• বৃহস্পতিবার   ০২ ফেব্রুয়ারি ২০২৩ ||

  • মাঘ ২০ ১৪২৯

  • || ১০ রজব ১৪৪৪

বরগুনার আলো
ব্রেকিং:
জনগণের ভাগ্য নিয়ে ছিনিমিনি খেলতে আসিনি: প্রধানমন্ত্রী সবাইকে হিসাব করে চলার অনুরোধ প্রধানমন্ত্রীর উন্নত-সমৃদ্ধ দেশ গড়তে কৃষি উন্নয়নের বিকল্প নেই: প্রধানমন্ত্রী ক্রীড়া শিক্ষায় বাস্তবমুখী পদক্ষেপ নিয়েছি: প্রধানমন্ত্রী নিরাপদ খাদ্য নিশ্চিতে কাজ করছে সরকার: প্রধানমন্ত্রী জনস্বাস্থ্য নিশ্চিতে নিরাপদ ও পুষ্টিকর খাদ্যের বিকল্প নেই জনগণকে বিশ্বাস করি, তারা যদি চায় আমরা থাকবো: প্রধানমন্ত্রী ২০২২-২৩ অর্থবছরে ১০ বিলিয়ন ডলারের বেশি রেমিট্যান্স এসেছে ভাষা-সাহিত্য চর্চাও ডিজিটাল করার পরামর্শ প্রধানমন্ত্রীর রাষ্ট্রপতির সঙ্গে প্রধানমন্ত্রীর সাক্ষাৎ মানহীন শিক্ষায় উচ্চশিক্ষিত বেকার বাড়ছে: রাষ্ট্রপতি মুসলিম উম্মাহকে ফিলিস্তিনের পাশে দাঁড়ানোর আহ্বান দেশের ব্যাপক উন্নয়ন বিবেচনায় নিতে দেশবাসীর প্রতি আহ্বান গণতান্ত্রিক ধারা অব্যাহত থাকলেই মানুষের উন্নতি হয়: প্রধানমন্ত্রী আমি জোর করে দেশে ফিরেছিলাম, আ.লীগ পালায় না: শেখ হাসিনা আজ ১১ প্রকল্প উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী ১-৭ মার্চ মোবাইলে কল করলেই শোনা যাবে বঙ্গবন্ধুর ভাষণ সন্ত্রাস রুখে দিতে প্রশংসনীয় ভূমিকা রেখে যাচ্ছে পুলিশ সারদায় কুচকাওয়াজে প্রধানমন্ত্রীকে অভিবাদন বাংলাদেশ পুলিশ শান্তি-শৃঙ্খলা রক্ষায় নিরলসভাবে কাজ করছে

রোহিঙ্গা ক্যাম্পে বিয়ে একটা সামাজিক ‘তামাশা’

বরগুনার আলো

প্রকাশিত: ২৩ নভেম্বর ২০২২  

২১ বছর বয়সী নিয়ামতের (ছদ্মনাম) স্ত্রী সালমা (ছদ্মনাম) এখন ছয় মাসের অন্তঃসত্ত্বা। কোলে রয়েছে আরেকটি কন্যাসন্তান। ঘরে নিয়মিত খাবার নেই। পাশের বাসা থেকে বাচ্চার জন্য খাবার দিয়ে যায়। সালমাকে জিজ্ঞেস করা হয়— নিয়ামত কোথায়? সে জবাব দেয় না। পাশে থেকে একজন বলেন, নিয়ামত দুই মাস হয় বিয়ে করেছে। সেখানেই থাকে। ২১ বছরেই দুই সন্তান রেখে আরেক জায়গায় বিয়ে করা নিয়ে বিস্ময় প্রকাশ করলে, সেই নারী জানান— এখানে এটা কোনও বিষয়ই না। বিয়ে না করে অন্য ঘরে যাওয়ার থেকে বিয়ে করে গেছে, সেটা ভালো। বাচ্চা হয়ে যাওয়ার পরে আবারও ফিরে আসবে— এই আশা নিয়ে দিন গুনছে সালমা। সন্তান জন্মের পরে আবার যে ফিরবে, আপনি নিশ্চিত? সালমা বলেন, ‘ফিরবে। গত সন্তান যখন পেটে ছিল সেসময়েও ছেড়ে গিয়েছিল।’

ক্যাম্পে খুঁজে বের করা হয় নিয়ামতকে। নতুন যাকে বিয়ে করেছেন, তার বয়স কত জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘১৩ বছর।’ ১৩ বছরের মেয়েকে বিয়ে করার কারণ কী জিজ্ঞেস করলে তিনি বলেন, ‘ক্যাম্পে মেয়েদের নিয়ে নানা ঝামেলায় থাকেন বাবা-মা। আমি তাদের সেই সমস্যা কমিয়েছি।’ আগের ঘরের অন্তঃসত্ত্বা স্ত্রীর খোঁজ রাখেন কিনা জানতে চাইলে নিয়ামতের জবাব, ‘তার সঙ্গে আমার সম্পর্ক আছে। মাঝে-মধ্যে খেতে যাই।’

