• শুক্রবার   ০৩ ডিসেম্বর ২০২১ ||

  • অগ্রাহায়ণ ১৯ ১৪২৮

  • || ২৬ রবিউস সানি ১৪৪৩

বরগুনার আলো
ব্রেকিং:
প্রশিক্ষিত সামরিক বাহিনী গঠনে বিভিন্ন পরিকল্পনা প্রণয়ন করেছি বাংলাদেশ আর পিছিয়ে যাবেনা, এগিয়ে যাবে : প্রধানমন্ত্রী যে কোনো চ্যালেঞ্জ মোকাবিলায় বাংলাদেশ সদাপ্রস্তুত পার্বত্য শান্তিচুক্তির ফলে দীর্ঘদিনের সংঘাতের অবসান ঘটে পার্বত্য শান্তিচুক্তি বিশ্বের ইতিহাসে বিরল ঘটনা: প্রধানমন্ত্রী ব্যবসায়ীদের দেশের মানুষের পাশে দাঁড়ানোর আহ্বান প্রধানমন্ত্রীর ২৪ বছরে পার্বত্য শান্তি চুক্তি করোনা বাড়লে আবারও বন্ধ হবে স্কুল: প্রধানমন্ত্রী আইন নিজের হাতে তুলে নেবেন না: প্রধানমন্ত্রী গাড়ি ভাঙচুর-আগুন দিলেই ব্যবস্থা: প্রধানমন্ত্রী বঙ্গবন্ধুর ম্যুরাল উদ্বোধন ও জয়িতা টাওয়ারের ভিত্তি স্থাপন সব গণতান্ত্রিক আন্দোলনে নেতৃত্ব দিয়েছে ঢাবি: প্রধানমন্ত্রী রোহিঙ্গা ইস্যুতে জাতিসংঘ বাংলাদেশকে অব্যাহত সমর্থন দেবে রাজস্ব বোর্ডকে সেবাধর্মী, জনবান্ধব ও করদাতাবান্ধব করেছে সরকার ষড়যন্ত্র থাকবে, তবু দেশ এগিয়ে যাবে: প্রধানমন্ত্রী বৈদেশিক বিনিয়োগে বাংলাদেশের গুরুত্ব দিন দিন বাড়ছে: প্রধানমন্ত্রী অর্থনৈতিক অঞ্চলসমূহে ২৭ বিলিয়ন ডলারের বিনিয়োগ প্রস্তাব পেয়েছি বিনিয়োগ শীর্ষ সম্মেলন উদ্বোধন করলেন প্রধানমন্ত্রী বিজনেস সামিট বিনিয়োগ বাজার তৈরি করবে: প্রধানমন্ত্রী ‘গণতন্ত্র পুনরুদ্ধারে ডা. মিলনের আত্মত্যাগ নতুন গতি সঞ্চারিত করে’

মানুষ ভাবত পুলিশ, পুলিশ ভাবত দুদক কর্তা!

বরগুনার আলো

প্রকাশিত: ১৩ নভেম্বর ২০২১  

সবার কাছে তিনি পরিচিত পুলিশ কর্মকর্তা হিসেবে। সবাই যেন বিশ্বাস করে এজন্য পুলিশের ইউনিফর্মে নিয়মিত ফেসবুকে ছবিও দিতেন। কখনও বন্দুক হাতে, কখনও ওয়াকিটকি হাতে ছবি তুলেছেন নিজেকে পুলিশ প্রমাণের জন্য। আবার পুলিশের কাছে তিনি পরিচিত দুদক কর্মচারী হিসেবেই। কেউবা আবার চেনেন এনএসআই কর্মচারী হিসেবেও। 

কিন্তু এসবের কোনোটিই ঠিক নয়। আসলে তিনি একজন বড় মাপের ‘প্রতারক’। প্রতারণার অভিযোগে অবশেষে ধরা খেলেন পুলিশেরই জালে। শুক্রবার (১২ নভেম্বর) বিকেলে চুয়াডাঙ্গা বড় বাজার থেকে এই প্রতারককে গ্রেপ্তার করে পুলিশ। তার বিরুদ্ধে একাধিক মামলা দায়ের প্রক্রিয়াধীন বলেই জানিয়েছে পুলিশ। 

গ্রেপ্তারকৃত ওই প্রতারকের নাম তৌহিদ হোসেন। তিনি চুয়াডাঙ্গা সদর উপজেলার গাইদঘাট গ্রামের মিল্টন হোসেনের ছেলে। তৌহিদের বিরুদ্ধে এক নারী প্রতারণার অভিযোগে মামলা করেছেন। পুলিশ বাদী হয়ে আরেকটি মামলা করেছে।

জানা গেছে, তৌহিদ হোসেন দীর্ঘদিন ধরেই নিজেকে পুলিশ কর্মকর্তা পরিচয় দিয়ে আসছিলেন। এই পরিচয় দিয়ে তিনি মানুষের কাছ থেকে হাতিয়ে নিয়েছেন বিপুল পরিমাণ অর্থ। জিজ্ঞাসাবাদে তৌহিদ হোসেন জানান, এক নারীকে চুয়াডাঙ্গা থানার পুলিশ বলে পরিচয় দেন তিনি। তাকে বিশ্বাস করানোর জন্যই থানার সামনে ঘোরাফেরা করছিলেন।

চুয়াডাঙ্গা সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোহাম্মদ মহসীন বলেন, ‘তৌহিদ হোসেন নিজেকে কখনো পুলিশ, কখনো এনএসআই হিসেবে পরিচয় দিয়ে প্রতারণা করে থাকেন। প্রতারণার সুবিধার জন্য তিনি ফেসবুকে এসব ছবি ব্যবহার করেন। বিভিন্ন বাহিনীর সদস্য সেজে মূলত টাকা হাতিয়ে নেয়াই ছিল তার কাজ। শনিবার তাকে চুয়াডাঙ্গা আদালতে সোপর্দ করা হবে।’

বরগুনার আলো