• বুধবার ২১ ফেব্রুয়ারি ২০২৪ ||

  • ফাল্গুন ৮ ১৪৩০

  • || ১০ শা'বান ১৪৪৫

বরগুনার আলো
ব্রেকিং:
অশিক্ষার অন্ধকারে কেউ থাকবে না: প্রধানমন্ত্রী একুশ মাথা নত না করতে শেখায়: প্রধানমন্ত্রী একুশে পদক তুলে দিলেন প্রধানমন্ত্রী মহান শহিদ দিবস ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস আগামীকাল মিউনিখ সম্মেলনে শেখ হাসিনাকে নিমন্ত্রণ বাংলাদেশের গুরুত্ব বুঝায় গুণীজনদের সম্মাননা ভবিষ্যৎ প্রজন্মকে অনুপ্রাণিত করবে : রাষ্ট্রপতি একুশে পদকপ্রাপ্তদের অনুসরণ করে তরুণরা সোনার বাংলা বিনির্মাণ করবে আজ একুশে পদক তুলে দেবেন প্রধানমন্ত্রী মিউনিখ নিরাপত্তা সম্মেলনে যোগদান শেষে দেশে ফিরেছেন প্রধানমন্ত্রী মিউনিখ সফর শেষে ঢাকার পথে প্রধানমন্ত্রী বরই খেয়ে দুই শিশুর মৃত্যু, কারণ অনুসন্ধান করবে আইইডিসিআর দেশের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্রের উপযুক্ত জবাব দিন: প্রধানমন্ত্রী গাজায় যা ঘটছে তা গণহত্যা: শেখ হাসিনা প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে ভারতের পররাষ্ট্রমন্ত্রীর সাক্ষাৎ নেদারল্যান্ডস, যুক্তরাজ্য, আজারবাইজান থেকে বড় বিনিয়োগ আহ্বান জার্মান চ্যান্সেলরের সঙ্গে প্রধানমন্ত্রীর বৈঠক শান্তি ফর্মুলা বাস্তবায়নে শেখ হাসিনার সহযোগিতা চাইলেন জেলেনস্কি কাতারের প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে বৈঠক করেছেন শেখ হাসিনা কিছু খুচরো দল তিড়িং বিড়িং করে লাফাচ্ছে: শেখ হাসিনা মিউনিখ নিরাপত্তা সম্মেলনে প্রধানমন্ত্রীকে বিশ্বনেতাদের অভিনন্দন

৩ সুদখোরের নাম হাতে লিখে আত্মহত্যা

বরগুনার আলো

প্রকাশিত: ৫ ডিসেম্বর ২০২৩  

যশোরে সুদখোরদের হুমকি-ধমকি ও মানসিক যন্ত্রণা সহ্য করতে না পেরে আত্মহত্যার পথ বেছে নিলেন লাভলী সরকার (৪৫) নামে এক গৃহবধূ। ফাঁস নেয়ার আগে তার মৃত্যুর জন্য দায়ীদের নাম নিজ হাতে লিখে রাখেন তিনি।

মৃত লাভলী যশোর সদর উপজেলার বালিয়াডাঙ্গা গ্রামের কাঠমিস্ত্রি রবিউল ইসলামের স্ত্রী। মঙ্গলবার (৫ ডিসেম্বর) ঘরের আড়ার সঙ্গে ঝুলন্ত অবস্থায় তার মরদেহ উদ্ধার করা হয়।

তার মৃত্যুর জন্য যাদেরকে দায়ী বলে উল্লেখ করেছেন। তারা হলেন-বালিয়াডাঙ্গা গ্রামের সিরাজুল ইসলামের স্ত্রী পারুল, শুকুর আলীর স্ত্রী ববিতা ও নূর আলীর স্ত্রী রুমা।

লাভলী সরকারের ছেলে নিষাদ আলম ও প্রতিবেশীরা জানান, প্রতিবেশী পারুলের কাছ থেকে ৬০ হাজার টাকা ঋণ নিয়েছিলেন লাভলী। সব টাকা পরিশোধের পরও পারুল আরও দেড় লাখ টাকা দাবি করেন। এছাড়া ববিতার কাছ থেকে ৫০ হাজার টাকা নিয়েছিলেন। তিনি ও বাড়তি ৫০ হাজার টাকা দাবি করেন। এছাড়া রুমার কাছ থেকে কোন টাকা না নিলেও তিনি ৪০ হাজার টাকা নিয়েছেন বলে প্রচার শুরু করেন। ‘সুদখোরদের’ এমন চাপে একপর্যায়ে লাভলী পরিবার নিয়ে বাড়ি ছেড়ে পালিয়ে যান। এরপর ওই তিন নারী লাভলীর ঘরে ভাঙচুর করে তালা লাগিয়ে দেয় এবং বিদ্যুৎ সংযোগ বিচ্ছিন্ন করে দেন। পরে তারা বাড়িতে ফিরে আসলে আগের মতোই হুমকি-ধমকি দিতে থাকেন। এসব সহ্য করতে না পেরে লাভলী মঙ্গলবার সকালে ঘরের আড়ায় গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করেন। তার আগে নিজ হাতে মৃত্যুর কারণ হিসেবে সুদখোর তিন নারীর নাম লিখে যান। এ ঘটনায় লাভলীর ছেলে ও প্রতিবেশীরা ন্যায় বিচার দাবি করেন।

যশোর জেনারেল হাসপাতালের জরুরি বিভাগের চিকিৎসক মিঠুন কুমার দে বলেন, মঙ্গলবার সকাল ৯টা ৫ মিনিটে লাভলী সরকারকে হাসপাতালে আনা হয়। কিন্তু তার আগেই মারা যান তিনি। লাভলী সরকারের মরদেহের বাম হাতে কলম দিয়ে তিনজন মহিলার নাম লেখা ছিল।

যশোর কোতোয়ালি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আব্দুর রাজ্জাক জানান, এ ব্যাপারে থানায় একটি নিয়মিত মামলা হয়েছে। অভিযোগ তদন্ত করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে।

বরগুনার আলো