• বুধবার ২১ ফেব্রুয়ারি ২০২৪ ||

  • ফাল্গুন ৮ ১৪৩০

  • || ১০ শা'বান ১৪৪৫

বরগুনার আলো
ব্রেকিং:
অশিক্ষার অন্ধকারে কেউ থাকবে না: প্রধানমন্ত্রী একুশ মাথা নত না করতে শেখায়: প্রধানমন্ত্রী একুশে পদক তুলে দিলেন প্রধানমন্ত্রী মহান শহিদ দিবস ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস আগামীকাল মিউনিখ সম্মেলনে শেখ হাসিনাকে নিমন্ত্রণ বাংলাদেশের গুরুত্ব বুঝায় গুণীজনদের সম্মাননা ভবিষ্যৎ প্রজন্মকে অনুপ্রাণিত করবে : রাষ্ট্রপতি একুশে পদকপ্রাপ্তদের অনুসরণ করে তরুণরা সোনার বাংলা বিনির্মাণ করবে আজ একুশে পদক তুলে দেবেন প্রধানমন্ত্রী মিউনিখ নিরাপত্তা সম্মেলনে যোগদান শেষে দেশে ফিরেছেন প্রধানমন্ত্রী মিউনিখ সফর শেষে ঢাকার পথে প্রধানমন্ত্রী বরই খেয়ে দুই শিশুর মৃত্যু, কারণ অনুসন্ধান করবে আইইডিসিআর দেশের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্রের উপযুক্ত জবাব দিন: প্রধানমন্ত্রী গাজায় যা ঘটছে তা গণহত্যা: শেখ হাসিনা প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে ভারতের পররাষ্ট্রমন্ত্রীর সাক্ষাৎ নেদারল্যান্ডস, যুক্তরাজ্য, আজারবাইজান থেকে বড় বিনিয়োগ আহ্বান জার্মান চ্যান্সেলরের সঙ্গে প্রধানমন্ত্রীর বৈঠক শান্তি ফর্মুলা বাস্তবায়নে শেখ হাসিনার সহযোগিতা চাইলেন জেলেনস্কি কাতারের প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে বৈঠক করেছেন শেখ হাসিনা কিছু খুচরো দল তিড়িং বিড়িং করে লাফাচ্ছে: শেখ হাসিনা মিউনিখ নিরাপত্তা সম্মেলনে প্রধানমন্ত্রীকে বিশ্বনেতাদের অভিনন্দন

অপহরণ-হত্যা বাড়ছে রোহিঙ্গা ক্যাম্পে

বরগুনার আলো

প্রকাশিত: ২ ফেব্রুয়ারি ২০২৩  

কক্সবাজারের ক্যাম্পের রোহিঙ্গারা জড়িয়ে পড়ছেন মাদক ব্যবসাসহ সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ডে। ৫ বছরে ক্যাম্পগুলোতে ঘটেছে দেড়শটি হত্যাকান্ডসহ দুইশ’র বেশি অপহরণের ঘটনা। গেল চার মাসেই অপহরণ করা হয়েছে ৫২ জনকে। এতে চরম আতঙ্কে স্থানীয় বাসিন্দারা। কক্সবাজারের টেকনাফ ও উখিয়ায় অপহরণ এখন নিত্যদিনের ঘটনা। এসব অপরাধের সঙ্গে জড়িত অন্তত ১০টি রোহিঙ্গা সন্ত্রাসী গোষ্ঠী।

পুলিশ ও ভুক্তভোগী পরিবারের তথ্য মতে, গেল চার মাসে টেকনাফ থেকেই অপহরণ করা হয়েছে ৫২ জনকে। খুনোখুনি, গোলাগুলিসহ বাংলাদেশি নাগরিকদের অপহরণ করে মুক্তিপণ আদায়ে ক্ষুব্ধ স্থানীয়রা।

স্থানীয়রা বলেন, “পাহাড়ের ক্ষেত-খামারে যে কাজ করতে যায় তাকে অপহরণ করে মুক্তিপণ দাবি করছে রোহিঙ্গারা। গুম-খুনের হিড়িক চলছে। ভয়াবহ একটা রূপ ধারণ করেছে। যে কোনো সময়ে যে কেউ অপহরণ হতে পারেন।”

সূত্র মতে, ২০১৭ সাল থেকে এ পর্যন্ত প্রায় দেড়শ’টি হত্যাকাণ্ডের ঘটনা ঘটেছে। একই সময়ে অপহরণ করা হয়েছে রোহিঙ্গা ও বাংলাদেশিসহ দুইশ’রও বেশি জনকে।

চলতি বছরের ৮ জানুয়ারি ৪ চার বাংলাদেশি কৃষককে অপহরণ করে রোহিঙ্গা সন্ত্রাসীরা। পরে ৬ লাখ টাকা মুক্তিপণ দিয়ে ছাড়া পান তারা।

স্থানীয়রা জানান, প্রতিদিন খুনাখুনি-অপহরণের ঘটনা ঘটছে। এরকম অবস্থা থাকলে দু’এক বছরের মধ্যে জনগণ পালিয়ে অন্য স্থানে চলে যাবে।”

দেড় বছর আগে সন্ত্রাসীদের হাতে নিহত হন রোহিঙ্গাদের শীর্ষ নেতা মুহিবুল্লাহ। পরে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর অভিযানে পাহাড়ে আশ্রয় নেয় সন্ত্রাসীরা। পুলিশ বলছে, অর্থের যোগান দিতে অপহরণ বাণিজ্যে নেমেছে এসব সন্ত্রাসী গোষ্ঠী।

কক্সবাজার পুলিশ সুপার মো: মাহফুজুল ইসলাম বলেন, “ইতিমধ্যে বিভিন্ন জায়গায় গিয়ে তাদের আস্তানা ধ্বংস এবং ভিকটিমদের উদ্ধার করা হয়েছে “

আইন শৃঙ্খলা বাহিনী বলছে রোহিঙ্গা সন্ত্রাসী গোষ্ঠীর বিরুদ্ধে অভিযান চলছে।

র‌্যাব মিডিয়া প্রধান খন্দকার আল মঈন বলেন, “শান্তিকে সর্বোচ্চ গুরুত্ব দিয়ে আমরা আইন-শৃঙ্খলা বাহিনী কাজ করে যাচ্ছি।”

পুলিশের তথ্য বলছে, ২০১৭ সালের আগস্ট থেকে এপর্যন্ত বিভিন্ন অপরাধে ৫ হাজারেরও বেশি রোহিঙ্গার বিরুদ্ধে প্রায় আড়াই হাজার মামলা হয়েছে। একই সময়ে রোহিঙ্গা সন্ত্রাসীদের কাছ থেকে উদ্ধার করা হয়েছে ১৭৬টি অস্ত্র।

বরগুনার আলো