• বুধবার ২১ ফেব্রুয়ারি ২০২৪ ||

  • ফাল্গুন ৮ ১৪৩০

  • || ১০ শা'বান ১৪৪৫

বরগুনার আলো
ব্রেকিং:
অশিক্ষার অন্ধকারে কেউ থাকবে না: প্রধানমন্ত্রী একুশ মাথা নত না করতে শেখায়: প্রধানমন্ত্রী একুশে পদক তুলে দিলেন প্রধানমন্ত্রী মহান শহিদ দিবস ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস আগামীকাল মিউনিখ সম্মেলনে শেখ হাসিনাকে নিমন্ত্রণ বাংলাদেশের গুরুত্ব বুঝায় গুণীজনদের সম্মাননা ভবিষ্যৎ প্রজন্মকে অনুপ্রাণিত করবে : রাষ্ট্রপতি একুশে পদকপ্রাপ্তদের অনুসরণ করে তরুণরা সোনার বাংলা বিনির্মাণ করবে আজ একুশে পদক তুলে দেবেন প্রধানমন্ত্রী মিউনিখ নিরাপত্তা সম্মেলনে যোগদান শেষে দেশে ফিরেছেন প্রধানমন্ত্রী মিউনিখ সফর শেষে ঢাকার পথে প্রধানমন্ত্রী বরই খেয়ে দুই শিশুর মৃত্যু, কারণ অনুসন্ধান করবে আইইডিসিআর দেশের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্রের উপযুক্ত জবাব দিন: প্রধানমন্ত্রী গাজায় যা ঘটছে তা গণহত্যা: শেখ হাসিনা প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে ভারতের পররাষ্ট্রমন্ত্রীর সাক্ষাৎ নেদারল্যান্ডস, যুক্তরাজ্য, আজারবাইজান থেকে বড় বিনিয়োগ আহ্বান জার্মান চ্যান্সেলরের সঙ্গে প্রধানমন্ত্রীর বৈঠক শান্তি ফর্মুলা বাস্তবায়নে শেখ হাসিনার সহযোগিতা চাইলেন জেলেনস্কি কাতারের প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে বৈঠক করেছেন শেখ হাসিনা কিছু খুচরো দল তিড়িং বিড়িং করে লাফাচ্ছে: শেখ হাসিনা মিউনিখ নিরাপত্তা সম্মেলনে প্রধানমন্ত্রীকে বিশ্বনেতাদের অভিনন্দন

বিপন্ন প্রজাতির গন্ধগোকুল উদ্ধার

বরগুনার আলো

প্রকাশিত: ৮ ডিসেম্বর ২০২৩  

পটুয়াখালী জেলার গলাচিপা উপজেলা থেকে বিপন্ন Small Indian Civet গন্ধগোকুল উদ্ধার করা হয়েছে। স্থানীয় প্রশাসন ও বনবিভাগের মাধ্যমে প্রাণীক সংরক্ষিত বনে অবমুক্ত করার কথা রয়েছে।

শুক্রবার (৮ ডিসেম্বর) সকাল সাড়ে ১০টার দিকে উপজেলার আমখোলা ইউনিয়নের বাশবুনিয়া গ্রামের ধান খেতে জালে আটকে পড়লে স্থানীয়রা আটক করে খাঁচাবন্দী করে রাখে।

পরে সাবেক ইউপি সদস্য শাহ আলম স্থানীয় প্রাণী কল্যাণ সংগঠন অ্যানিম্যাল লাভার পটুয়াখালীর সদস্যদের খবর দিলে মো. সাগর হাওলাদার সানি গিয়ে উদ্ধার করে তাদের হেফাজতে নিয়ে আসেন।  

জানা গেছে, প্রাণীটিকে গলাচিপা উপজেলা নির্বাহী অফিসারের (ইউএনও) বাংলোতে নিয়ে যাওয়া হবে। প্রাণীটি নিশাচর হওয়ায় রাতে বনে অবমুক্ত করা হবে। এই প্রাণীকে বাংলাদেশের ২০১২ সালের বন্যপ্রাণী (সংরক্ষণ ও নিরাপত্তা) আইনের রক্ষিত বন্যপ্রাণীর তালিকার তফসিল-১ অনুযায়ী এ প্রজাতিটিকে সংরক্ষিত ঘোষণা করা হয়েছে।

অ্যানিম্যাল লাভার পটুয়াখালীর সদস্য মো. সাগর হাওলাদার সানি বলেন, এ প্রাণীটি নিশাচর প্রকৃতির যে কারণে এদের দিনে সচারাচর দেখা যায়না এবং তারা রাতে খাবারের খোজে বের হয়। খাবার হিসেবে এরা প্রায় সব ধরনের ফল, বিভিন্ন ছোট প্রাণী ও পতঙ্গ, তাল-খেজুরের রস খেয়ে থাকে। এরা গাছে উঠতে পারলেও মাটিতেই শিকার ধরে যেমন ইঁদুর, কাঠবিড়ালী, ছোট পাখি, টিকটিকি, কীটপতঙ্গ ও সেগুলির লার্ভা খেয়ে থাকে। এবং গৃহস্থের হাঁস-মুরগিও চুরি করে ফেলে। খাদ্যজালের বিভিন্ন প্রাণী খেয়ে থাকে। যেমন ইদুর কাঠবিড়ালি, কীটপতঙ্গ খায় যাতে কৃষকের ফসল রক্ষা পায়।  

আবাসভূমি ধ্বংস ও হাঁস-মুরগি বাঁচানোর জন্য ব্যাপক নিধনের কারণে এ প্রাণীটি আজ বিপন্ন।

বরগুনার আলো