিরোধই একমাত্র উপায়।

বাংলাদেশ গ্লুকোমা সোসাইটির সভাপতি অধ্যাপক ডা. মো. মিজানুর রহমান আলোচনা সভায় সভাপতিত্ব করেন।

সভায় বিশেষজ্ঞরা বলেন, রক্তের চাপের মতো চোখেরও একটি নির্দিষ্ট চাপ থাকে। কোনো কারণে এই চাপ বৃদ্ধি পেলে চোখের অপটিক নার্ভের মারাত্মক ক্ষতি হয়। ধীরে ধীরে নার্ভটি শুকিয়ে যায়। ফলে দৃষ্টির পরিসীমা কমতে থাকে। এক পর্যায়ে চোখ দৃষ্টিহীন হয়ে যেতে পারে।

তারা বলেন, সবচেয়ে আশঙ্কার কথা হলো শিশু থেকে বয়স্ক যে কারোরই চোখে গ্লুকোমার সমস্যা দেখা দিতে পারে। এছাড়া পরিবারের কারো রোগটির ইতিহাস থাকা, চোখে আঘাত পাওয়া ও ডায়াবেটিসের কারণেও এটি হতে পারে।

একবার দৃষ্টিশক্তি কিছুটা নষ্ট হলে সেটুকু আর ফিরে পাওয়া যায় না। কিন্তু ৯০ শতাংশ রোগী যেটি বুঝতে পারে না। এটি নীরবে চোখকে অন্ধত্বের দিকে নিয়ে যায়।

আলোচনা সভায় প্রধানমন্ত্রীর সাবেক উপদেষ্টা অধ্যাপক সৈয়দ মোদাচ্ছের আলী বলেন, সময়মতো গ্লুকোমার চিকিৎসা না করায় প্রতিদিন অসংখ্য মানুষ অন্ধত্বের শিকার হচ্ছে।

সংগঠনের মহাসচিব ডা. সালমা পারভীন বলেন, স্থায়ী অন্ধত্বের বড় কারণ গ্লুকোমা সমস্যা। তবে প্রাথমিক পর্যায়ে রোগ সনাক্ত করে চিকিৎসা নিতে পারলে এটি অনেকটাই প্রতিরোধ সম্ভব।

বরগুনার আলো
স্বাস্থ্য বিভাগের পাঠকপ্রিয় খবর