• মঙ্গলবার ২৫ জুন ২০২৪ ||

  • আষাঢ় ১১ ১৪৩১

  • || ১৭ জ্বিলহজ্জ ১৪৪৫

বরগুনার আলো
ব্রেকিং:
ড. ইউনূস কর ফাঁকি দিয়েছেন, তা আদালতে প্রমাণিত: প্রধানমন্ত্রী ‘শেখ হাসিনা দেশ বিক্রি করে না’ অভিন্ন নদীর টেকসই ব্যবস্থাপনা নিয়ে আলোচনা হয়েছে: প্রধানমন্ত্রী দুই দেশের পারস্পরিক সহযোগিতার পথ নিয়ে আলোচনা করেছি সরকার শিক্ষা ব্যবস্থাকে বহুমাত্রিক করেছে: প্রধানমন্ত্রী অনেক হিরার টুকরা ছড়িয়ে আছে, কুড়িয়ে নিতে হবে বারবার ভস্ম থেকে জেগে উঠেছে আওয়ামী লীগ: শেখ হাসিনা টেকসই ভবিষ্যত নিশ্চিত করতে যৌথ দৃষ্টিভঙ্গিতে সম্মত: প্রধানমন্ত্রী গণতন্ত্র রক্ষায় আ. লীগ নেতাকর্মীদের সর্বদা প্রস্তুত থাকার নির্দেশ আওয়ামী লীগের প্লাটিনাম জয়ন্তীতে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে শ্রদ্ধা আওয়ামী লীগের প্লাটিনাম জয়ন্তী আজ ভারতের সঙ্গে বাংলাদেশের ১০ চুক্তি সই বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের ৭৫তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী আগামীকাল দিল্লির রাষ্ট্রপতি ভবনে শেখ হাসিনাকে রাজকীয় সংবর্ধনা হাসিনা-মোদী বৈঠক আজ সংলাপের মাধ্যমে বাণিজ্য প্রতিবন্ধকতা দূর করার আহ্বান বাংলাদেশ প্রতিবেশী দেশগুলোর বিনিয়োগকে অগ্রাধিকার দেয় বঙ্গবন্ধুর চার নীতি এবং বাংলাদেশের চার স্তম্ভ সুফিয়া কামালের সাহিত্যকর্ম নতুন প্রজন্মের প্রেরণার উৎস শুক্রবার ভারত যাচ্ছেন প্রধানমন্ত্রী

বাড়ছে খাদ্যোৎপাদন

বরগুনার আলো

প্রকাশিত: ২ এপ্রিল ২০২৩  

স্বাধীনতার পর কৃষিপণ্য উৎপাদনে বাংলাদেশের সাফল্য দুনিয়ার প্রায় সব দেশের জন্য অনুকরণীয়। জমি চাষে স্বাধীনতার আগে লাঙল এবং হালের বলদই ছিল প্রধান উপকরণ। মান্ধাতা আমলের চাষাবাদ পদ্ধতিতে বাংলাদেশ ছিল খাদ্যাভাবের দেশ। এমনকি মুঘল সুবেদার শায়েস্তা খানের আমলে যখন টাকায় ৮ মণ চাল পাওয়া যেত, তখনও দুর্ভিক্ষ ছিল ‘এ দেশের ললাটে ভাগ্য লিখন’। আর ব্রিটিশ আমলে দুর্ভিক্ষে ছিয়াত্তরের মন্বন্তর কয়েক কোটি মানুষ প্রাণ হারিয়েছে অনাহারে। স্বাধীনতার পর বঙ্গবন্ধু সরকার খাদ্যোৎপাদনকে অগ্রাধিকার দেয়। মুক্তিযুদ্ধের পর প্রথম দুই বছর বিধ্বস্ত বাংলাদেশে খাদ্যাভাব দেখা দেয়নি বৈপ্লবিক কৃষি কর্মসূচির কারণে।

 তবে যুক্তরাষ্ট্র থেকে বাংলাদেশের কেনা খাদ্য জাহাজজাত করার পরও মাঝপথ থেকে ফিরিয়ে নেওয়া হয় ১৯৭৪ সালের ভয়াবহ বন্যা-পরবর্তী সময়ে। ফলে সে বছর খাদ্যাভাব দেখা দিলেও পরের বছর উৎপাদিত হয় রেকর্ড পরিমাণ খাদ্য। বর্তমানে বৈশ্বিক অর্থনৈতিক সংকটে দেশে দেশে যখন খাদ্য ঘাটতির আশঙ্কা, তখন বাংলাদেশে খাদ্য সংকট নেই বলে বিশ্বব্যাংকের প্রতিবেদনে উঠে এসেছে। জাতিসংঘের খাদ্য ও কৃষি সংস্থার ভবিষ্যদ্বাণী- আগামী দিনগুলোতে বিশ্বের যেসব দেশে খাদ্য উৎপাদন বাড়তে পারে, তার মধ্যে বাংলাদেশ অন্যতম। স্বাধীনতার পর বাংলাদেশে ধানের উৎপাদন তিন গুণেরও বেশি, গম দ্বিগুণ, সবজি পাঁচ গুণ এবং ভুট্টার উৎপাদন বেড়েছে ১০ গুণ। বর্তমানে দেশে বছরে গড়ে তিনটি ফসল হচ্ছে। ধান উৎপাদনে বাংলাদেশ এখন বিশ্বে তৃতীয়। স্বাধীনতার পর প্রতি হেক্টর জমিতে গড়ে ধানের উৎপাদন ছিল দুই টন।
 এখন প্রতি হেক্টরে উৎপাদন হচ্ছে পাঁচ থেকে ছয় টন। পাট রপ্তানিতে বিশ্বে আবারও প্রথম স্থানে ফিরেছে বাংলাদেশ।  ইলিশ উৎপাদনে প্রথম, সবজিতে তৃতীয়, মিঠাপানির মাছে তৃতীয়, ব্ল্যাক বেঙ্গল ছাগল উৎপাদনে চতুর্থ, ছাগলের দুধ উৎপাদনে দ্বিতীয়, পেয়ারা উৎপাদনে অষ্টম, আম উৎপাদনে নবম ও আলু উৎপাদনে শীর্ষ দশে রয়েছে বাংলাদেশ। বাংলাদেশে কৃষি উৎপাদন সন্তোষজনকহারে বাড়ানো সম্ভব হয়েছে কৃষিবান্ধব নীতির কারণে। এটিকে টেকসই পদ্ধতিতে পরিণত করতে কৃষককে স্বার্থ রক্ষায় আরও মনোযোগী হতে হবে।

বরগুনার আলো