• শুক্রবার   ০৩ ডিসেম্বর ২০২১ ||

  • অগ্রাহায়ণ ১৯ ১৪২৮

  • || ২৬ রবিউস সানি ১৪৪৩

বরগুনার আলো
ব্রেকিং:
প্রশিক্ষিত সামরিক বাহিনী গঠনে বিভিন্ন পরিকল্পনা প্রণয়ন করেছি বাংলাদেশ আর পিছিয়ে যাবেনা, এগিয়ে যাবে : প্রধানমন্ত্রী যে কোনো চ্যালেঞ্জ মোকাবিলায় বাংলাদেশ সদাপ্রস্তুত পার্বত্য শান্তিচুক্তির ফলে দীর্ঘদিনের সংঘাতের অবসান ঘটে পার্বত্য শান্তিচুক্তি বিশ্বের ইতিহাসে বিরল ঘটনা: প্রধানমন্ত্রী ব্যবসায়ীদের দেশের মানুষের পাশে দাঁড়ানোর আহ্বান প্রধানমন্ত্রীর ২৪ বছরে পার্বত্য শান্তি চুক্তি করোনা বাড়লে আবারও বন্ধ হবে স্কুল: প্রধানমন্ত্রী আইন নিজের হাতে তুলে নেবেন না: প্রধানমন্ত্রী গাড়ি ভাঙচুর-আগুন দিলেই ব্যবস্থা: প্রধানমন্ত্রী বঙ্গবন্ধুর ম্যুরাল উদ্বোধন ও জয়িতা টাওয়ারের ভিত্তি স্থাপন সব গণতান্ত্রিক আন্দোলনে নেতৃত্ব দিয়েছে ঢাবি: প্রধানমন্ত্রী রোহিঙ্গা ইস্যুতে জাতিসংঘ বাংলাদেশকে অব্যাহত সমর্থন দেবে রাজস্ব বোর্ডকে সেবাধর্মী, জনবান্ধব ও করদাতাবান্ধব করেছে সরকার ষড়যন্ত্র থাকবে, তবু দেশ এগিয়ে যাবে: প্রধানমন্ত্রী বৈদেশিক বিনিয়োগে বাংলাদেশের গুরুত্ব দিন দিন বাড়ছে: প্রধানমন্ত্রী অর্থনৈতিক অঞ্চলসমূহে ২৭ বিলিয়ন ডলারের বিনিয়োগ প্রস্তাব পেয়েছি বিনিয়োগ শীর্ষ সম্মেলন উদ্বোধন করলেন প্রধানমন্ত্রী বিজনেস সামিট বিনিয়োগ বাজার তৈরি করবে: প্রধানমন্ত্রী ‘গণতন্ত্র পুনরুদ্ধারে ডা. মিলনের আত্মত্যাগ নতুন গতি সঞ্চারিত করে’

কুড়িগ্রামে বন্যা ও নদীভাঙন পরিদর্শনে ত্রাণ প্রতিমন্ত্রী

বরগুনার আলো

প্রকাশিত: ২৪ অক্টোবর ২০২১  

কুড়িগ্রামে বন্যা ও ভাঙনকবলিত এলাকা পরিদর্শন ও ক্ষতিগ্রস্তদের মাঝে ত্রাণ বিতরণ করেছেন দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী ডা. মো. এনামুর রহমান এমপি। গতকাল বেলা সাড়ে ১১টায় জেলার রাজারহাট উপজেলার সরিষাবাড়ী বাজারে তিনি এ ত্রাণ বিতরণ করেন।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন কুড়িগ্রাম-২ আসনের সংসদ সদস্য পনির উদ্দিন আহমেদ, দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রণালয়ের সচিব মো. মোহসীন, জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ রেজাউল করিম, জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান মো. জাফর আলী, রাজারহাট উপজেলা চেয়ারম্যান জাহিদ সোহরাওয়ার্দি বাপ্পী, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা নুরে তাসনিমসহ প্রশাসনিক অন্যান্য কর্মকর্তারা।

এ সময় প্রতিমন্ত্রী ডা. মো. এনামুর রহমান বলেন, দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা মন্ত্রণালয়ে যে দুর্যোগগুলোকে তালিকাভুক্ত করা হয়েছে তার মধ্যে নদীভাঙন একটি। এবার তেমন বন্যা না হলেও নদীভাঙনে ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে অনেক পরিবার। প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশে এসব পরিবারের তালিকা করে পাকাঘর দেয়া হবে।

তিস্তার আকস্মিক বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত চারটি জেলার প্রত্যেকটিতে ৫০ টন চাল, ৫ লাখ করে টাকা ও চার হাজার প্যাকেট শুকনো খাবারসহ শিশু ও পশুখাদ্য দেয়া হয়েছে। এছাড়া কুড়িগ্রাম জেলা প্রশাসকের অনুরোধে বন্যা ও নদীভাঙনে ক্ষতিগ্রস্ত ঘরবাড়ি মেরামতে প্রত্যেক জেলায় ১০০ বান্ডেল করে টিন দেয়া হবে।

বরগুনার আলো