• বুধবার ২৬ জুন ২০২৪ ||

  • আষাঢ় ১১ ১৪৩১

  • || ১৮ জ্বিলহজ্জ ১৪৪৫

বরগুনার আলো
ব্রেকিং:
ড. ইউনূস কর ফাঁকি দিয়েছেন, তা আদালতে প্রমাণিত: প্রধানমন্ত্রী ‘শেখ হাসিনা দেশ বিক্রি করে না’ অভিন্ন নদীর টেকসই ব্যবস্থাপনা নিয়ে আলোচনা হয়েছে: প্রধানমন্ত্রী দুই দেশের পারস্পরিক সহযোগিতার পথ নিয়ে আলোচনা করেছি সরকার শিক্ষা ব্যবস্থাকে বহুমাত্রিক করেছে: প্রধানমন্ত্রী অনেক হিরার টুকরা ছড়িয়ে আছে, কুড়িয়ে নিতে হবে বারবার ভস্ম থেকে জেগে উঠেছে আওয়ামী লীগ: শেখ হাসিনা টেকসই ভবিষ্যত নিশ্চিত করতে যৌথ দৃষ্টিভঙ্গিতে সম্মত: প্রধানমন্ত্রী গণতন্ত্র রক্ষায় আ. লীগ নেতাকর্মীদের সর্বদা প্রস্তুত থাকার নির্দেশ আওয়ামী লীগের প্লাটিনাম জয়ন্তীতে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে শ্রদ্ধা আওয়ামী লীগের প্লাটিনাম জয়ন্তী আজ ভারতের সঙ্গে বাংলাদেশের ১০ চুক্তি সই বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের ৭৫তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী আগামীকাল দিল্লির রাষ্ট্রপতি ভবনে শেখ হাসিনাকে রাজকীয় সংবর্ধনা হাসিনা-মোদী বৈঠক আজ সংলাপের মাধ্যমে বাণিজ্য প্রতিবন্ধকতা দূর করার আহ্বান বাংলাদেশ প্রতিবেশী দেশগুলোর বিনিয়োগকে অগ্রাধিকার দেয় বঙ্গবন্ধুর চার নীতি এবং বাংলাদেশের চার স্তম্ভ সুফিয়া কামালের সাহিত্যকর্ম নতুন প্রজন্মের প্রেরণার উৎস শুক্রবার ভারত যাচ্ছেন প্রধানমন্ত্রী

ঘূর্ণিঝড় মিধিলির প্রভাবে বরগুনায় ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি

বরগুনার আলো

প্রকাশিত: ১৮ নভেম্বর ২০২৩  

ঘূর্ণিঝড় মিধিলির প্রভাবে বঙ্গোপসাগরে এফবি মায়ের দোয়া নামে মাছ ধরা একটি ট্রলার ডুবে যায়। এ ঘটনায় চার জেলে তিন ঘণ্টা ভেসে অপর একটি ট্রলারে উঠতে পারলেও ডুবে যাওয়া ট্রলারসহ এখনো নিখোঁজ রয়েছে আট জেলে। উদ্ধারকৃত চার জেলে শনিবার (১৮ নভেম্বর) সকালে পটুয়াখালীর মহিপুর ঘাটে পৌঁছেছেন। তারা হলেন- নুর জামান মুন্সি, মাসুম মিয়া, আজগর মিয়া ও রাজিব।

নিখোঁজ জেলেরা হলেন- আবুল কালাম, মো. জাফর মিয়া, মজিবুর রহমান, ট্রলার মালিক ইউসুফ মিয়া, ছত্তার হাওলাদার, নাদিম, বেল্লাল ও ইয়াছিন মিয়া। তাদের সবার বাড়ি বরগুনার পাথরঘাটায়।  

এদিকে ঘূর্ণিঝড় মিধিলির প্রভাবে স্থলভাগে গাছপালা ঘরবাড়ির ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে। এরই মধ্যে নিখোঁজ আট জেলের পরিবারে চলছে আর্তনাদ।

ট্রলার মালিক নিখোঁজ ইউসুফের ভাই ইয়াকুব আলী বলেন, গত মঙ্গলবার মাছ ধরার উদ্দেশ্যে সাগরে যায় ট্রলারসহ ১২ জেলে। হঠাৎ শুক্রবার দুপুরে ঘূর্ণিঝড় মিধিলির প্রভাবে ট্রলার ডুবে যায়। চার জেলে উদ্ধার হলেও আমার ভাইসহ আট জেলের সন্ধান মেলেনি।

ফিরে আসা জেলেদের বরাত দিয়ে ইয়াকুব আলী আরও বলেন, ঘূর্ণিঝড়ের কবলে পরে ট্রলারটি ডুবে গেলে চারজন লাফ দিয়ে সাগরে পড়ে যায়। ওই চার জেলে ভাসতে ভাসতে তিন ঘণ্টা পর অপর একটি ট্রলারে উঠে মহিপুর ঘাটে আসে। তবে এখন পর্যন্ত ডুবে যাওয়া ট্রলার ও জেলেদের সন্ধান পাওয়া যায়নি।

বরগুনা জেলা মৎস্যজীবী ট্রলার মালিক সমিতির সভাপতি গোলাম মোস্তফা চৌধুরী বলেন, ট্রলার ডুবে যাওয়া ও জেলে নিখোঁজ হওয়ার খবর পেয়েছি। আমরা পরিবারের সদস্যদের সঙ্গে কথা বলেছি। নিখোঁজ জেলেদের খোঁজ-খবর নিচ্ছি।

কোস্টগার্ড দক্ষিণ জোনের পাথরঘাটা স্টেশন লে. সাকিব মেহেবুব জানান, আট জেলের নিখোঁজ হওয়ার খবর এখনও তাদের কাছে কেউ জানায়নি, তবে কোস্টগার্ড ঘূর্ণিঝড় পূর্বাপর জলসীমায় টহলে আছে। নিখোঁজ জেলেদের পরিবারের সঙ্গে যোগাযোগ করা হচ্ছে।

বরগুনার আলো