• বৃহস্পতিবার   ১৯ মে ২০২২ ||

  • জ্যৈষ্ঠ ৪ ১৪২৯

  • || ১৬ শাওয়াল ১৪৪৩

বরগুনার আলো
ব্রেকিং:
কক্সবাজার হবে আন্তর্জাতিক বিমান চলাচলের রিফুয়েলিং পয়েন্ট কক্সবাজারে যত্রতত্র স্থাপনা নির্মাণ না করার নির্দেশ প্রধানমন্ত্রী কক্সবাজারে কউক’র নতুন ভবনের উদ্বোধন করলেন প্রধানমন্ত্রী পদ্মা সেতুর টোল নির্ধারণ করে প্রজ্ঞাপন জারি আওয়ামী লীগ সরকার আছে বলেই সবকিছু নিয়ন্ত্রণ করতে পারছে- প্রধানমন্ত্রী ওপেনিংয়ে চতুর্থ সেরা জুটি গড়ে ফিরলেন জয়, তামিমের সেঞ্চুরি নিত্যপণ্যের দাম কেন চড়া, জানালেন প্রধানমন্ত্রী স্বদেশ প্রত্যাবর্তন: শেখ হাসিনা দেশের মানুষের শেষ ভরসাস্থল শেখ হাসিনা বাঙালি জাতির নিরাপদ আশ্রয়স্থল শেখ হাসিনার স্বদেশ প্রত্যাবর্তন ইতিহাসে মাইলফলক: রাষ্ট্রপতি চার দশকেরও বেশি সময় শেখ হাসিনার সফল নেতৃত্বে আ.লীগ উৎপাদন বাড়ানোর পাশাপাশি খাদ্য সাশ্রয় করুন: প্রধানমন্ত্রী সবাই স্বাধীনভাবে সরকারের সমালোচনা করতে পারে: প্রধানমন্ত্রী টাকা অপচয় করা যাবে না: প্রধানমন্ত্রী ‌ঢাকায় বসে সমালোচনা না করে গ্রামে ঘুরে আসুন বঙ্গবন্ধুর নাম কেউ মুছে ফেলতে পারবে না: প্রধানমন্ত্রী আমিরাতের নতুন প্রেসিডেন্টকে রাষ্ট্রপতির অভিনন্দন শেখ হাসিনাকে স্পেনের সরকার প্রধানের শুভেচ্ছা পি কে হালদার গ্রেফতার নানামুখী ষড়যন্ত্র হচ্ছে, সতর্ক থাকতে বললেন প্রধানমন্ত্রী

তদন্ত কমিটির কাছে ঘটনার লোমহর্ষক বর্ণনা দিলেন বেঁচে ফেরা ২২ যাত্রী

বরগুনার আলো

প্রকাশিত: ২৭ ডিসেম্বর ২০২১  

ঝালকাঠির সুগন্ধা নদীতে এমভি অভিযান–১০ লঞ্চে অগ্নিকাণ্ডের ঘটনায় নৌপরিবহন মন্ত্রণালয়ের গঠিত তদন্ত কমিটি ২২ জন বেঁচে ফেরা যাত্রীর বক্তব্য নিয়েছে।

রোববার বরগুনা সার্কিট হাউসের সম্মেলনকক্ষে লঞ্চে অগ্নিকাণ্ডের ঐ প্রত্যক্ষদর্শীদের থেকে সেদিনের ঘটনার লিখিত ও মৌখিক বর্ণনা দেন। দুপুর ১২টা থেকে শুরু হয়ে বেলা ২টা পর্যন্ত চলে সাক্ষাৎকার গ্রহণ।

প্রত্যক্ষদর্শী যাত্রীদের বক্তব্য শোনেন- তদন্ত দলের আহ্বায়ক নৌপরিবহন মন্ত্রণালয়ের যুগ্ম সচিব (বন্দর) মো. তোফায়েল ইসলাম, তদন্ত দলের সদস্য বরিশাল অঞ্চলের নৌ পুলিশ সুপার মো. কফিল উদ্দিন, বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌচলাচল সংস্থার পরিচালক মামুন-অর-রশিদ, তদন্ত কমিটির সদস্যসচিব বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌপরিবহন কর্তৃপক্ষের অতিরিক্ত পরিচালক (বন্দর) মো. সাইফুল ইসলাম, সাংসদ ধীরেন্দ্র দেবনাথ ও বরগুনার জেলা প্রশাসক হাবিবুর রহমান।

