মঙ্গলবার   ১৯ নভেম্বর ২০১৯   অগ্রাহায়ণ ৫ ১৪২৬   ২১ রবিউল আউয়াল ১৪৪১

বরগুনার আলো
ব্রেকিং:
লবণের দাম বাড়ালে জেল-জরিমানা : বাণিজ্যমন্ত্রী লবণ নিয়ে গুজবে কান দিবেন না: শিল্প মন্ত্রণালয় ২০২১ সালের মধ্যে ১০০০ উদ্যোক্তা তৈরিতে সহায়তা দেবে সরকার পদ্মাসেতুর প্রায় আড়াই কিলোমিটার দৃশ্যমান সেনা কল্যাণ সংস্থার চারটি স্থাপনা উদ্বোধন মালিতে জঙ্গি হামলায় ২৪ সেনা নিহত কন্যা সন্তানের জনক হলেন তামিম কেন্দ্রীয় ১৪ দলের সভা আজ বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকী : ৫৪ স্থানে বসছে ক্ষণ গণনার ডিসপ্লে পদ্মা সেতুর ১৬তম স্প্যান বসছে আজ কার্গো বিমানে পেঁয়াজের প্রথম চালান আসছে আজ আজ দেশে ফিরবেন প্রধানমন্ত্রী আইসিসি রায় দিলে সু চি অন্য দেশে পালালেও গ্রেফতার হবেন: শাহরিয়ার পেঁয়াজ পৌঁছাবে মঙ্গলবার, নাগালে আসবে দাম : বাণিজ্য সচিব রিফাত হত্যা: পেছালো ১৪ আসামির বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠন নতুন সড়ক আইন বাস্তবায়নে বাড়াবাড়ি না করার নির্দেশ গ্রামীণফোনের কাছে বিটিআরাসির পাওনা: আপিলে আদেশ রোববার আবরার হত্যা : চারজনের বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা মঙ্গলবার ১৪ দলের সভা আবরার হত্যা : চার্জশিট গ্রহণের শুনানি দুপুরে
১০

‘৭৫ পরবর্তী সব বর্বরোচিত হত্যাকাণ্ডে নেপথ্যের খলনায়ক জিয়া’

প্রকাশিত: ৬ নভেম্বর ২০১৯  

তথ্য প্রতিমন্ত্রী ডা. মুরাদ হাসান বলেছেন, ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট থেকে শুরু করে ৩ নভেম্বর জেলহত্যা এবং ৭ নভেম্বর মুক্তিযোদ্ধাদের হত্যাকাণ্ডের নেপথ্যের খলনায়ক ছিলেন জিয়াউর রহমান।

মঙ্গলবার ( ৫ নভেম্বর ) জাতীয় প্রেস ক্লাবের মানিক মিয়া হলে সম্প্রতি বাংলাদেশ কর্তৃক আয়োজিত নভেম্বর ১৯৭৫ : ষড়যন্ত্র, রক্তাক্ত বাংলাদেশ ও প্রতিক্রিয়াশীলতা বিষয়ক আলোচনা অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি একথা বলেন।

প্রতিমন্ত্রী বলেন, বাংলাদেশের স্বাধীনতায় যে পাকিস্তানি প্রেতাত্মা মহল বিশ্বাস করেনি সেই ঘাতক দালালেরা খুনি জিয়ার নেতৃত্বে ৭৫ থেকে পরবর্তী সব বর্বরোচিত হত্যাকাণ্ড ঘটিয়ে ছিল। পৃথিবীর সব মানুষই জানেন, জেলখানা হলো যে কোনো কয়েদির জন্য সবচেয়ে নিরাপদ স্থান। কিন্তু সেই নিরাপদ স্থানেই খন্দকার মোশতাক ও পর্দার অন্তরালে জিয়াউর রহমানের ইঙ্গিতে জঘন্যতম যে ঘটনা ঘটে তা হল জেলখানার অভ্যন্তরে ৪ জন জাতীয় নেতার নির্মম হত্যাকাণ্ড। পৃথিবীর কোনো সভ্য সমাজে এমন জঘন্য কর্মকাণ্ডের নজির নেই।

তিনি বলেন, মুক্তিযুদ্ধের চেতনা ও একাত্তরের চেতনাকে ধ্বংসের জন্য ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট বঙ্গবন্ধুকে সপরিবারে এবং ৩ নভেম্বর জাতীয় চার নেতাকে স্বাধীনতাবিরোধী, প্রতিক্রিয়াশীল দেশি ও বিদেশি চক্র হত্যা করে। ৭৫-এর থেকে পরবর্তীতে সব হত্যাকাণ্ডে পর্দার আড়ালে নেপথ্যে যারা ছিল সময় এসেছে তাদের মুখোশ উন্মোচনের।

কেবিনেট মিটিংয়ে বঙ্গবন্ধুকে সপরিবারে এবং ৭৫-এর ৩ নভেম্বর জাতীয় চার নেতার হত্যার পিছনে যারা জড়িত ছিল, কমিশন গঠন করে তাদের দ্রুত বিচারের আওতায় নিয়ে আসার ব্যাপারে আলোচনা হয়েছে বলে আশ্বস্ত করেন তথ্য প্রতিমন্ত্রী।

আলোচনা সভার মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন সাংবাদিক জায়েদুল হক পিন্টু, সঞ্চালনা করেন অধ্যাপক ডা. মামুন আল মাহতুব স্বপ্নীল এবং সভাপতিত্ব করেন বিশিষ্ট নাট্যজন পীযুষ বন্দ্যোপাধ্যায়।

এই বিভাগের আরো খবর