রোহিঙ্গা ক্যাম্পে একাধিক বিয়ে এখন স্বাভাবিক হয়ে এসেছে। একজন পুরুষ ঠিক কতটা বিয়ে করছে, তার কোনও নথি নেই। বেশিরভাগ বিয়ে হচ্ছে মওলানার মাধ্যমে দোয়া পড়িয়ে কবুল। একাধিক বিয়ে নিয়ে সহিংসতার ঘটনাও ঘটেছে বেশ কয়েকটি। কিন্তু পুরুষ- নারী কেউ অভিযোগ না করার কারণে বড় ধরনের ব্যবস্থা গ্রহণের কোনও উদাহরণ নেই।

২০১৮ সালে ক্যাম্প ইন চার্জকে (সিআইসি) শরণার্থী শিবিরে বৈধ বিয়ে রেকর্ড এবং নথি সংরক্ষণের দায়িত্ব দেওয়া হয়। কিন্তু এটা মানছে না কেউ।

ক্যাম্পে ক্ষমতাবান হওয়ার হাতিয়ার বিয়ে

তিনটি বিয়ে করেছেন রহিম (ছদ্মনাম)। একাধিক বিয়ের কারণ উল্লেখ করতে গিয়ে তিনি বলেন, ‘অনেক পরিবারের অভিভাবক মেয়েদের নিয়ে শঙ্কায় থাকে। বিয়ের পরিচয় থাকলে তাদের কোনও ক্ষতি কেউ করে না। ফলে কোনও মতে বিয়ে দিয়ে অভিভাবক নিশ্চিন্ত হতে চায়। আমার প্রথম স্ত্রী দুটি সন্তানের পর আমার অনুমতি ছাড়া জন্ম নিয়ন্ত্রণের ব্যবস্থা নেওয়ায় আমি দ্বিতীয় বিয়ে করি। কিন্তু দ্বিতীয় স্ত্রী নিজেই অন্যজনের কাছে চলে যাওয়ায় তৃতীয় বিয়ে করেছি।’

বেশি বিয়ে করলে সমাজে অসম্মানিত হতে হয় কিনা প্রশ্নে রহিম বলেন, ‘পুরুষ মানুষ বিয়ে করবে সেটাই স্বাভাবিক।’

বিয়ে একটা সামাজিক ‘তামাশা’ হয়ে উঠেছে ক্যাম্পে
৩৬ বছরের রহমান বিয়ে করেছেন ১২ বছরের নাসিমাকে (ছদ্মনাম)। দুই জন দুই ক্যাম্পের বাসিন্দা। পারিবারিকভাবে বিয়ে দেওয়া হয়েছে ক্যাম্পে ক্ষমতা বাড়বে সেই আকাঙ্ক্ষা থেকে। রাজনৈতিকভাবে শক্তিশালী হতে এ ধরনের বিয়ের পরিমাণ কম না। আইন ও সালিশ কেন্দ্রের নির্বাহী পরিচালক নূর খান লিটন মনে করেন, অর্থনৈতিক কাজের সঙ্গে যুক্ত না করতে পারলে এধরনের মানবাধিকার লঙ্ঘনের ঘটনা ঠেকানো যাবে না। তিনি বলেন, ‘ক্যাম্পের গন্ডির মধ্যে কাজহীন বসে থাকা জীবন-যাপনের মধ্য দিয়ে নারীর প্রতি সহিংসতা ও মানবাধিকার লঙ্ঘনের বিষয়গুলোও স্বাভাবিক করে তুলেছে তারা।’

বিয়ের আবার আইন কী

মুসলিম আইনে বহুবিবাহের ক্ষেত্রে আগের স্ত্রীর অনুমতির বিধান আছে। পাশাপাশি তিনি (পুরুষ) ‘বিশেষ ক্ষেত্রে’ একাধিক বিয়ে করতে পারবেন। বিশেষ ক্ষেত্র বলতে সব স্ত্রীকে সমানভাবে রাখার সক্ষমতা। কিন্তু ক্যাম্পের মধ্যে বিয়ের ক্ষেত্রে রোহিঙ্গা পুরুষরা কোনও নিয়মই মানছে না। প্রশাসন বলছে, রোহিঙ্গারা এগুলো লুকিয়ে করে। অধিকাংশ ক্ষেত্রে আমাদের জানার উপায় থাকে না। কেউ অভিযোগ করলে ব্যবস্থা নেওয়ার সুযোগ আছে। তবে অনুমতি নিয়ে বিয়ে নিবন্ধনের আবেদন রোহিঙ্গা ক্যাম্পে কেউ করেনি।

শরণার্থী ত্রাণ ও প্রত্যাবাসন কমিশনার মোহাম্মদ মিজানুর রহমান বলেন, ‘সাধারণত বিয়ে করতে অনুমতি নিতে হয়। কিন্তু অনেকেই লুকিয়ে মওলানা ডেকে বিয়ে করলে, সেটা কোনও মনিটরিংয়ে থাকে না। ফলে কারা বহুবিবাহ বা বিবাহবহির্ভূত সম্পর্কে যাচ্ছে, যা সুনির্দিষ্ট করা সহজ না। তবে এখানে ভিন্ন একটা বাস্তবতাও রয়েছে। ক্যাম্পে বিবাহযোগ্য পুরুষের সংখ্যা নারীর তুলনায় কম। পুরুষেরা নানাভাবে মিয়ানমারে কারাগারে গেছে, কেউ মালয়েশিয়া, সৌদি আরবে গেছে। ফলে সেই সুযোগটা নিচ্ছে অনেকে। যেকোনও যুদ্ধ পরিস্থিতিতে এমনটা ঘটতে দেখা যায়।’

বরগুনার আলো