• বৃহস্পতিবার   ০২ ফেব্রুয়ারি ২০২৩ ||

  • মাঘ ২০ ১৪২৯

  • || ১০ রজব ১৪৪৪

বরগুনার আলো
ব্রেকিং:
জনগণের ভাগ্য নিয়ে ছিনিমিনি খেলতে আসিনি: প্রধানমন্ত্রী সবাইকে হিসাব করে চলার অনুরোধ প্রধানমন্ত্রীর উন্নত-সমৃদ্ধ দেশ গড়তে কৃষি উন্নয়নের বিকল্প নেই: প্রধানমন্ত্রী ক্রীড়া শিক্ষায় বাস্তবমুখী পদক্ষেপ নিয়েছি: প্রধানমন্ত্রী নিরাপদ খাদ্য নিশ্চিতে কাজ করছে সরকার: প্রধানমন্ত্রী জনস্বাস্থ্য নিশ্চিতে নিরাপদ ও পুষ্টিকর খাদ্যের বিকল্প নেই জনগণকে বিশ্বাস করি, তারা যদি চায় আমরা থাকবো: প্রধানমন্ত্রী ২০২২-২৩ অর্থবছরে ১০ বিলিয়ন ডলারের বেশি রেমিট্যান্স এসেছে ভাষা-সাহিত্য চর্চাও ডিজিটাল করার পরামর্শ প্রধানমন্ত্রীর রাষ্ট্রপতির সঙ্গে প্রধানমন্ত্রীর সাক্ষাৎ মানহীন শিক্ষায় উচ্চশিক্ষিত বেকার বাড়ছে: রাষ্ট্রপতি মুসলিম উম্মাহকে ফিলিস্তিনের পাশে দাঁড়ানোর আহ্বান দেশের ব্যাপক উন্নয়ন বিবেচনায় নিতে দেশবাসীর প্রতি আহ্বান গণতান্ত্রিক ধারা অব্যাহত থাকলেই মানুষের উন্নতি হয়: প্রধানমন্ত্রী আমি জোর করে দেশে ফিরেছিলাম, আ.লীগ পালায় না: শেখ হাসিনা আজ ১১ প্রকল্প উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী ১-৭ মার্চ মোবাইলে কল করলেই শোনা যাবে বঙ্গবন্ধুর ভাষণ সন্ত্রাস রুখে দিতে প্রশংসনীয় ভূমিকা রেখে যাচ্ছে পুলিশ সারদায় কুচকাওয়াজে প্রধানমন্ত্রীকে অভিবাদন বাংলাদেশ পুলিশ শান্তি-শৃঙ্খলা রক্ষায় নিরলসভাবে কাজ করছে

গোয়েন্দা কার্যালয় থেকে পলাতক ‘মাদক কারবারি’ গ্রেপ্তার

বরগুনার আলো

প্রকাশিত: ৮ ডিসেম্বর ২০২২  

মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তর (ডিএনসি) গোয়েন্দা কার্যালয় থেকে পলাতক মাদক কারবারি লায়লা সাবরিন রেশমাকে পুনরায় গ্রেপ্তার করা হয়েছে। বৃহস্পতিবার (১ ডিসেম্বর) ভোরে গেন্ডারিয়ার ডিএনসি গোয়েন্দা কার্যালয় থেকে কৌশলে পালিয়ে যান অভিজাত এলাকার মাদক কারবারি লায়লা সাবরিন রেশমা।

বিষয়টি নিশ্চিত করে মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তরের সহকারি পরিচালক (গোয়েন্দা) মোহাম্মদ রিফাত হোসেন বলেন, ঘটনার পর থেকে রেশমাকে গ্রেপ্তারে আমাদের গোয়েন্দা কার্যক্রম অব্যাহত ছিল। তারই অংশ হিসেবে মঙ্গলবার ৬ ডিসেম্বর রাতে হাতিরঝিল থানা এলাকার প্লাটিনাম পার্ক রেস্টুরেন্টের সামনে থেকে রেশমাকে গ্রেপ্তার করা হয়।

তিনি বলেন, গত ৩০ নভেম্বর বিকেলে সংসদ ভবন এলাকার মানিক মিয়া এভিনিউ থেকে রেশমাকে একশত পুড়িয়া (১০ গ্রাম) হেরোইনসহ গ্রেপ্তার করা হয়। পরে তাকে গেন্ডারিয়া গোয়েন্দা কার্যালয়ে নিয়ে আসা হয়। পরদিন ভোরে কর্মকর্তা-কর্মচারিদের চোখ আড়াল করে কৌশলে পালিয়ে যান তিনি।

মোহাম্মদ রিফাত হোসেনের দাবি, রেশমা অভিজাত এলাকার একজন মাদক কারবারি। তিনি বাইকের সাহায্যে শ্যামলী, মোহাম্মদপুরসহ অভিজাত এলাকায় দীর্ঘদিন ধরে হেরোইনের ব্যবসা করে আসছিলেন। এভাবেই তিনি মাদকসম্রাজ্ঞী বনে যান। তবে সব সময় তিনি আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর ধরা ছোঁয়ার বাইরে ছিল। মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তর তাকে পর্যাপ্ত তথ্যপ্রমাণ ভিত্তিতে গ্রেপ্তার করে। গ্রেপ্তারের ঘটনায় অধিদপ্তরের উপ-পরিদর্শক (এসআই) ইকবাল আহমেদ দিপু বাদি হয়ে শেরে বাংলা নগর থানায় মাদক আইনে মামলা দায়ের করেছেন।

বরগুনার আলো