বেতাগী পৌরসভার বাসিন্দা মো. সাহেব আলী লিখিত বর্ণনায় বলেন, রাত তিনটার সময় লঞ্চের ভেতর ‘আগুন, আগুন’ শব্দে তিনি ঘুম থেকে উঠে দেখেন, পেছনের একটা স্থান দিয়ে আগুন ওপরে উঠে আসছে। সঙ্গে সঙ্গে দৌড়ে যে পাশে আগুন নেই, সেই পাশে গিয়ে দাঁড়ান। তখন নদীতে কিছু লোকে সাঁতার কাটতে দেখেন এবং চারপাশে মানুষের আহাজারি শোনেন। তিনি পর্দার রশি ধরে নিচে নেমে দাঁড়ান এবং কিনারা কোথায়, তা দেখার চেষ্টা করেন। এমন সময় নদীর তীরে মানুষের লাইটের আলো দেখতে পান। তিনি নদীতে ঝাঁপ দেন। সে সময় আরো কয়েকজনকে ঝাঁপ দেওয়ার শব্দ শুনতে পান। অনেক সময় নদীতে সাঁতার কাটার পর কিনারায় পৌঁছান তিনি। লঞ্চটির ইঞ্জিনের সমস্যার কারণে এই অগ্নিকাণ্ড ঘটেছে বলে লিখিত জবানবন্দিতে তিনি উল্লেখ করেন।

বরগুনার হাইস্কুল সড়কের বাসিন্দা মো. সানাউল্লাহ তদন্ত কমিটির কাছে লিখিত বর্ণনায় উল্লেখ করেছেন, তিনি লঞ্চটির কেবিনে ছিলেন। লঞ্চ ছাড়ার পরপরই একজন চালক মোবাইলে বলছিল, ‘স্যার, ইঞ্জিন ৪০০ পাওয়ারে চলে।’ চাঁদপুর থেকে অনেক যাত্রী উঠেছেন। সব মিলিয়ে দুই হাজারের মতো যাত্রী ছিলেন লঞ্চে। লঞ্চটি চলা অবস্থায় অস্বাভাবিক শব্দ করছিল। এ সময় কয়েকজন যাত্রী চালকের কাছে জানতে চান, ইঞ্জিনে এমন শব্দ কেন! চালক বলছিলেন, কোনো সমস্যা নেই, ইঞ্জিনে কাজ করানো হয়েছে। একজন ইঞ্জিনিয়ার সঙ্গে আছে। এরপর ঘুমিয়ে পড়েন সানাউল্লাহ। রাত তিনটার দিকে লোকজনের চিৎকারে ঘুম ভেঙে যায়। উঠে দেখেন, মানুষ ছোটাছুটি করছে। ইঞ্জিনরুম থেকেই আগুন লাগার ঘটনা ঘটে বলে জানান তিনি।

সাদিকুর রহমান নামের বাঁশবুনিয়া গ্রামের এক বাসিন্দা ঢাকা থেকে বাড়ি ফিরছেলেন। তদন্ত কমিটিকে তিনি বলেন, বড় লঞ্চ কম শক্তির ইঞ্জিন দিয়ে চালানোর কারণে অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটেছে। একই সঙ্গে দুটি লঞ্চ চলাচলা করায় কে কার আগে গন্তব্যে পৌঁছাবে, তার প্রতিযোগিতায় বেপরোয়া গতিতে লঞ্চ চলানো হয়। এসব কারণেও লঞ্চে এমন দুর্ঘটনা ঘটেছে বলে মনে করেন এই যাত্রী।

পাথরঘাটা রহমানিয়া মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক সঞ্জিব চন্দ্র হাওলাদার বলেন, বৃহস্পতিবার রাতে লঞ্চের বারান্দায় বসা ছিলেন তিনি। লঞ্চে বিকট শব্দ হলে তিনি পেছন ফিরে তাকিয়ে দেখেন—আগুনের লেলিহান শিখা তার দিকে দ্রুতগতিতে আসছে। মুহূর্তের মধ্যেই আগুন পুরো লঞ্চে ছড়িয়ে পরে। ধোঁয়ায় আর কিছু দেখা যায় না, তিনি পর্দার কাপড় খোলার চেষ্টা করেন, কিন্তু পারেননি। পরে জীবন বাঁচাতে নদীতে ঝাঁপ দেন। দুই ঘণ্টারও বেশি সময় সাঁতার কাটার পর তিনি তীরে ওঠেন।

সাক্ষাৎকার গ্রহণ শেষে তদন্ত দলের সদস্যসচিব বাংলাদেশ অভ্যন্তরীন নৌপরিবহন কর্তৃপক্ষের অতিরিক্ত পরিচালক (বন্দর) মো. সাইফুল ইসলাম বলেন, লঞ্চে যারা যাত্রী ছিল, যারা আহত ও প্রত্যক্ষদর্শী, তাদের সাক্ষাৎকার নেয়া হয়েছে। আমরা বরগুনায় ২২ জনের সাক্ষাৎকার নিয়েছি। এখন বক্তব্যগুলো বিশ্লেষণ করব। 

তিনি বলেন, এর আগে তারা লঞ্চ পরিদর্শন করেছেন। এরপর টেকনেশিয়ান দিয়ে পরিদর্শন করাবেন এবং যে জায়গায়টা দিয়ে আগুনের উৎপত্তি বলা হচ্ছে, টেকনেশিয়ান দিয়ে সেটি পরীক্ষা–নিরীক্ষা করা হবে, তারপর কমিটি সবকিছু বিশ্লেষণ করে সিদ্ধান্তে পৌঁছাবেন।

বরগুনার আলো